"নিকারাগুয়া" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

তথ্যযোগ
(তথ্যযোগ)
(তথ্যযোগ)
 
==নিকারাগুয়া নামের উদ্ভব==
নিকারাগুয়া নামের উদ্ভব নিয়ে একাধিক কাহিনী প্রচলিত আছে। তার মধ্যে তিনটি সর্বাধিক উল্লেখযোগ্য। অনেকের মতে এই নামটি এসেছে স্থানীয় এক উপজাতিপ্রধানের নাম থেকে।<ref name ="questconnect">[http://www.questconnect.org/ca_nicaragua.htm Questconnect. Nicaragua]</ref> জনশ্রুতি অনুযায়ী স্পেনীয় কঙ্কুইস্তাদোর গিল গঞ্জালেস দাভিলা এই অঞ্চলে আজকের সান হোর্খে বা রিভাসে এসে উপজাতিপ্রধান নিকারাও [[Nicarao]]'এর দেখা পান। দিনটি ছিল ১৫ অক্টোবর, ১৫২৩। তাঁর নাম থেকেই দেশটির নাম হয় নিকারাগুয়া। অন্যদের মতে নিকান শব্দের অর্থ স্থানীয় নাহুতল [[Nahuatl]] ভাষায় 'এখানে', আরাহুয়াক মানে 'মানুষ'। এই দুটি শব্দ থেকেই এসেছে নিকারাগুয়া শব্দটি। <ref>[https://de.wikipedia.org/wiki/Nicaragua]</ref> আরেকটি মত হল, এই অঞ্চলে স্পেনীয়দের আগমনকালে যে আমেরিন্ডিয়ান উপজাতি বাস করতো তাদেরই নাম ছিল নিকারাও। গিল গঞ্জালেস দাভিলা এই নিকারাও শব্দের সাথে স্পেনীয় শব্দ আকুয়া অর্থাৎ জল যুক্ত করে নিকারাগুয়া শব্দটি তৈরি করেন। এই অঞ্চলে দুটি বৃহৎ অন্তর্দেশীয় হ্রদ [[লেক মানাগুয়া]] ও [[লেক নিকারাগুয়া]]'র অবস্থানই হয়তো তাঁর এমন নামকরণের কারণ। <ref>[http://www.manfut.org/monumentos/nicarao.html নিকারাও'এর ঐতিহাসিকতা সম্পর্কিত ফের্নান্দো সিলভা লিখিত প্রবন্ধ]</ref>
 
