"হেয়াত মামুদ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

উইকিফাই করা হল
(Intakhab ctg ব্যবহারকারী কবি হেয়াত মামুদ, পাতাটিকে হেয়াত মামুদ শিরোনামে স্থানান্তর করেছেন)
(উইকিফাই করা হল)
'''হেয়াত মামুদ''' (১৬৯৩-১৭৬০) ছিলেন আধুনিক বাঙালী কবি।<ref name="বাংলাপিডিয়া">{{Cite book |author=ওয়াকিল আহমদ |editor=[[সিরাজুল ইসলাম]] |title=হেয়াত মামুদ[[বাংলাপিডিয়া]] |url=http://bn.banglapedia.org/index.php?title=হেয়াত_মামুদ |chapter=হেয়াত মামুদ |publisher=[[এশিয়াটিক সোসাইটি বাংলাদেশ]] |date=জানুয়ারি ২০০৩ |accessdate=ডিসেম্বর , ২০১৪ |location=[[ঢাকা]] |isbn=984-32-0576-6 |page= |quote=}}</ref>
মধ্যযুগের বাংলা সাহিত্যের শ্রেষ্ঠ কবি হেয়াত মামুদ,
 
==প্রাথমিক জীবন==
কবি হেয়াত মামুদ সম্ভবত ১৬৮০ হইতে ১৬৯০ খ্রিষ্টাব্দের মধ্যে কোন এক সনে পীরগঞ্জের ঝাড়বিশিলা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন"। তাঁর পিতার নাম কবির মাহমুদ এবং মায়ের নাম নিশ্চিতভাবে জানা না গেলেও নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা যায় তাঁর মায়ের নাম ছিল খায়রুননেসা। কবির পরিবার ছিল একটি সম্রান্ত পরিবার যাঁদের পারিবারিক উপাধি ছিল শাহ্‌। তাঁর পিতা ঘোড়াঘাট সরকারের দেওয়ান ছিলেন। তিনি বাগদ্বার পরগণার কাজী ছিলেন বলেও ভিন্ন মত রয়েছে। তবে ডঃ মযহারুল ইসলাম এর মতে পিতার মৃত্যুর পরে ১৭২৩-২৭ সালের দিকে তিনি বাগদ্বার পরগণার (বর্তমান ঘোড়াঘাট উপজেলাধীন) কাজী পদ লাভ করেন। ধারণা করা হয় আনুমানিক ১৭৬০ থেকে ১৭৬৫ খ্রিস্টাব্দের দিকে উত্তর বাংলার এই সাধক কবি ইন্তেকাল করেন। সে যাই হোক, কবি হেয়াত মামুদ জন্মগত ভাবে রংপুরের অধিবাসী ছিলেন। এর সমর্থনে যুক্তি হিসেবে তাঁর কাব্যে ব্যবহৃত রংপুর অঞ্চলের ভাষা ও ভাষারীতির কথা উল্লেখ করা যায়।
মামুদ ১৬৯৩ সালে [[রংপুর জেলা|রংপুর জেলার]] ঘোড়াঘাটের অধীন ঝাড়বিশিলা গ্রামে জন্ম নেন। তাঁর পিতা শাহ কবীর ছিলেন ঘোড়াঘাট সরকারের দেওয়ান এবং তিনি নিজে ছিলেন ওই সরকারের কাজী।<ref name="বাংলাপিডিয়া"/> ব্যক্তিজীবনে তিনি সাধক ও সাত্ত্বিক পুরুষ ছিলেন এবং [[সূফী দর্শন|সূফী সাধনার]] প্রতি ছিল তাঁর গভীর অনুরাগ।
 
==সাহিত্যকর্ম==
সর্বজন স্বীকৃত ভাবে তাঁর চারটি কাব্যের পরিচয় পাওয়া যায়। এবং কবির বাঁধানো কবরের গায়ে পাথরে তা লিপিবদ্ধ আছে। তাঁর কাব্যসমূহ হচ্ছে-
তিনি মোট চারটি কাব্য রচনা করেন।<ref name="বাংলাপিডিয়া"/> হেয়াত মামুদ জন্মগত ভাবে রংপুরের অধিবাসী থাকায় তাঁর সাহিত্যে রংপুর অঞ্চলের ভাষা ও ভাষারীতির ব্যবহার রয়েছে। ''জঙ্গনামা'' (১৭২৩) কাব্যগ্রন্থে রয়েছে কারবালার বিষাদময় কাহিনীর বিবরণ। এটি মূলত ফারসি কাব্যের অনুসরণে রচিত। ''সর্বভেদবাণী'' (১৭৩২) কাব্যে রয়েছে নীতিকথামূলক বয়ান। মামুদ সংস্কৃত পঞ্চতন্ত্র কাব্যের ফারসি অনুবাদ মফরেহুল-কুলুব থেকে এর উপাদান সংগ্রহ করেন।
 
==গ্রন্থের তালিকা==
১) জঙ্গনামা : রচনাকাল ১৭২৩ খ্রিষ্টাব্দ (১১৩০ সন)
* ''জঙ্গনামা'' (১৭২৩)
২) সর্ব ভেদ বাণী কাব্য : রচনাকাল ১৭৩২ খ্রিষ্টাব্দ (১১৩৯ সন)
* ''সর্বভেদবাণী'' (১৭৩২)
৩) হিতজ্ঞান বাণী : রচনাকাল ১৭৫৩ খ্রিষ্টাব্দ (১১৬০ সন)
* ''হিতজ্ঞানবাণী'' (১৭৫৩)
৪) আম্বিয়া বাণী : রচনাকাল ১৭৫৭ খ্রিষ্টাব্দ (১১৬৪ সন)
* ''আম্বিয়াবাণী'' (১৭৫৮)
 
==লিগ্যাসি==
ব্যক্তিজীবনে তিনি সাধক ও সাত্ত্বিক পুরুষ ছিলেন। ছিলেন সূফী সাধনার প্রতি গভীর অনুরাগী। একদিকে জীবনের প্রতি গভীর অনুরাগ অন্যদিকে ধর্ম নিষ্ঠ জীবন যাপনে প্রগাঢ় নিষ্ঠা ও অঙ্গীকার। নৈতিকতা সম্পন্ন জীবনের প্রতি তাঁর শ্রদ্ধাবোধ ছিল সব চাইতে বেশী। নৈতিকতার আলোকে তাঁর জীবন ছিল উদ্ভাসিত। তাই তো তাঁকে বলা যায় নৈতিকতায় বিভা দীপ্ত কবি।
রংপুরবাসীরকবি দাবীহেয়াত এবংমামুদের দীর্ঘসম্মানে আন্দোলনের[[বেগম ফসল হিসেবে প্রতিষ্ঠিতরোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়|বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের]] একটি ভবনের নামকরণ করা হয়েছে "''কবি হেয়াত মামুদ ভবন।ভবন''।
 
==মৃত্যু==
রংপুরবাসীর দাবী এবং দীর্ঘ আন্দোলনের ফসল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি ভবনের নামকরণ করা হয়েছে "কবি হেয়াত মামুদ ভবন।
ধারণা করা হয় আনুমানিক ১৭৬০ সালে তিনি মৃত্যু বরণ করেন।
 
==তথ্যসূত্র==
{{Reflist}}
 
==আরো পড়ুন==
* [http://www.rokomari.com/book/3124;jsessionid=169EFE8D75DD3E1CA0FE542923FF9279 কবি হেয়াত মামুদ] — [[রকমারি.কম|রকমারি]]
* [http://www.porua.com.bd/books/কবি-হেয়াত-মামুদ কবি হেয়াত মামুদ] — [[http://www.porua.com.bd/ পড়ুয়া.কম]
৫৬,৯৪৩টি

সম্পাদনা