"বিমান চালনা" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
 
===বাতাসের চাইতে হালকা===
আধুনিক এভিয়েশন এর শুরু হয় নভেম্বর ২১,১৭৮৩ সালে মন্টগলফায়ার ভ্রাতৃদ্বয়ের অলঙ্কৃত হট এয়ার বেলুন এর মাধ্যমে যা ছিল মানুষের তৈরি বিশ্বের প্রথম উন্মুক্ত বাতাসের চাইতে হালকা উড়োযান। কিন্তু বেলুনগুলি বাতাস প্রবাহের দিক অনুযায়ী ভ্রমণে অসমর্থ ছিল। এরপর খুব শীঘ্রই বেলুনগুলি নিয়ন্ত্রিত এয়ারশিপের মর্যাদা পায়। জিন পিয়েরে ব্ল্যানচার্ড প্রথম মানুষ নিয়ন্ত্রিত এয়ারশিপ উড্ডয়ন করেন ১৭৮৪ সালে যা ১৭৮৫ সালে একবার ইংলিশ চ্যানেল অতিক্রম করে।
 
দৃঢ়(rigid) এয়ারশিপ সমূহ মানুষ এবং মালামাল বহনের উপযোগী প্রথম এয়ারক্র্যাফট হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করে। এই ধরণের এয়ারক্র্যাফটের মধ্যে বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে জার্মানি কোম্পানি জেপেলিন (Zeppelin) এর উদ্ভাবিত এয়ারক্র্যাফটসমুহ।
 
এর মধ্যে সফলভাবে পরিচিতি পেয়েছে গ্রাফ জেপেলিন ,যা ১৯২৯ সালের অগাস্ট মাসে পুরো বিশ্ব জুড়ে উড্ডয়ন করেছিল এক মিলিয়ন মাইল। কয়েকশত মাইল উড্ডয়নকারি এয়ারপ্লেন এর উপর একটা সময় ধরে দখলদারিত্ত চালায় জেপেলিন; তার উন্নত এয়ারপ্লেন ডিজাইনের মাধ্যমে। এয়ারশিপের এই স্বর্ণযুগের শেষ হয় ১৯৩৭ সালের ৬ই মে, যখন হাইজেনবার্গে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ৩৬জন মানুষ মারা পড়ে। আর এই ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের পিছনে দায়ি করা হয় এয়ারক্র্যাফটে হিলিয়ামের পরিবর্তে ব্যাবহৃত হাইড্রজেন গ্যাসকে। কোম্পানির নিজস্ব তদন্তের মাধ্যমে পড়ে অবগত হওয়া যায় যে, এয়ারক্র্যাফট নির্মাণের লক্ষে ফ্রেমের পদার্থ রক্ষারতে যে কভার ব্যাবহার করা হয়েছিল তা ছিল ভীষণ দহনযোগ্য এবং স্থির বিদ্যুৎ গমনকারী। এর পরবর্তীতে তারা এইরকম ভয়াবহ অগ্নিকান্ড নিবারণে কভার কোটিং পরিবর্তন করলেও, এয়ারশিপ সমূহ কিছু নির্দিষ্ট কাজের ক্ষেত্রেই প্রচলিত ছিল।
 
[[বিষয়শ্রেণী:এভিয়েশন]]
৫০টি

সম্পাদনা