==ভৌগলিক বৈশিষ্ট্য==
 
===আগ্নেয়গিরি শৃঙ্খল===
[[চিত্র:Le volcan Momotombo (Nicaragua) (3281572693).jpg|thumb|মোমোতোম্বো আগ্নেয়গিরি]]
নিকারাগুয়াকে বলা হয়ে থাকে আগ্নেয়গিরির দেশ। দেশের পশ্চিম তট বরাবর একটি আগ্নেয়গিরি শৃঙ্খল দেশের উত্তর থেকে দক্ষিণে বিস্তৃত। বস্তুত এই আগ্নেয়গিরি শৃঙ্খলটি মধ্য আমেরিকার আগ্নেয়গিরি শৃঙ্খলেরই অংশ বিশেষ। দেশের পশ্চিম তটে [[প্রশান্ত মহাসাগর| প্রশান্ত মহাসাগরের]] তলদেশে উপকূল থেকে প্রায় ১০০ কিলোমিটার অভ্যন্তরে দুই [[টেকটনিক প্লেট]], ক্যারিবিয় প্লেট ও কোকোস প্লেটের সংযোগস্থল। বিজ্ঞানীদের পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, কোকোস প্লেটটি প্রতিবছর ক্যারিবীয় প্লেট অভিমুখে ৭০-৮৫ মিলিমিটার সরে আসছে। অন্যদিকে উত্তর আমেরিকা প্লেটটিকে স্থির ধরে নিলে, ক্যারিবীয় প্লেটটির গতি পূর্ব অভিমুখে প্রতিবছর ১৮-২০ মিলিমিটার। এই দুই প্লেটের অসম গতির কারণে সৃষ্ট সংঘর্ষের ফলে এই অঞ্চল ভূতাত্বিকভাবে এখনও যথেষ্ট অস্থির।<ref name="pendient">[http://pendientedemigracion.ucm.es/info/tectact/DOCS/Articulos/Alvarez-Gomez_FEM%20active%20tectonics%20northern%20Central%20America_Tectonics_2008.pdf Constraints from finite element modeling on the active tectonics of northern Central America and the Middle America Trench. ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০০৮. সংগৃহীত ০৭ জুলাই, ২০১৪।]</ref> সেই কারণেই এই অঞ্চলে প্রশান্ত মহাসাগরের উপকূল রেখা বরাবর একটি আগ্নেয়গিরি শৃঙ্খল দেখতে পাওয়া যায় যেটি দক্ষিণে [[কোস্তা রিকা]] থেকে শুরু হয়ে উত্তরে [[নিকারাগুয়া]], [[হন্ডুরাস]], [[এল সালভাদোর]] ও [[গুয়াতেমালা| গুয়াতেমালার]] মধ্য দিয়ে বিস্তৃত।<ref name= ucsd/><ref name = pendient/> এই মধ্য আমেরিকার আগ্নেয় মেখলার একেবারে মধ্যস্থলে নিকারাগুয়ার অবস্থানের ফলে আগ্নেয়গিরির সংখ্যা এ'দেশে এত বেশি। এগুলির মধ্যে অনেকগুলিই সুপ্ত বা জীবন্ত। মাঝেমাঝেই অগ্ন্যুৎপাত তাই এ'দেশে নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা। এ'দেশের সক্রিয় আগ্নেয়গিরিগুলির মধ্যে সেরো নেগ্রো, কনসেপসিওন, লাস পিলাস, মাথায়া, সান ক্রিস্তোবাল, তেলিসা প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য। এদের মধ্যে কনসেপসিওন থেকে শেষ অগ্ন্যুৎপাত ঘটেছে ২০০৯ সালে, সান ক্রিস্তোবালে ২০১২ সালে, তেলিসায় ২০০৭ সালে ও সেরো নেগ্রো শেষবার জেগে উঠেছিল ১৯৯৯ সালে। অপরদিকে মোম্বাচো, মোমোতোম্বো, কসিথুইনা প্রভৃতি আগ্নেয়গিরিগুলি থেকে গত ১০০ বছরে কোনো অগ্ন্যুৎপাত না ঘটলেও যে কোনও মুহূর্তেই সেগুলি আবার জেগে উঠতে পারে। আবার জাপাতেরা, মাদেরাস, আপোইয়েক প্রভৃতি আগ্নেয়গিরিগুলি থেকে বিগত কয়েক হাজার বছরের মধ্যেও কোনও অগ্ন্যুতপাতের ঘটনা ঘটতে দেখা যায়নি।*
 
==জলবায়ু==
মধ্যভাগের উচ্চভূমি অঞ্চলটি দেশের ''তিয়েরা তেমপ্লাদা'' বা নাতিশীতোষ্ণ মণ্ডল হিসেবে পরিচিত। এই অঞ্চলের জলবায়ু প্রশান্ত মহাসাগরীয় নিম্নভূমি অঞ্চলের তুলনায় শীতল। এখানকার গড় উষ্ণতা {{convert|75|to|80|°F|°C|1|abbr=on|disp=flip}}। বর্ষাকাল এখানে আরও দীর্ঘস্থায়ী, বৃষ্টিপাতের পরিমাণও বেশি। বৃষ্টিপাতের ফলে পাহাড়ী অঞ্চলে মাঝেমাঝেই ধ্বস নামে। সাধারণভাবে এই অঞ্চলে ভূমি রুক্ষ, জনঘনত্বও কম। তবে এই অঞ্চলের উত্তর-পশ্চিমের ঢালে যে উপত্যকাটি দেখতে পাওয়া যায়, সেটি যথেষ্ট উর্বর। ফলে এই অঞ্চলে জনঘনত্বও অপেক্ষাকৃত বেশি।<br/>
দেশের পূর্ব উপকূলের ক্যারিবীয় নিম্নভূমির জলবায়ুও সম্পূর্ণ ক্রান্তীয় অঞ্চলের উষ্ণ মণ্ডলীয় জলবায়ু। এই অঞ্চলের তাপমাত্রা অপেক্ষাকৃত বেশি, বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতাও যথেষ্ট বেশি। এই অঞ্চলে প্রচূর বৃষ্টিপাত হয়। বস্তুত এই অঞ্চল সমগ্র মধ্য আমেরিকার মধ্যে সবচেয়ে বৃষ্টিবহুল অঞ্চল। বছরে এর মোট পরিমাণ ২৫০০-৬৫০০ মিলিমিটার। অপেক্ষাকৃত কম জনবসতিপূর্ণ এই অঞ্চলের এক বড় অংশ জুড়ে ক্রান্তীয় [[রেনফরেস্ট]] দেখতে পাওয়া যায়।
বর্ষাকালে পূর্বদিকের ক্যরিবীয় নিম্নভূমি অঞ্চলের উপর দিয়ে বয়া বিভিন্ন নদীগুলির নিম্ন, মধ্য ও এমনকী কিছু কিছু ক্ষেত্রে উচ্চপ্রবাহ অঞ্চলেও বন্যার প্রকোপ দেখা যায়। প্রতিবছর এই বন্যার ফলে চাষবাস ও নদী অববাহিকাগুলি ঘিরে থাকা বনাঞ্চলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি ঘটে। এছাড়া মূলত জুলাই থেকে অক্টোবরের মধ্যে পূর্ব উপকূলীয় অঞ্চলে মাঝেমাঝেই প্রবল সামুদ্রিক ঝড় বা হ্যারিকেনের প্রভাব দেখতে পাওয়া যায়। এই সব ঝড়েও ক্যারিবীয় উপকূলীয় অঞ্চলের জীবনযাত্রা বহুসময়েই ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির সম্মুখীন হয়ে থাকে।*
 
