"নিকারাগুয়া" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

তথ্যযোগ
(তথ্যযোগ)
(তথ্যযোগ)
 
==নিকারাগুয়া নামের উদ্ভব==
নিকারাগুয়া নামের উদ্ভব নিয়ে একাধিক কাহিনী প্রচলিত আছে। তার মধ্যে তিনটি সর্বাধিক উল্লেখযোগ্য। অনেকের মতে এই নামটি এসেছে স্থানীয় এক উপজাতিপ্রধানের নাম থেকে।<ref name ="questconnect">[http://www.questconnect.org/ca_nicaragua.htm Questconnect. Nicaragua]</ref> জনশ্রুতি অনুযায়ী স্পেনীয় কঙ্কুইস্তাদোর গিল গঞ্জালেস দাভিলা এই অঞ্চলে আজকের সান হোর্খে বা রিভাসে এসে উপজাতিপ্রধান নিকারাও [[Nicarao]]'এর দেখা পান। দিনটি ছিল ১৫ অক্টোবর, ১৫২৩। তাঁর নাম থেকেই দেশটির নাম হয় নিকারাগুয়া। অন্যদের মতে নিকান শব্দের অর্থ স্থানীয় নাহুতল [[Nahuatl]] ভাষায় 'এখানে', আরাহুয়াক মানে 'মানুষ'। এই দুটি শব্দ থেকেই এসেছে নিকারাগুয়া শব্দটি। <ref>[https://de.wikipedia.org/wiki/Nicaragua]</ref> আরেকটি মত হল, এই অঞ্চলে স্পেনীয়দের আগমনকালে যে আমেরিন্ডিয়ান উপজাতি বাস করতো তাদেরই নাম ছিল নিকারাও। গিল গঞ্জালেস দাভিলা এই নিকারাও শব্দের সাথে স্পেনীয় শব্দ আকুয়া অর্থাৎ জল যুক্ত করে নিকারাগুয়া শব্দটি তৈরি করেন। এই অঞ্চলে দুটি বৃহৎ অন্তর্দেশীয় হ্রদ [[লেক মানাগুয়া হ্রদ]] ও [[লেক নিকারাগুয়া| নিকারাগুয়া হ্রদের]]'র অবস্থানই হয়তো তাঁর এমন নামকরণের কারণ। <ref>[http://www.manfut.org/monumentos/nicarao.html নিকারাও'এর ঐতিহাসিকতা সম্পর্কিত ফের্নান্দো সিলভা লিখিত প্রবন্ধ]</ref>
 
==ভৌগলিক বৈশিষ্ট্য==
 
===প্রশান্ত মহাসাগরীয় নিম্নভূমি===
পশ্চিমে প্রশান্ত মহাসাগরীয় নিম্নভূমি অঞ্চলটি মুলত চওড়া ও উর্বর সমভূমি নিয়ে গঠিত। এই অঞ্চলটিতেই দেশের বেশিরভাগ জনবসতি অবস্থিত। কিন্তু [[কর্ডিলেরা লস মারিবিওস]] পর্বতশ্রেণীর বিভিন্ন আগ্নেয় পর্বত এই সমভূমিতে প্রবেশ করে একে মাঝেমাঝেই পরস্পর থেকে বিচ্ছিন্ন কয়েকটি উর্বর সমভূমি অঞ্চলে পরিণত করেছে। এই নিম্ন-সমভূমি অঞ্চলটি উত্তরে [[ফনসেকা উপসাগর]]'এর তীর থেকে শুরু হয়ে প্রশান্ত মহাসাগরের তীর বরাবর দক্ষিণে লেক নিকারাগুয়া পেরিয়ে কোস্তা রিকা পর্যন্ত বিস্তৃত। এই অঞ্চলের সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ভৌগলিক বৈশিষ্ট্য হল মধ্য আমেরিকার সবচেয়ে বড় দুটি অন্তর্দেশীয় হ্রদের উপস্থিতি - লেক নিকারাগুয়া হ্রদ (লাগো কোকিবোলকা) ও লেকমানাগুয়া মানাগুয়া।হ্রদ। এর মধ্যে লেক নিকারাগুয়া হ্রদটি দেশটির দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থিত ও আয়তনে অপেক্ষাকৃত বড়। এটি মধ্য আমেরিকার সবচেয়ে বড় মিষ্ট জলের হ্রদ (আয়তন ৮০০১ বর্গ কিমি, সর্বাধিক দৈর্ঘ্য ১৭৭ কিমি, সর্বাধিক গভীরতা ৭০ মিটার বা ২৩০ ফুট। আয়তনের বিচারে বিশ্বে ১৯তম।)। <ref>[http://www.factmonster.com/ipka/A0001777.html Large Lakes of the World]</ref> এই হ্রদটি থেকেই দেশের প্রধান নদী রিও সান হুয়ান নদীর উৎপত্তি, যা দেশটির দক্ষিণ সীমান্ত বরাবর পূর্বমুখে প্রবাহিত হয়ে অবশেষে ক্যারিবীয় উপসাগরে পড়েছে।
 
