"বিমান চালনা" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
(বিষয়শ্রেণী:এভিয়েশন যোগ হটক্যাটের মাধ্যমে)
===সূচনা===
সভ্যতার সূচনা থেকে মানুষ আকাশে উড়তে পারে এমন অনেক কিছু আবিষ্কারের নেশায় মত্ত থেকেছে।প্রথম দিকে এইসব আবিষ্কার ছিল পাথর কিংবা পালক নির্মিত, যেমনঃ অস্ট্রেলিয়ার বুমেরাং,আকাশ লন্ঠন (the hot air Kongming lantern), ঘুড়ি প্রভৃতি। ইকারাস এবং জামশিদ হচ্ছে সেইসব মনুষ্য কিংবদন্তী যারা আকাশে উড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে গিয়ে ভূলুণ্ঠিত হয়ে প্রাণ হারান। তৎকালীন সময়ে কম দূরত্ব অতিক্রম্য বেশ কিছু উড়ন্ত মাধ্যম সাফল্য লাভ করেছিল, তন্মদ্ধে ৪২৮-৩৪৭ খ্রিস্টপূর্বে টারেন্টাম (বর্তমান টরেন্টো) এর শ্রেষ্ঠ দার্শনিক আরকিটাসের স্বয়ংক্রিয় উড়োযান , ৮১০- ৮৮৭ খ্রিস্টাব্দে আব্বাস ইবনে ফিরনাসের পাখা সমৃদ্ধ উড়োযান,১১তম শতাব্দীতে আল্মার এর গ্লিডিং ফ্লাইট,কিংবা ১৬৮৫-১৭২৪ এর মধ্যে পর্তুগিজ ধর্মপ্রচারক বারতলমিউ দে গুসমাও এর বাতাসের চাইতে হাল্কা এয়ারশিপ ডিজাইন উল্লেখযোগ্য।
 
===বাতাসের চাইতে হালকা===
আধুনিক এভিয়েশন এর শুরু হয় নভেম্বর ২১,১৭৮৩ সালে মন্টগলফায়ার ভ্রাতৃদ্বয়ের অলঙ্কৃত হট এয়ার বেলুন এর মাধ্যমে যা ছিল মানুষের তৈরি বিশ্বের প্রথম উন্মুক্ত বাতাসের চাইতে হালকা উড়োযান। কিন্তু বেলুনগুলি বাতাস প্রবাহের দিক অনুযায়ী ভ্রমণে অসমর্থ ছিল।
 
[[বিষয়শ্রেণী:এভিয়েশন]]
৫০টি

সম্পাদনা