==জনপরিসংখ্যান==
২০০৫ সাল পর্যন্ত হিসেব অনুযায়ী নিকারাগুয়ার মোট অধিবাসীর সংখ্যা ৫১,৪২,০৯৮ জন (২০১৪ সালের জুলাই মাসে ৫৮,৪৮,৬৪১<ref name ="Factbook">
[https://www.cia.gov/library/publications/the-world-factbook/rankorder/2102rank.html CIA. The World Factbook. 2014. সংগৃহীত ৮ জুলাই, ২০১৪।]</ref>)। এঁদের মধ্যে [[মেস্তিজো]], অর্থাৎ শ্বেতকায় ও স্থানীয় আমেরিন্ডিয়ানদের মিশ্রিত জনসংখ্যা মোট জনসংখ্যার ৬৯.৭ শতাংশ, ১৭.৬ শতাংশ শ্বেতকায় (মূলত স্পেনীয় বংশোদ্ভূত) ও ৯.২ শতাংশ আফ্রিকান বংশোদ্ভূত। মোট জনসংখ্যার ৯০ শতাংশই প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল ও মানাগুয়া অঞ্চলের বাসিন্দা। ২০০৫ সালের হিসেব অনুযায়ী ক্যারিবীয় উপকূলের মোট বাসিন্দা মাত্র ৭ লক্ষ। আবার কৃষ্ণাঙ্গ জনসংখ্যার ৯৫ শতাংশই বাস করেন ক্যারিবীয় উপকূল অঞ্চলে। এর ফলে গোটা দেশের সাপেক্ষে সংখ্যা কম হওয়া সত্ত্বেও ক্যারিবীয় উপকূল অঞ্চলে কৃষ্ণাঙ্গরাই সংখ্যাগরিষ্ঠ (৫৯ শতাংশ)। স্থানীয় আমেরিন্ডিয়ানদের সংখ্যা দেশে উল্লেখযোগ্যভাবেই কম, মোট জনসংখ্যার মাত্র ৩.২ শতাংশ। এঁদের মধ্যে মেস্কিটো উপজাতি সংখ্যায় সর্বাধিক। এছাড়াও ছোট ছোট কতগুলি জনগোষ্ঠী রয়েছে, যেমন রামা, সুমো, প্রভৃতি। এঁদের বেশীরভাগেরই বসবাস [[অতলান্তিক মহাসাগর| অতলান্তিক]] উপকূলেই।<br/>
মোট জনসংখ্যার ৫৭.৫ শতাংশই শহরের বাসিন্দা (হিসেব ২০১১ সালের)। দেশে মানুষের বেঁচে থাকার গড় বয়স ৭২.৭ বছর। প্রতি ১০০ জন মহিলা পিছু পুরুষ সংখ্যা ৯৬। শিশুমৃত্যুর হার প্রতি হাজারে ২০.৩৬। জন্মহার প্রতি হাজারে ১৮.৪১ ও মৃত্যুহার ৫.০৭।<ref name= Factbook/> ফলে জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ১.৮ (২০০৮ সালের হিসেব অনুযায়ী), যা পশ্চিম গোলার্ধের মধ্যে সবচেয়ে বেশি জনসংখ্যা বৃদ্ধির হারের মধ্যে একটি।
 
==আরও দেখুন==
[[বিষয়শ্রেণী:রাষ্ট্র]]
[[বিষয়শ্রেণী:মধ্য আমেরিকা]]
[[বিষয়শ্রেণী:নিকারাগুয়া]]