===মধ্যভাগের উচ্চভূমি===
 
===নদনদী===
নিকারাগুয়ার প্রধান নদী রিও সান হুয়ান। [[লেক নিকারাগুয়া| নিকারাগুয়া হ্রদ]] থেকে এই নদী উৎপন্ন হয়ে প্রথমে দক্ষিণবাহী ও তারপরে পুবমুখে প্রবাহিত হয়ে ক্যারিবীয় সাগরে পতিত হয়েছে। [[লেক নিকারাগুয়া|নিকারাগুয়া হ্রদ]] এই নদীটির দ্বারাই [[ক্যারিবীয় সাগর|ক্যারিবীয় সাগরের]] সাথে যুক্ত হওয়ায় ১৯২ কিলোমিটার লম্বা এই নদীটি অনেকসময় ''এল দেসাহুয়াদেরো'' (নর্দমা) নামেও অভিহিত হয়ে থাকে। সম্পূর্ণ নাব্য এই নদীটির এক বড় অংশ নিকারাগুয়া ও [[কোস্তা রিকা| কোস্তা রিকার]] সীমানা দিয়ে প্রবাহিত। তথাকথিত নিকারাগুয়া হাঙর বা মিষ্ট জলের [[ষাঁড় হাঙ্গর]] ও অন্যান্য বহু জলজ প্রাণীর আবাসস্থল এই নদী।<ref>[http://www.elasmo-research.org/education/ecology/fresh-bull.htm Fresh Waters: Unexpected Haunts Bull Shark. elasmo-research.org. ২৬ জুন, ২০১৪ দেখা।]</ref><ref>[http://www.nicaragua.com/wildlife/ Wildlife in Nicaraguya]</ref> হ্রদ থেকে রিও সান হুয়ান নদী যেখানে বেরিয়েছে, সেখানে এক জায়গায় নদী থেকে [[প্রশান্ত মহাসাগর| প্রশান্ত মহাসাগরের]] দূরত্ব মাত্র ২৪ কিলোমিটার। তাই এই নদীকে ঘিরে [[পানামা খাল| পানামা খালের]] বিকল্প একটি আন্তর্মহাসাগরীয় খাল খননের পরিকল্পনা বারে বারে আলোচনায় উঠে এসেছে, যদিও নানা কারণে তা এখনও বাস্তবায়িত হয়ে ওঠেনি। [[মানাগুয়া হ্রদ]] অপরদিকে রিও তিপিতাপা নদী দ্বারা [[লেক নিকারাগুয়া| নিকারাগুয়া হ্রদের]] সাথে যুক্ত। এই নদীটি উত্তরে মানাগুয়া হ্রদ থেকে উৎপন্ন হয়ে দক্ষিণবাহী হয়ে নিকারাগুয়া হ্রদে পড়েছে।<br />
দেশের পূর্বদিকে ক্যারিবীয় নিম্নভূমি অঞ্চলটি অনেকগুলি নদী অধ্যুষিত। পূর্ববাহী এই নদীগুলির মধ্যে সবচেয়ে বড় রিও কোকো। দেশের উত্তর সীমা ধরে প্রবাহিত এই নদী মধ্য আমেরিকার বৃহত্তম নদী। এছাড়াও এই অঞ্চলের অন্য নদীগুলির মধ্যে এসকনদিদো, রিও গ্রান্দে দ্য মাতাহালপা, প্রিনসাপোলকা, প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য।
 
