"দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

203.76.147.146-এর সম্পাদিত সংস্করণ হতে Dexbot-এর সম্পাদিত সর্বশেষ সংস্করণে ফেরত
(203.76.147.146-এর সম্পাদিত সংস্করণ হতে Dexbot-এর সম্পাদিত সর্বশেষ সংস্করণে ফেরত)
 
== কারণ ==
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের কারণ নিয়ে যথেষ্ট বিতর্কের অবকাশ রয়েছে। তবে এ নিয়ে একটি সাধারণ ধারণা রয়েছে যা অনেকাংশে গ্রহণযোগ্য। এই কারণটি যুদ্ধোত্তর সময়ে মিত্রশক্তির দেশসমূহের মধ্যে [[তোষণ নীতি|তোষণ নীতির]] মাধ্যমে সমঝোতার ভিত্তি হয়ে দাঁড়ায় যা নির্দেশক শক্তির ভূমিকা পালন করে [[যুক্তরাষ্ট্র]] এবং [[ফ্রান্স]]। [[প্রথম বিশ্বযুদ্ধ|প্রথম বিশ্বযুদ্ধের]] পর [[জার্মানি]] এবং জাপানের আধিপত্য ও সাম্রাজ্যবাদকে দায়ী করে এই কারণটি প্রতিষ্ঠা লাভ করে যার বিস্তারিত এখানে উল্লেখিত হচ্ছে।
 
প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর জার্মানি তার সম্পদ, [[সম্মান]] এবং ক্ষমতার প্রায় সবটুকুই হারিয়ে বসে। এর [[সাম্রাজ্যবাদ|সাম্রাজ্যবাদী]] চিন্তাধারার মূল কারণ ছিল জার্মানির হৃত [[থর্থনীতি|অর্থনৈতিক]], সামরিক এবং ভূমিকেন্দ্রিক সম্পদ পুণরুদ্ধার করা এবং পুণরায় একটি বিশ্বশক্তি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করা। এর পাশাপাশি [[পোল্যান্ড]] এবং [[ইউক্রেন|ইউক্রেনের]] সম্পদসমৃদ্ধ ভূমি নিয়ন্ত্রণে আনাও একটি উদ্দেশ্য হিসেবে কাজ করেছে। জার্মানির একটি জাতীয় আকাঙ্ক্ষা ছিল [[প্রথম বিশ্বযুদ্ধ|প্রথম বিশ্বযুদ্ধের]] পরপর সম্পাদিত [[ভার্সাই চুক্তি]] হতে বেরিয়ে আসার। এরই প্রেক্ষাপটে [[এডলফ হিটলার|হিটলার]] এবং তার [[নাজি]] বাহিনীর ধারণা ছিল যে একটি জাতীয় বিপ্লবের মাধ্যমে দেশকে সংগঠিত করা সম্ভব হবে।
 
=== সোভিয়েত ফিনল্যান্ড যুদ্ধ ===
জার্মানী বনাম মিত্রপক্ষীয় যুদ্ধ চলাকালীন সময় সোভিয়েত ইউনিয়ন তিনটিফিনল্যান্ড আক্রমণ করে শীতকালীন যুদ্ধের সূচনা করল। বাল্টিকএর রাষ্ট্রআগেই লিথুয়ানিয়ালিথুনিয়া, লাটাভিয়ালাটভিয়াএস্থোনিয়ায়এস্তোনিয়ায় সোভিয়েত সৈন্য প্রবেশ করে ক্ষতিপূরণক্ষতিপূরণসহ একটি অনুরূপ প্রস্তাবে ফিনল্যান্ড রাজী না হওয়ায় ৩০শে নভেম্বর ১৯৩৯ সালের ৩০শে নভেম্বরসোভিয়েতসোভিয়েত ইউনিয়ন ফিনল্যান্ড আক্রমণ করল। ফিন লোকবল খুবই কম হলেও তাদের দেশরক্ষার ইচ্ছা ছিল অনেক বেশী। [[জোসেফ স্টালিন|স্তালিন]] একটি নিজস্ব <nowiki>ঝটিকা যুদ্ধ</nowiki> করতে চেয়েছিলেন। কিন্ত প্রতিটি ফ্রন্টে তার বাহিনী প্রতিহত হয়। ১৪ই ডিসেম্বর [[রাষ্ট্রপুঞ্জ]] থেকে সোভিয়েত ইউনিয়নকে বহিষ্কার করা হলো।
 
নতুন বছরের ২রা ফেব্রুয়ারি থেকে সোভিয়েত [[বিমান]], [[ট্যাঙ্ক]] ও স্লেজবাহিত [[সেনাবাহিনী]] একযোগে ফিনদের প্রতিরক্ষা রেখায় আক্রমণ চালানো শুরু করে। ১৫ দিন পর অবশেষে তারা একটি ফাঁক তৈরি করতে পারল। ফলে যুদ্ধের ভাগ্য পরিষ্কার হয়ে গেল। ৬ই মার্চ ১৯৪০ ফিনল্যান্ড [[শান্তি|শান্তির]] জন্য আবেদন করল। সার্বভৌমত্ব রক্ষা পেলেও সোভিয়েত ইউনিয়নের আগের দাবী অনুযায়ী লেলিনগ্র্রাদের কাছাকাছি বেশকিছু এলাকার মালিকানা ছেড়ে দিতে হয় ফিনল্যান্ডকে। এ যুদ্ধে ২ লক্ষ ফিন সৈন্যের মধ্যে ৭০ হাজার সৈন্য মারা যায়। যুদ্ধ থেকে স্তালিনের সেনাদল গুরুত্বপূর্ণ সামরিক শিক্ষা লাভ করলো। অন্যদিকে সোভিয়েত শক্তি সম্পর্কে হিটলারের ভ্রান্ত নিম্ন-ধারণা তৈরি হয়-যা পরবর্তীতে জার্মানীর রাশিয়া আক্রমণে প্রভাব ফেলে।
২৬,০১৭টি

সম্পাদনা