"ক্ল্যারি গ্রিমেট" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্মাননা - নতুন অনুচ্ছেদ সৃষ্টি
(খেলোয়াড়ী জীবন - নতুন অনুচ্ছেদ)
(সম্মাননা - নতুন অনুচ্ছেদ সৃষ্টি)
}}
 
'''ক্ল্যারেন্স ভিক্টর ক্ল্যারি গ্রিমেট''' ([[জন্ম]]: [[২৫ ডিসেম্বর]], [[১৮৯১]] - [[মৃত্যু]]: [[২ মে]], [[১৯৮০]]) নিউজিল্যান্ডের ডুনেডিনে জন্মগ্রহণকারী বিখ্যাত অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার।[[ক্রিকেট|ক্রিকেটার]]। [[অস্ট্রেলিয়া জাতীয় ক্রিকেট দল|অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের]] পক্ষে [[টেস্ট ক্রিকেট|টেস্ট ক্রিকেটে]] অংশগ্রহণ করেছেন '''ক্ল্যারি গ্রিমেট'''। ক্রিকেট বোদ্ধাদের অভিমত, ক্রিকেটের ইতিহাসে অন্যতম [[spin bowler|স্পিন বোলার]] তিনি। এছাড়াও তিনি [[flipper (cricket)|ফ্লিপারের]] উদ্ভাবক। ক্রিসমাস ডেতে জন্ম নেয়া গ্রিমেট প্রসঙ্গে [[Bill O'Reilly (cricketer)|বিল ও’রিলি]] বলেন, ঐ দেশ থেকে ক্রিসমাস উপলক্ষে তিনি সর্বশ্রেষ্ঠ উপহার হিসেবে অস্ট্রেলিয়া গ্রহণ করেছে।<ref>[[Bill O'Reilly (cricketer)|Bill O'Reilly]], "Clarrie Grimmett", in John Woodcock (ed.) ''Wisden Cricketers' Almanack 1981'' (Queen Anne Press, London, 1981) 103-105 at 103.</ref>
 
== প্রারম্ভিক জীবন ==
 
== খেলোয়াড়ী জীবন ==
৩৩ বছর বয়সে টেস্টে অংশগ্রহণের সুযোগ পান। ১৯২৪ থেকে ১৯৩৬ সময়কালে অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে ৩৭ টেস্টে অংশ নেন। উইকেট প্রতি ২৪.২১ গড়ে ২১৬ উইকেট সংগ্রহ করেন। ১৯২৫ সালে অভিষেক টেস্টেই [[ইংল্যান্ড ক্রিকেট দল|ইংল্যান্ডের]] বিপক্ষে অনুষ্ঠিত সিডনি টেস্টে [[List of Test cricketers who have taken two five-wicket hauls on debut|দুইবার ৫-উইকেট]] শিকার করেন।<ref name="espncricinfo">{{Cite web|url=http://www.espncricinfo.com/ci/engine/match/62548.html |title=5th Test: Australia v England at Sydney, Feb 27-Mar 4, 1925 |accessdate=2011-12-13|work=espncricinfo}}</ref> টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে ২০০ উইকেট লাভের মাইলফলক স্পর্শ করেন তিনি। প্রতি খেলায় তিনি গড়ে ৬ উইকেট তুলে নেন।
 
টেস্ট জীবনের শেষ চার বছর দলীয় সঙ্গী ও লেগ স্পিনার[[Bill O'Reilly (cricketer)| বিল ও’রিলি’র]] সাথে অনেকগুলো উইকেট ভাগাভাগি করেন। সর্বমোট ২১বার পাঁচ-উইকেট ও খেলায় ৭বার ১০-উইকেট লাভ করেছেন। ডারবানে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে শেষ টেস্টে অংশ নেন। সিরিজে ৪৪ উইকেট পেলেও নিজ দেশে ১৯৩৬-৩৭ মৌসুমে অনুষ্ঠিত সফরকারী ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দল থেকে বাদ পড়েন ও [[Frank Ward (cricketer)|ফ্রাঙ্ক ওয়ার্ড]] তাঁর স্থলাভিষিক্ত হন। ফলে ১৯৩৮ সালে ইংল্যান্ড সফরে তিনি যাননি।
 
== সম্মাননা ==
১৯৩১ সালে [[উইজডেন ক্রিকেটার্স অ্যালমেনাক|উইজডেন]] কর্তৃক [[উইজডেন বর্ষসেরা ক্রিকেটার|বর্ষসেরা ক্রিকেটার]] মনোনীত হন। ১৯৮০১৯৯৬ সালে অ্যাডিলেডেপ্রবর্তিত তাঁর[[Australian দেহাবসানCricket ঘটে।Hall ১৯৯৬ সালে নবপ্রবর্তিতof Fame|অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেট হল অব ফেমে]] প্রথম দশজন অন্তর্ভূক্ত সদস্যের একজন হিসেবে তাঁর অন্তর্ভূক্তি ঘটে। ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০০৯ তারিখে [[আইসিসি ক্রিকেট হল অব ফেম|আইসিসি ক্রিকেট হল অব ফেমে]] তাঁর নাম অন্তর্ভূক্ত করা হয়।<ref>{{cite web |url=http://www.thesportscampus.com/200909302215/news-bytes/new-inductees-icc-hall-of-fame |title=Sutcliffe, Grimmett, Trumper, Wasim and Waugh new inductees into Cricket Hall of Fame}}</ref>
 
১৯৮০ সালে অ্যাডিলেডে তাঁর দেহাবসান ঘটে।
 
== তথ্যসূত্র ==
 
== বহিঃসংযোগ ==
{{প্রবেশদ্বার|ক্রিকেট}}
* {{Cricinfo|ref=australia/content/player/5443.html}}
* {{Cricketarchive|ref=Archive/Players/0/449/449.html}}
{{succession box |
before= [[সিডনি বার্নস]]|
title=[[Listটেস্ট ofক্রিকেট Testরেকর্ডের cricket recordsতালিকা#Individualব্যক্তিগত recordsরেকর্ড (bowlingবোলিং)|বিশ্বরেকর্ড - টেস্টে সর্বাধিক উইকেট লাভ]] |
years= ৩৭ টেস্টে ২১৬ উইকেট (২৪.২১)<br>রেকর্ড ধারণ: ৪ জানুয়ারি, ১৯৩৬ - ২৪ জুলাই, ১৯৫৩|
after=[[অ্যালেক বেডসার]] |
৭৭,২৩৪টি

সম্পাদনা