==জনপরিসংখ্যান==
২০০৫ সাল পর্যন্ত হিসেব অনুযায়ী নিকারাগুয়ার মোট অধিবাসীর সংখ্যা ৫১,৪২,০৯৮ জন (২০১৪ সালের জুলাই মাসে ৫৮,৪৮,৬৪১<ref name ="Factbook">
[https://www.cia.gov/library/publications/the-world-factbook/rankorder/2102rank.html CIA. The World Factbook. 2014. সংগৃহীত ৮ জুলাই, ২০১৪।]</ref>)। এঁদের মধ্যে [[মেস্তিজো]], অর্থাৎ শ্বেতকায় ও স্থানীয় আমেরিন্ডিয়ানদের মিশ্রিত জনসংখ্যা মোট জনসংখ্যার ৬৯.৭ শতাংশ, ১৭.৬ শতাংশ শ্বেতকায় (মূলত স্পেনীয় বংশোদ্ভূত) ও ৯.২ শতাংশ আফ্রিকান বংশোদ্ভূত। মোট জনসংখ্যার ৯০ শতাংশই প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল ও মানাগুয়া অঞ্চলের বাসিন্দা। ২০০৫ সালের হিসেব অনুযায়ী ক্যারিবীয় উপকূলের মোট বাসিন্দা মাত্র ৭ লক্ষ।<ref name ="censos2005">[http://www.inide.gob.ni/censos2005/ResumenCensal/Res_Anexos5.pdf VIII Censo de Población y IV de Vivienda, 2005 সংগৃহীত ১৪ জুলাই, ২০১৪]</ref> আবার কৃষ্ণাঙ্গ জনসংখ্যার ৯৫ শতাংশই বাস করেন ক্যারিবীয় উপকূল অঞ্চলে। এর ফলে গোটা দেশের সাপেক্ষে সংখ্যা কম হওয়া সত্ত্বেও ক্যারিবীয় উপকূল অঞ্চলে কৃষ্ণাঙ্গরাই সংখ্যাগরিষ্ঠ (৫৯ শতাংশ)। স্থানীয় আমেরিন্ডিয়ানদের সংখ্যা দেশে উল্লেখযোগ্যভাবেই কম, মোট জনসংখ্যার মাত্র ৩.২ শতাংশ। এঁদের মধ্যে মেস্কিটো উপজাতি সংখ্যায় সর্বাধিক। এছাড়াও ছোট ছোট কতগুলি জনগোষ্ঠী রয়েছে, যেমন রামা, সুমো, প্রভৃতি। এঁদের বেশীরভাগেরই বসবাস [[অতলান্তিক মহাসাগর| অতলান্তিক]] উপকূলেই।<br/>
মোট জনসংখ্যার ৫৭.৫ শতাংশই শহরের বাসিন্দা (হিসেব ২০১১ সালের)। দেশে মানুষের বেঁচে থাকার গড় বয়স ৭২.৭ বছর। প্রতি ১০০ জন মহিলা পিছু পুরুষ সংখ্যা ৯৬। শিশুমৃত্যুর হার প্রতি হাজারে ২০.৩৬। জন্মহার প্রতি হাজারে ১৮.৪১ ও মৃত্যুহার ৫.০৭।<ref name= Factbook/> ফলে জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ১.৮ (২০০৮ সালের হিসেব অনুযায়ী), যা পশ্চিম গোলার্ধের মধ্যে সবচেয়ে বেশি জনসংখ্যা বৃদ্ধির হারের মধ্যে একটি। ২০০৫ সালের হিসেব অনুযায়ী দেশে জনসংখ্যার ঘনত্ব প্রতি বর্গ কিলোমিটারে ৪২.৭ জন।<ref name ="censos2005resumen2">[http://www.inide.gob.ni/censos2005/ResumenCensal/Resumen2.pdf CENSO DE POBLACIÓN 2005. সংগৃহীত ১৪ জুলাই, ২০১৪]</ref>
 
