"অলিম্পিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

হান্স গানার লিলজানওয়াল হলেন প্রথম ক্রীড়াবিদ যিনি ১৯৮৬ সালের গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিকে মাদক পরীক্ষায় উত্তীর্ন হতে না পেরে তার ব্রোঞ্জ পদক হারান।<ref>{{cite news |first=Jacquelin|last=Magnay|title=Carl Lewis's positive test covered up|work=The Sydney Morning Herald|url=http://www.smh.com.au/articles/2003/04/17/1050172709693.html|date=18 April 2003|accessdate=28 August 2008}}</ref>এর পরেই সবচেয়ে প্রচারিত মাদক কেলেঙ্গারির ঘটনা ছিল বেন জনসনের। তিনি কানাডায় অনুষ্ঠিত ১৯৮৮ সালের অলিম্পিকে মাদক সেবনের জন্য তার স্বর্নপদক হারান। অলিম্পিকে মাদকের ব্যবহার রোধ করার জন্য নব্বইএর দশকের শেষের দিকে বিশ্ব মাদক বিরোধী এজেন্সি গঠন করা হয় যার ফলশ্রুতিতে ২০০০ সালের গ্রীষ্মকালীন ও ২০০২ সালের শীতকালীন অলিম্পিকে মাদক পরীক্ষার অনুত্তীর্ন ক্রীড়াবিদের সংখ্যা আশংকাজনক হারে বেড়ে যায়। এর পর থেকে প্রত্যেক ক্রীড়াবিদকেই অলিম্পিকে অংশগ্রহণ করার জন্য মূত্র ও রক্ত পরীক্ষার সম্মুখীন হতে হয়। বেইজিং অলিম্পিকে প্রায় ৩৬৬৭ জন এবং লন্ডন অলিম্পিকে প্রায় ৬০০০ জন ক্রীড়াবিদের মাদক পরীক্ষা হয় যার মধ্যে বেইজিং অলিম্পিকে ৬৭ জন ও লন্ডন অলিম্পিকে ১০৭ জন মাদক সেবনের কারণে অংশগ্রহণ করতে পারেন নি।
=== লিঙ্গ বৈষম্য ===
ঔপনিবেশিক রাজনীতি চর্চার বা আদর্শ ধারণের জন্য অলিম্পিক গেমস বহুবার সমালোচিত হয়েছে। অলিম্পিক গেমসের নামে এই ঔপনিবেশিক চর্চাটি সরাসরি আন্তর্যাতিক অলিম্পিক কমিটি অথবা আয়োজনকারী প্রস্তিষ্ঠানসমূহ কিংবা এর পৃষ্ঠপোষকগোষ্ঠী কর্তৃক হয়ে আসছে। বিশেষ করে আয়োজক দেশগুলোর ঔপনিবেশ কালিন নেতিমাচক ভাবমূর্তি তুলে ধরার জন্যও অলিম্পিক গেমসের সমালোচনা হয়ে আসছে। আদিবাসী জনগোষ্ঠীর অগ্রহণযোগ্য আচার আচরণ, ঘুষ প্রদান বা গ্রহণ, সরকারী পৃষ্ঠপোষকতা প্রদান, এমনকি চুরির মত বিষয়েও সমালোচনায় এসেছিল। কিছু কিছু ক্ষেত্রে আদিবাসীদের আক্রমনাক্তক আচার ব্যাবহার,দরিদ্রের প্রতি অবহেলাপূরণ ভাবভঙ্গিকে পরোক্ষ সমর্থন করা হয়েছিল। যার মধ্যে ১৯০৪ সালের সেন্ট লই এর গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক, ১৯৭৬ এর গ্রীষ্মকালীন মন্ট্রিয়ল অলিম্পিক এবং ১৯৮৮ তে ক্যলগেরি, আলবার্টায় অনুষ্ঠিত শীতকালীন অলিম্পিক উল্লেখযোগ্য।
 
=== সন্ত্রাসবাদ ও সহিংসতা===
বিশ্বযুদ্ধের কারণে মোট তিনটি অলিম্পিক গেমস আয়োজন করা সম্ভব হয় নি এগুলো হল ১৯১৬, ১৯৪০ এবং ১৯৪৪। ১৯১৬ সালে প্রথম বশ্বযুদ্ধ, ১৯৪০ ও ১৯৪৪ সালে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের কারণে অলিম্পিক অনুষ্ঠান বাতিল করা হয়। খুব সম্প্রতি ২০০৮ সালে বেইজিং গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিকের উদ্বোধনের দিনে রাশিয়া ও জর্জিয়ার যুদ্ধ শুরু হলেও অলিম্পিক অনুষ্ঠান অব্যাহত থাকে। উল্লেখ্য যে ওই উদ্বোধনি অনুষ্ঠানে রাশিয়ার পপ্রধানমন্ত্রী ভ্লাদিমির পুতিন, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জর্জ বুশ উপস্থিত ছিলেন এবং চীনা প্রধানমন্ত্রী হু জিন্তাও এর সভাপতিত্বে মধ্যান্যভোজে এই পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন।<ref name="MSNBC 2009-01-30" />