"পাকস্থলী" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

কিছু সম্পাদনা
(কিছু সম্পাদনা)
}}
 
'''পাকস্থলী''' ({{lang-en|[[Stomach]]}}) মানব দেহে পরিপাকতন্ত্রের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ যা খাদ্য[[খাদ্যনালী]] পরিপাকের কাজে[[ক্ষুদ্রান্ত|ক্ষুদ্রান্তের]] নিয়োজিত।মধ্যে এরঅবস্থিত। দৈর্ঘ্য প্রায় ২৫ সে.মি.। ইহাএটি উদর গহবরের বাম পাশে উপর দিকে থাকে। খাদ্য পরিপাক প্রক্রিয়া প্রধানত পাকস্থলীতে শুরু হয়। বিশেষ করে আমিষ জাতীয় খাদ্যের পরিপাকে পাকস্থলীর ভূমিকা প্রধান। সাধারণত: [[শর্করা]] এবং [[স্নেহ]] জাতীয় খাদ্য পাকস্থলীতে পরিপাক হয় না।
 
== পাকস্থলীর গঠন ==
অন্ননালিখাদ্যনালী ও ক্ষুদ্রান্ত্রের মাঝখানে পাকস্থলী একটি থলির মতো অঙ্গ। এর দৈর্ঘ্য প্রায় ২৫ সে.মি.। এর প্রাচীর পুরু ও পেশিবহুল। পাকস্থলীর প্রাচীরে অসংখ্য গ্যাস্ট্রিকগ্রন্থি থাকে। পেরিস্টালসিস অর্থাৎ পাকস্থলীর পেশি সংকোচন ও প্রসারণের মাধ্যমে খাদ্যবস্তুকে পিষে মন্ডে পরিণত করে। গ্যাস্ট্রিকগ্রন্থি থেকে নিঃসৃত রস খাদ্য পরিপাকে সহায়তা করে। এখানে
 
== পাকস্থলীতে পরিপাক ==
পাকস্থলীতে খাদ্য আসার পর অন্তঃপ্রাচীরের গ্যাস্ট্রিকগ্রন্থি থেকে গ্যাস্ট্রিক রস নিঃসৃত হয়। এই রসে প্রধান যে উপাদানগুলো থাকে তা হলো:
* '''হাইড্রোক্লোরিক এসিড'''([[Hydrochloric acid)]]: হাইড্রোক্লোরিক এসিড খাদ্যের মধ্যে কোনো অনিষ্টকারী ব্যাকটেরিয়া থাকলে তা মেরে ফেলে। নিষ্ক্রিয় পেপসিনোজেনকে সক্রিয় পেপসিনে পরিণত করে এবং পাকস্থলীতে পেপসিনের সুষ্ঠু কাজের জন্য আম্লীয় পরিবেশ সৃষ্টি করে।
* '''পেপসিন'''([[Pepsin]]): পেপসিন এক ধরণের [[এনজাইম]] যা আমিষকে ভেঙ্গে দুই বা ততোধিক অ্যামাইনো এসিড দ্বারা তৈরি যৌগ গঠন করে যা পেপটাইড নামে পরিচিত।
পাকস্থলীতে খাদ্যদ্রব্য পৌঁছানো মাত্র উপরোক্ত রসগুলো নিঃসৃত হয়। পাকস্থলীর অনবরত সংকোচন ও প্রসারণ এবং এনজাইমের ক্রিয়ার ফলে খাদ্যমিশ্র মন্ডে পরিণত হয়। একে [[পাকমণ্ড]]([[Chyme]]) বলে। এই মন্ড অনেকটা স্যুপের মতো এবং কপাটিকা ভেদ করে ক্ষুদ্রান্ত্রে প্রবেশ করে।
 
শর্করা এবং স্নেহ জাতীয় খাদ্য সাধারণত পাকস্থলীতে পরিপাক হয় না। কারণ, এদের পরিপাকের জন্য গ্যাস্ট্রিক রসে নির্দিষ্ট কোনো এনজাইম থাকে না।
 
 
--[[User:Abhishek Sarkar|Abhishek Sarkar]] ([[User talk:Abhishek Sarkar|আলাপ]]) ০৮:৫৩, ১৬ মার্চ ২০১৪ (ইউটিসি)
== আরো দেখুন ==
{{পরিপাক তন্ত্র}}