"দারাসবাড়ি মসজিদ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

টেমপ্লেট যুক্ত করা হল
(বট কসমেটিক পরিবর্তন করছে; কোনো সমস্যা?)
(টেমপ্লেট যুক্ত করা হল)
{{এশিয়ার মসজিদ}}
'''দারাসবাড়ি মসজিদ''' [[বাংলাদেশ|বাংলাদেশের]] একটি ঐতিহাসিক স্থাপত্য যার অবস্থান [[চাঁপাইনবাবগঞ্জ]] জেলার [[ছোট সোনা মসজিদ|ছোট সোনা মসজিদের]] সন্নিকটে। মসজিদটির অবস্থান ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে। [[সোনামসজিদ স্থল বন্দর]] থেকে [[মহানন্দা]] নদীর পাড় ঘেঁষে প্রায় ৩ কিলোমিটার দূরে বাংলাদেশ রাইফেলস-এর [[সীমান্ত তল্লাশী ঘাঁটি]] ; এই ঘাটিঁর অদূরে অবস্থিত [[দখল দরওয়াজা]]। দখল দরওয়াজা থেকে প্রায় এক কি্লোমিটার হেঁটে আমবাগানের মধ্য দিয়ে অগ্রসর হয়ে একটি দিঘী পার হয়ে দক্ষিণ পশ্চিমে ঘোষপুর মৌজায় দারাসবাড়ি মসজিদ ও দারাসবাড়ি মাদ্রাসা অবস্থিত। ১৪৫০ থেকে ১৫৬৫ খ্রিস্টাব্দ অবধি [[গৌড়]] ছিল তৎকালীন বাংলার রাজধানী ; এ সময়ই এ মসজিদটি নির্মিত হয়েছিল। অনুমিত হয়েছে যে ১৪৭৯ খ্রিস্টাব্দে [[শামসুদ্দিন আবুল মুজাফফর ইউসুফ শাহ]]-এর আমলে বড় আকারের এ মসজিদটি নির্মাণ করা হয়েছিল। আকারে এটি ছোট সোনা মসজিদের চেয়েও বড়। দীর্ঘদিন মাটিচাপা পড়েছিল এ মসজিদ। সত্তর দশকের প্রথমভাগে খনন করে এটিকে উদ্ধার করা হয়। মসজিদটি দীর্ঘকাল আগে পরিত্যাক্ত হয়েছে, বর্তমানে চারপাশে গাছগাছালির ঘের। পরিচর্যার অভাবে এ মসজিদটি বিলীয়মান। এর সংলগ্ন সমসাময়িক আরেকটি স্থাপনা হহলো [[দারাসবাড়ি মাদ্রাসা]]। দিঘীর এক পারে মসজিদ এবং অন্য পারে মাদ্রাসা অবস্থিত।