"শৈবধর্ম" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
[[চিত্র:Shiva-nataraja.jpg|thumb|শৈবধর্মের একমাত্র ঈশ্বর পরম আরাধ্য জগদ্বীশ্বর ভগবান শিব।]]
'''শৈবধর্ম''' বা '''শৈবপন্থ''' ([[সংস্কৃত]]: शैव पंथ) [[হিন্দুধর্ম|হিন্দুধর্মের]] চারটি প্রধান সম্প্রদায়ের অন্যতম (অন্য সম্প্রদায়গুলি হল [[বৈষ্ণবধর্ম]], [[শাক্তধর্ম]] ও [[স্মার্তধর্ম]])। এই ধর্মের অনুগামীদের "শৈব" নামে অভিহিত করা হয়। শৈবধর্মে ভগবান [[শিব|শিবকে]] একমাত্র সর্বোচ্চ ঈশ্বর বলে মনে করা হয়; এই ধর্মের অনুগামীরা ভগবান শিব কেই সষ্টাস্রষ্টা, পালনকর্তা, ধ্বংসকর্তা, সকল বস্তুর প্রকাশ ও ব্রহ্মস্বরূপ হিসেবে পুজার্চ্চনা করেন। [[ভারত]], [[নেপাল]] ও [[শ্রীলঙ্কা|শ্রীলঙ্কায়]] শৈবধর্ম সুপ্রচলিত। দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার [[মালয়েশিয়া]], [[সিঙ্গাপুর]] ও [[ইন্দোনেশিয়া|ইন্দোনেশিয়াতেও]] শৈবধর্মের প্রসার লক্ষিত হয়।
 
শৈবধর্মের প্রাচীন ইতিহাস নিরুপণের কাজটি দুঃসাধ্য।হিন্দুধর্মের মহান গ্রন্থ[[ মহাভারতের,]] বর্ণণা অনুযায়ী কুরু বংশের[[ কুল দেবতা ]] ছিলেন [[ভগবান শিব]]। আর একারনেই কুরু বংশের [[একশত কৌরব, ]]ও[[পঞ্চ পান্ডব]] এবং তাদের পিতৃপুরুষ সকলেই শৈবধর্মের উপাসক ছিলেন। বিগত [[২০১৩]] সালে [[ভারতীয়]] টিভি চ্যানেল [[ Star plus]] নির্মিত [[মহাভারত]] নামক টিভি সিরিয়াল টিতে বিষয়টি লক্ষ্য করা যায়। প্রাচীন যুগে বাংলার গৌড়েশ্বর [[মহারাজ শশাংক]] ছিলেন শৈবধর্মের উপাসক। তিনি উনার নামের প্রথমে [[পরম শৈব]] উপাধি ব্যবহার করতেন। আর্যাবর্তে [[পাশুপত সম্প্রদায়]] সবচেয়ে প্রাচীন শৈব ধর্মাবলম্বী। এছাড়া প্রাচীন বাংলার সেন বংশীয় রাজারা ছিলেন শৈবধর্মের উপাসক। সেন রাজারা তাদের রাজকার্যের শুরুতে ভগবান শিবের স্তবের প্রচলন করেছিলেন। কিন্তু সেন বংশের শেষ রাজা [[লক্ষন সেন ]] পিতামহ ও পিতৃদেবের শৈবধর্মের প্রতি অনুরাগ ত্যাগ করে [[বৈষ্ণব ধর্ম ]] গ্রহন করেন। এর ফলে রাজা লক্ষন কে অনেক দূর্গতি পোহাতে হয়েছিল।শৈবধর্মের সুন্দর নিয়ম নীতি ত্যাগ করে তিনি বৈষ্ণবীয় নিয়ম নীতিতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। ফলে রাজকার্যে অমনোযোগী হয়ে পড়েন। তারপর একজন মুসলিম তুর্কি বীর ও তার মাত্র ১৮ জন অশ্বারোহী সৈনিক দ্বারা আক্রমনের শিকার হয়ে রাজপ্রাসাদের পিছনের দরজা দিয়ে পলায়ন করে স্বপরিবারে প্রথম রাজধানী নবদ্বীপ / নদীয়া নৌকাযোগে থেকে দ্বিতীয় রাজধানী পূর্ববঙ্গের মুন্সীগঞ্জের বিক্রমপুরে চলে আসেন। ধারণা করা হয় পিতামহ ও পিতৃদেবের শৈবধর্ম ত্যাগ করার কারনেই লক্ষন সেনর এরকম দূর্গতির কারন ছিল। সংগ্রহিত -[[বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্বসভ্যতা ]]<ref>'{{Harvnb|Tattwananda|1984|p=45}}.</ref> ''[[শ্বেতাশ্বেতর উপনিষদ]]'' (৪০০-২০০ খ্রিষ্টপূর্বাব্দ) <ref>For dating to 400-200 BCE see: Flood (1996), p. 86.</ref> শৈবধর্মের প্রথম সুসংহত দর্শনগ্রন্থ।<ref>For {{IAST|Śvetāśvatara}} Upanishad as a systematic philosophy of Shaivism see: {{Harvnb|Chakravarti|1994|p=9}}.</ref> গেভিন ফ্লাডের মতে: