"নিকারাগুয়া" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

তথ্যযোগ
(তথ্যযোগ)
(তথ্যযোগ)
 
===ধর্ম===
[[চিত্র:Catedral de managua.jpg|thumb|মানাগুয়ার পুরনো গির্জা]] [[চিত্র:Maximo Jerez Monument - León, Nicaragua.jpg|thumb|বহু পুরনো লেওন ক্যাথিড্রাল দেশের একটি অন্যতম ঐতিহ্যবাহী স্থাপত্য, ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট বলেও স্বীকৃত]]
যদিও নিকারাগুয়ার সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ (প্রায় ৮০ শতাংশ) [[ক্যাথলিক]] ধর্মের অনুসারী এবং ক্যাথলিক বিশপদের দেশের সাধারণ মানুষের উপর বিশেষ প্রভাব পরিলক্ষিত হয়, সরকারিভাবে ১৯৩৯ সাল থেকে নিকারাগুয়া একটি ধর্মনিরপেক্ষ দেশ। দেশের সংবিধানেও দেশের মানুষের ধর্মীয় স্বাধীনতার কথার উল্লেখ আছে।<br />
স্পেনীয় কঙ্কিস্তাদোরদের নিকারাগুয়ায় আগমণ ও সেদেশ দখলের অল্পদিনের মধ্যেই ১৫৩০ সাল নাগাদ খ্রিষ্টান মিশনারিরা এদেশে আসতে শুরু করেন। সামান্য কিছু ব্যতিক্রম বাদে সে' সময়ই স্পেনীয়দের মদতে এখানকার বেশিরভাগ স্থানীয় মানুষও এই মূলত ক্যাথলিক ধর্ম প্রচারকদের প্রচেষ্টায় খ্রিষ্ট ধর্মে ধর্মান্তরিত হন। অবশ্য এক্ষেত্রে বিদ্রোহের ইতিহাসও আছে। কিন্তু মূলত স্পেনীয় শাসকদের বিরুদ্ধে সে বিদ্রোহ সে' সময় কঠোর হাতে দমন করা হয় ও অসংখ্য স্থানীয় অধিবাসীকে শাস্তি হিসেবে পেরুতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। সেখানে অস্বাস্থ্যকর ও অমানবিক পরিস্থিতিতে পাহাড় ও খনিতে কাজ করতে তাদের বাধ্য করা হলে তাদের অধিকাংশেরই মৃত্যু ঘটে। ফলে নিকারাগুয়ায় সে' সময় থেকেই [[রোমান ক্যাথলিক]] ধর্ম সংখ্যাগরিষ্ঠের ধর্মে রূপান্তরিত হয়। ১৯৩৯ সাল পর্যন্ত এই ধর্মই দেশে সরকারি ধর্ম হিসেবে স্বীকৃত ছিল।<br />
বর্তমানে ক্যাথলিক চার্চ সমগ্র দেশকে ৮টি ডায়াসেশনে ভাগ করেছে। দেশের মোট প্রায় ৪৩.৫ লক্ষ মানুষ তাদের অনুসরণ করেন। মোট ৩৬৭ জন ক্যাথলিক প্যারিস প্রিস্টের অধীনে এই অনুগামীরা বিন্যস্ত। একেকজন প্রিস্টের অধীন এলাকা প্রায় ৩২৬ বর্গ কিলোমিটার ও গড়ে ১১,৮০০ অধিবাসী তাঁদের অনুসরণ করেন।<br />
ঊনবিংশ শতাব্দী থেকে খ্রিষ্ট ধর্মের অন্য শাখাগুলিও নিকারাগুয়ায় প্রভাব বিস্তার করতে শুরু করে। এদের মধ্যে প্রোটেস্টান্ট চার্চ, মোরাভীয় চার্চ, দ্য চার্চ অফ নাজারিন, দ্য অ্যাসেম্বলিজ অফ গড, প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য। মূলত দেশের পশ্চিম অংশে এদের প্রভাব বেশি দেখা যায়। এদের মধ্যে মোরাভীয় চার্চের কথা বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। ঊনবিংশ শতাব্দীতে [[জার্মানি]] থেকে এই ধর্ম প্রচারকরা নিকারাগুয়ায় আসেন। বিশেষ করে অস্পেনীয় স্থানীয় বিভিন্ন উপজাতি, যেমন মেস্কিটো, সুমু, রামা ও ক্রেওল জনসাধারণের কাছে এই চার্চ ধীরে ধীরে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। ১৯৯০ এর দশক থেকে দেখা যাচ্ছে, এদের মধ্যে [[প্রোটেস্টান্ট ধর্ম| প্রোটেস্টান্ট ধর্মের]] অনুরাগীর সংখ্যা দেশে দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে।<ref name="DOCID">[http://lcweb2.loc.gov/cgi-bin/query/r?frd/cstdy:@field(DOCID+ni0040) Nicaraguya: Religion,Country Studies (Library of Congress). সংগৃহীত ৭ আগস্ট, ২০১৪]</ref><br />
নিকারাগুয়ার মানুষ সাধারণভাবে ধর্মভীরু। প্রতি রবিবার নিয়ম করে গির্জার প্রার্থনায় যোগ দেওয়ার অভ্যাসে তাদের ঘাটতি থাকলেও, জনজীবনে ও এমনকী রাজনীতিতেও ক্যাথলিক বিশপদের বিশেষ প্রভাব পরিলক্ষিত হয়। বিশেষ করে ১৯৭০ ও ৮০'র দশকে সোমোথা সরকারের বিরুদ্ধে দেশ জুড়ে আন্দোলনে এঁদের প্রভাব ব্যাপকভাবে মানুষকে সংগঠিত করে। পরবর্তীকালে সান্দানিস্তা আন্দোলনের জনভিত্তি তৈরির ক্ষেত্রেও ক্যাথলিক গির্জার যথেষ্ট ভূমিকা ছিল। বিশেষ করে শহরাঞ্চলের গরীব মানুষকে এই আন্দোলনের পিছনে নিয়ে আসার ক্ষেত্রে এরা অত্যন্ত সদর্থক ভূমিকা পালন করে।<br />
ধর্মাচরণের দিক থেকে দেখলে নিকারাগুয়ায় পালিত সংখ্যাগরিষ্ঠ ক্যাথলিক জনগোষ্ঠীর কিছু বিশেষ বৈশিষ্ট্য পরিলক্ষিত হয়। লাতিন আমেরিকার অন্য অনেক দেশের মতো এদেশে চালু ধর্মাচরণ বাস্তবে খ্রিষ্ট ধর্মের সাথে স্থানীয় আদিবাসী মানুষের প্রাচীন ধর্মাচরণের একটি মিশ্রণ নয়। এদেশে ষোড়শ শতকেই স্থানীয় অধিবাসীদের খ্রিস্টধর্মে ধর্মান্তকরণ একরকম সম্পূর্ণ হওয়া ও বাকিদের অনেককেই দেশ থেকে নির্বাসনের ফলে স্থানীয় মানুষের প্রাচীন ধর্মগুলির প্রভাব এদেশের মানুষের উপর পরবর্তীকালে আর তেমন পরিলক্ষিত হয় না। কিন্তু এদেশে খ্রিষ্টীয় সন্তদের জনপ্রিয়তা অত্যন্ত বেশি। সাধারণ মানুষের ধর্মাচরণ মূলত এঁদের ঘিরেই আবর্তিত হয়। সন্তদের ছবি, কুয়াদ্রোস, এদেশে প্রায় ঘরে ঘরে দেখতে পাওয়া যায়। সমাজের বিভিন্ন অংশ এঁদের মধ্যে বিশেষ কাউকে তাদের প্যাট্রন সেন্ট বলেও মনে করে থাকে। ফলে এইসব সন্তদের নামে উৎসর্গীকৃত দিবসগুলি এদেশে অত্যন্ত আড়ম্বর ও উৎসাহের সাথে পালিত হয়। যেমন রাজধানী মানাগুয়ায় সন্ত দমিনিক'এর সম্মানে আগস্ট মাসে দুইদিন ব্যাপী অত্যন্ত আড়ম্বরপূর্ণ মিছিলের আয়োজন করা হয়। দেশের নিম্ন ও নিম্ন-মধ্যবিত্ত মানুষ বিশেষ করে এই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করে থাকে।<ref name = DOCID/><br />
তবে বর্তমানে নিকারাগুয়ায় সরকারিভাবে ধর্মনিরপেক্ষ নীতি অনুসরণের ফলে, ও অন্যদেশ থেকে অভিবাসীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথে অন্যান্য ধর্মেরও প্রচলন ঘটেছে এবং তাদের প্রভাবও বৃদ্ধি পেয়েছে। এদের মধ্যে বৌদ্ধদের কথা বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য।<ref>[http://archivo.elnuevodiario.com.ni/2004/octubre/24-octubre-2004/mundo_oculto/mundo_oculto-20041020-01.html "El Budismo en Nicaragua", Con Todo El Podar de la Informcion, El Nuevo Diario,Domingo 24 de Octubre de 2004. সংগৃহীত ০৮ আগস্ট, ২০১৪।]</ref>