প্রধান মেনু খুলুন

পরিবর্তনসমূহ

 
বীর হাম্বিরের পুত্র রঘুনাথ সিংহ প্রথম ক্ষত্রিয় উপাধি ব্যবহারকারী মল্ল রাজা। তাঁর সময় থেকে বিষ্ণুপুরে স্থাপত্যশিল্পের বিকাশ ঘটে। এই সময় বিষ্ণুপুরে অনেক বিশালাকৃতি মন্দির নির্মিত হয়। মল্ল রাজারা হিন্দু শিল্পকলা ও ধর্মের পৃষ্ঠপোষক ছিলেন। তবে এই সময় বিষ্ণুপুরের আর্থিক অবস্থারও অবনতি ঘটে। বীর সিংহ তাঁর আঠারো পুত্রকে জীবন্ত হত্যা করেছিলেন। কনিষ্ঠ পুত্র দুর্জনের প্রাণ রক্ষিত হয় পরিচারকদের তৎপরতায়। পরবর্তীকালে মল্ল রাজারা সামন্ত রাজায় পরিণত হয়েছিলেন। তবে [[মুর্শিদাবাদ|মুর্শিদাবাদের]] দরবারে তাঁদের সশরীরে উপস্থিত থাকতে হত না। সেখানে তাঁদের প্রতিনিধি থাকত।<ref name=omalley2/>
 
===মারাঠা আক্রমণ===
[[File:Dalmadal Arnab Dutta 2011.JPG|thumb|left|দলমাদল কামান]]
সপ্তদশ শতাব্দীর শেষভাগে বিষ্ণুপুর রাজ্য একটি সমৃদ্ধ রাজ্যে পরিণত হয়েছিল। এই সমৃদ্ধির যুগ চলেছিল অষ্টাদশ শতাব্দীর প্রথমার্ধ পর্যন্ত। এরপর প্রথমে [[বর্ধমান জমিদারি|বর্ধমানের জমিদারেরা]] ফতেপুর মহলটি দখল করে। তারপর [[বর্গি|মারাঠা বর্গিরা]] বিষ্ণুপুর আক্রমণ করে। ১৭৪২ সালে ভাস্কর রাওয়ের নেতৃত্বে বর্গিরা বিষ্ণুপুর আক্রমণ করলে রাজা গোপাল সিংহের নেতৃত্বে বিষ্ণুপুরের সেনাবাহিনী তাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। এই যুদ্ধ সম্পর্কে বিষ্ণুপুরের একটি জনপ্রিয় কিংবদন্তি হল, রাজ্যবাসীর প্রার্থনায় সাড়া দিয়ে রাজবাড়ির কুলদেবতা [[কৃষ্ণ|মদনমোহন]] নিজে দলমাদল কামান দেগে মারাঠাদের বিতাড়িত করেছিলেন। সম্ভবত, মারাঠারা বিষ্ণুপুরের মূল দুর্গে প্রবেশ করতে ব্যর্থ হন এবং সেই জন্যই ফিরে যান। তবে দুর্গে প্রবেশ করতে না পারলেও মারাঠারা রাজ্যের অরক্ষিত অংশে লুটতরাজ চালিয়েছিল। এরপর বিষ্ণুপুর রাজ পরিবার একাধিক মামলা মোকদ্দমায় জড়িয়ে পড়ে। শেষ পর্যন্ত ১৮০৬ সালে রাজস্ব বাকি থাকার দায়ে বিষ্ণুপুর রাজ্য নিলাম হয়ে যায় এবং বর্ধমানের জমিদারেরা এই রাজ্য কিনে নেন।<ref name=omalley2/>
 
=== পরবর্তীকাল ===