"মেসোপটেমিয়া" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বানান সংশোধন
(Removing Link GA template (handled by wikidata))
(বানান সংশোধন)
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
 
== ভাষা ও সাহিত্য ==
[[চিত্র:Nimrud ivory lion eating a man.jpg|thumb|right|খ্রিষ্টপূর্ব নবম থেকে সপ্তম শ
[[চিত্র:Nimrudতাব্দীর ivoryনব্য lion eating a man.jpg|thumb|right|খৃষ্টপূর্ব নবম থেকে সপ্তম সতাব্দির নব্য এশীরীয়আসিরীয় সভ্যতার একটি মূর্তী যেখানে একটি শিংহসিংহ একটি মানুষের ঘাড়ে কামড় দিচ্ছে। প্রকৃতপক্ষে এই পীকটোগ্রাফী তাদের লিখিত মত প্রকাশের প্রধান মাধ্যম ছিল।]]
মেসোপটেমীয়রা যে বা ভাষায় কথা বলত তাকে সেমিটিক ভাষা হিসেবে ইতিহাসবিদরা চিনহিতচিহ্নিত করেছেন। তাদের এই ভাষায় দৈনন্দিন ভাবের আদান প্রদান সহ বিজ্ঞানচর্চা, প্রশাষনিক কাজে এবং ধর্মকর্ম পরিচালনা করত। মেসোপোটেমীয়দের প্রধান কৃতিত্ব হল প্রয়োজনীয় ভাব বা বার্তা বোঝানোর জন্য আদিম লেখন পদ্ধতির উদ্ভাবন। প্রথম দিকে এই ভাষা কিছু অর্থোবোধক ছবির মাধ্যমে প্রকাশ করা হত। চিত্রধর্মী এই পদ্ধতিকে বিজ্ঞানীরা পীকটোগ্রাফি বলে থাকেন। মেসোপটেমীয়রা প্রধানত কাদামাটির উপর নলখাগড়ার সূচালো মাথা দিয়ে লিখে শুকিয়ে নিত কিন্তু পরবর্তীতে তা আরো পরিশীল হয়ে বর্নমালায় রূপ নেয়। আনুমানিক ৩৪০০ খৃষ্টপূর্ব অব্দের এই বর্নমালার মাধ্যমে লিখিত দলিল পাওয়া যায়। সেই সময়ের লেখালেখি শুধুমাত্র হিসাব নিকাশ সংরক্ষনের কাজে ব্যাবহার হত। আধুনিক যে দফতরীয় দলিল দেখতে পাওয়া যায় তা সুমেরীয়দের মধ্যেই প্রথম দেখা যায়।
 
সাহিত্যের জন্য মেসোপটেমীয়রা যে ভাষা ব্যাবহার করত আকে বিজ্ঞানীরা হেমেটিক ভাষা বলে চিহ্নিত করেছেন। প্রখ্যাত লেখক হোমার তার ইলিয়ডইলিয়াড এবং ওডেসি লিখারও প্রায় এক হাজার বছর পূর্বে সুমেরীয়রা তাদের নিজস্ব ভাষায় সাহিত্য রচনা করেছিল। এর নাম ছিল গিলগামেশ।[[গিলগামেশ]]। এই সাহিত্য থেকে যানা যায় যে এখানকার লোকজন অত্যন্ত কল্পনাপ্রবণ ছিলো। ব্যাবিলোনীয় শাষন আমলে তাদের লেখালেখিতে পলৌকিক চিন্তার প্রভাব লক্ষ্যণীয়। বসুত এইগুলো ছিল ধর্মাশ্রয়ী সাহিত্যচিন্তা।
 
সাহিত্যের জন্য মেসোপটেমীয়রা যে ভাষা ব্যাবহার করত আকে বিজ্ঞানীরা হেমেটিক ভাষা বলে চিহ্নিত করেছেন। প্রখ্যাত লেখক হোমার তার ইলিয়ড এবং ওডেসি লিখারও প্রায় এক হাজার বছর পূর্বে সুমেরীয়রা তাদের নিজস্ব ভাষায় সাহিত্য রচনা করেছিল। এর নাম ছিল গিলগামেশ। এই সাহিত্য থেকে যানা যায় যে এখানকার লোকজন অত্যন্ত কল্পনাপ্রবণ ছিলো। ব্যাবিলোনীয় শাষন আমলে তাদের লেখালেখিতে পলৌকিক চিন্তার প্রভাব লক্ষ্যণীয়। বসুত এইগুলো ছিল ধর্মাশ্রয়ী সাহিত্যচিন্তা।
== তথ্যসূত্র ==
<references/>
২৮টি

সম্পাদনা