"আবুল হোসেন (কবি)" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
(+)
| image =
| birth_date = {{Birth date|১৯২২|০৮|১৫}}
| birth_place = [[বাগেরহাট জেলা]]
| death_date = {{Death date and age|২০১৪|০৬|২৯|১৯২২|০৮|১৫}}
| death_place = ঢাকা, বাংলাদেশ
তিনি কবিতাচর্চা শুরু করেছিলেন স্কুল জীবন থেকেই। তিনি কলকাতা প্রেসিডেন্সি কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে রবীন্দ্র পরিষদের সম্পাদক ছিলেন। বঙ্গীয় মুসলমান সাহিত্য সমিতির কার্যকরী পরিষদ, পাকিস্তান রাইটার্স গিল্ডের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী পরিষদ ও বাংলা একাডেমীর কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য ছিলেন। রবীন্দ্র চর্চাকেন্দ্রের সভাপতি ছিলেন। তার গ্রন্থসংখ্যা ২৫টি। তাঁর প্রথম কাব্য গ্রন্থ নববসন্ত ১৯৪০ সালে প্রকাশিত হয়।<ref>{{cite web|author=Joint Collaboration of Manab Zamin IT Team and ZTech Communication(www.ztechbd.com) |url=http://mzamin.com/details.php?mzamin=MzAxOTg=&s=Mw== |title=Daily Manab Zamin &#124; নববসন্ত’র কবি আবুল হোসেন আর নেই |publisher=Mzamin.com |date=২৯ জুন ২০১৪ |accessdate=২৯ জুন ২০১৪}}</ref>
 
তার প্রকাশিত বইগুলির মধ্যে রয়েছে:<ref name="gunijan1"/>
এরপর ১৯৬৯ সালে 'বিরস সংলাপ', ১৯৮২ সালে 'হাওয়া তোমার কি দুঃসাহস', ১৯৮৫ সালে 'দুঃস্বপ্ন থেকে দুঃস্বপ্নে', ১৯৯৭ সালে 'এখনও সময় আছে', ২০০০ সালে 'আর কিসের অপেক্ষা', ২০০৪ সালে 'রাজকাহিনী', ২০০৭ সালে 'আবুল হোসেনর ব্যঙ্গ কবিতা' ও গদ্যের বই 'দুঃস্বপ্নের কাল', ২০০৮ সালে 'প্রেমের কবিতা' ও 'কালের খাতায়', ২০০৯ সালে গদ্য 'স্বপ্ন ভঙ্গের পালা' বইগুলি প্রকাশিত হয়।<ref name="gunijan1"/> তাঁর অনুবাদ করা কবিতাগুলি হচ্ছে- 'ইকবালের কবিতা', 'আমার জন্মভূমি', 'অন্য ক্ষেতের ফসল'। ২০০০ সালে তিনি 'আমার এই ছোট ভূবন', ২০০৫ সালে 'আর এক ভুবন' নামে দুটি স্মৃতিকথামূলক গ্রন্থ লিখেন। তাঁর অনুবাদ করা উপন্যাস হচ্ছে 'অরণ্যের ডাক'। 'পার্বত্যের পথে' নামক ভ্রমণ কাহিনীও লিখেছেন তিনি।
* ১৯৬৯ - বিরস সংলাপ
* ১৯৮২ - হাওয়া তোমার কি দুঃসাহস
* ১৯৮৫ - দুঃস্বপ্ন থেকে দুঃস্বপ্নে
* ১৯৯৭ - এখনও সময় আছে
* ২০০০ - আর কিসের অপেক্ষা
* ২০০৪ - রাজকাহিনী
 
এরপর ১৯৬৯ সালে 'বিরস সংলাপ', ১৯৮২ সালে 'হাওয়া তোমার কি দুঃসাহস', ১৯৮৫ সালে 'দুঃস্বপ্ন থেকে দুঃস্বপ্নে', ১৯৯৭ সালে 'এখনও সময় আছে', ২০০০ সালে 'আর কিসের অপেক্ষা', ২০০৪ সালে 'রাজকাহিনী', ২০০৭ সালে 'আবুল হোসেনর ব্যঙ্গ কবিতা' ও গদ্যের বই 'দুঃস্বপ্নের কাল', ২০০৮ সালে 'প্রেমের কবিতা' ও 'কালের খাতায়', ২০০৯ সালে গদ্য 'স্বপ্ন ভঙ্গের পালা' বইগুলি প্রকাশিত হয়।<ref name="gunijan1"/> তাঁর অনুবাদ করা কবিতাগুলি হচ্ছে- 'ইকবালের কবিতা', 'আমার জন্মভূমি', 'অন্য ক্ষেতের ফসল'। ২০০০ সালে তিনি 'আমার এই ছোট ভূবন', ২০০৫ সালে 'আর এক ভুবন' নামে দুটি স্মৃতিকথামূলক গ্রন্থ লিখেন। তাঁর অনুবাদ করা উপন্যাস হচ্ছে 'অরণ্যের ডাক'। 'পার্বত্যের পথে' নামক ভ্রমণ কাহিনীও লিখেছেন তিনি।
 
এছাড়াও তাঁর আরও অনেক বই প্রকাশিত হয়েছে।
 
== পুরস্কার ও সম্মাননা ==
সাহিত্যে অবদান রাখার জন্য তিনি ১৯৬৩ সালে [[বাংলা একাডেমি পুরস্কার|বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরষ্কারপুরস্কার]], ১৯৮০ সালে [[একুশে পদক]] পান।<ref name="prothom-alo1"/><ref>{{cite web|url=http://www.samakal.net/2014/06/30/69511 |title=চলে গেলেন কবি আবুল হোসেন &#124; প্রথম পাতা &#124; Samakal Online Version |publisher=Samakal.net |date=২৯ জুন ২০১৪ |accessdate=২৯ জুন ২০১৪}}</ref> এছাড়া তিনি জাতীয় কবিতা পুরষ্কার নাসিরুদ্দীন স্বর্ণপদক, পদাবলী পুরস্কার, কাজী মাহবুবুল্লাহ পুরস্কার ও স্বর্ণপদক, আবুল হাসানাৎ সাহিত্য পুরস্কার, জনবার্তা স্বর্ণপদক, বঙ্গীয় সাহিত্য পরিষদ পুরস্কার, জনকন্ঠ গুণীজন সম্মাননা ও জাতীয় জাদুঘর কর্তৃক সংবর্ধনাসহ বিভিন্ন পুরষ্কার ও সম্মাননা পেয়েছেন।<ref name="gunijan1"/>
 
== মৃত্যু ==