===অভিবাসী===
অভিবাসীদের সংখ্যা নিকারাগুয়ায় সে'দেশের জনসংখ্যার তুলনায় যথেষ্টই বেশি। তবে তা কখনই মোট১৯৯৫ সাল পর্যন্ত জনসংখ্যার ১ শতাংশকে খুব বেশি অতিক্রম করেনি। ২০০৫ সালের আদমশুমারি রিপোর্ট অনুযায়ী বিদেশে জন্মেছে এ'রকম জনসংখ্যা নিকারাগুয়ার মোট জনসংখ্যার ১.২ শতাংশ।<ref name = censos2005/><br/>
[[উনবিংশ শতাব্দী| ঊনবিংশ শতাব্দীতে]] ইঊরোপের নানা দেশ, যেমন [[জার্মানি]], [[ইতালি]], [[স্পেন]], [[ফ্রান্স]], [[বেলজিয়াম]] থেকে বহু পরিবার নিকারাগুয়ায় এসে বসবাস শুরু করে। মূলত প্রশান্ত মহাসাগরীয় নিম্নভূমি ও মধ্যভাগের উচ্চভূমি অঞ্চলেই এরা বসতি স্থাপন করে। পরবর্তীকালে [[মধ্যপ্রাচ্য]] ও [[আরব উপদ্বীপ]] থেকেও বহু মানুষ নিকারাগুয়ায় এসে বসবাস শুরু করে। এরা মূলত [[সিরিয়া]], [[আর্মেনিয়া]], [[প্যালেস্তাইন]] ও [[লেবানন]] থেকে আসা মানুষ। সংখ্যায় এরা আজ প্রায় ৩০ হাজার। এছাড়াও ২০০৫ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী নিকারাগুয়ায় চিনা অভিবাসীর সংখ্যাও প্রায় ১২ হাজার।<ref name = censos2005/> এদের মধ্যে এক মানাগুয়া শহরেই প্রায় ৮০০০ জনের বাস। ঊনবিংশ শতাব্দীতেই এই চিনারা এ'দেশে আসতে শুরু করে। কিন্তু ১৯২০ সালের আগে স্থায়ীভাবে কোনও চিনা বসতির উল্লেখ পাওয়া যায় না।
 
===ভাষা===
নিকারাগুয়ার সরকারি ভাষা [[স্পেনীয় ভাষা| স্পেনীয়]]। দেশের মানুষের ৯৭ শতাংশই মাতৃভাষা হিসেবে এই ভাষায় কথা বলে থাকেন।<ref name = censos2005resumen2/> সারা দেশেই এই ভাষা চলে। তবে অঞ্চলভেদে এই ভাষার নানা উপভাষাগত প্রভেদ দেখা যায়। ক্যারিবীয় উপকূলে কৃষ্ণাঙ্গ নিকারাগুয়ানদের মধ্যে ক্রেওল বা ক্যারিবীয় ইংরেজিরও প্রচলন দেখা যায়। মূলত ব্লুমসফিল্ড শহর ও তার আশেপাশে এই ভাষার প্রচলন বেশি। তবে দ্বিতীয় ভাষা হিসেবে এরা প্রত্যেকেই সাধারণত স্পেনীয় ভাষায় যথেষ্টই সচ্ছন্দ। এছাড়াও ক্যারিবীয় উপকূলে বসবাসকারী বিভিন্ন আমেরিন্ডিয়ান উপজাতির মানুষ তাদের নিজস্ব ভাষাতেও কথা বলে থাকেন। এই ভাষাগুলোর মধ্যে মেস্কিটো, মাতাগালপা, মায়াংনা, রামা, সুমো, গারিফুনা, প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য।<ref name ="ethnologue">[http://www.ethnologue.com/country/NI/languages Nicaraguya Languages. সংগৃহীত ১৪ জুলাই, ২০১৪]</ref> এদের মধ্যে কয়েকটি ভাষায় বর্তমানে এত কম মানুষ কথা বলেন যে সেগুলিকে আশঙ্কাজনক হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। যেমন উলুওয়া ভাষা (২০০৯ সালের হিসেব অনুযায়ী এই ভাষায় মাত্র ৩৫০ জন মানুষ কথা বলেন।)। এছাড়া কয়েকটি ভাষা বিলুপ্তও হয়ে গেছে। যেমন সুবতিয়াবা ভাষা। ১৯৮১ সালের হিসেব অনুযায়ী যদিও এই ভাষা গোষ্ঠীর প্রায় ৫০০০ মানুষের খোঁজ পাওয়া যায়, তাঁদের কেউই আর নিজেদের প্রথম ভাষা হিসেবে এই ভাষাটি ব্যবহার করতেন না। মাঙ্গুয়ে ভাষার ক্ষেত্রেও বিষয়টি একইরকম।<ref name = ethnologue/>
 
==আরও দেখুন==
* [[List of volcanoes in Nicaragua]]
* [[Central America Volcanic Arc]]
 
==তথ্যসূত্র==
<references/>