"পৃথিবীর বায়ুমণ্ডল" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট কসমেটিক পরিবর্তন করছে; কোনো সমস্যা?
(বট কসমেটিক পরিবর্তন করছে; কোনো সমস্যা?)
[[Imageচিত্র:Top of Atmosphere.jpg|thumb|right|300px|বায়ুমন্ডলে নীল আলোর তরঙ্গদৈর্ঘ্য বেশি বিক্ষিপ্ত হয় বলে পৃথিবীকে নীল আলো প্রদান করে যা দেখা হয়েছিল মহাশূন্যের অবস্থিত[[আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন|আইএসএস]] থেকে যা {{nowrap|৪০২–৪২৪ কিলোমিটার}}উপরে।.]]
 
[[File:Atmosphere gas proportions (bn).svg|thumb|right|300px|পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলের গঠন পরিমাণ অনুসারে.নিচের পাই চার্টটি সন্ধান পাওয়া গ্যাসসমূহের দ্বারা ০.০৩৮% বায়ুমন্ডল গঠিত তা প্রকাশ করছে।এই পরিমাণ বিভিন্ন বছর থেকে সংগ্রহিত (প্রধানত কার্বন ডাই-অক্সাইড ১৯৮৭ সালে এবং মিথেন ২০০৯ সালে)
এবং কোন একক উৎস নির্দেশ করে না।]]
 
পৃথিবীর চারপাশে ঘিরে থাকা বিভিন্ন গ্যাস মিশ্রিত স্তরকে যা পৃথিবী তার মধ্যাকর্ষণ শক্তি দ্বারা ধরে রাখে তাকে '''পৃথিবীর বায়ুমণ্ডল''' বা আবহমণ্ডল বলে।এই বায়ুমন্ডল সূর্য থেকে আগত [[অতিবেগুনি রশ্মি]] শোষণ করে পৃথিবীতে জীবের অস্তিত্ব রক্ষা করে।এছাড়ও তাপ ধরে রাখার মাধ্যমে ([[গ্রীনহাউজ প্রতিক্রিয়া]]) ভূপৃষ্টকে উওপ্ত করে এবং দিনের তুলনায় রাতের তাপমাত্রা হ্রাস করে।
[[শ্বাস-প্রশ্বাস]] ও [[সালোকসংশ্লেষণ|সালোকসংশ্লেষণের]] জন্য ব্যবহৃত [[বায়ুমন্ডলীয় গ্যাস|বায়ুমন্ডলীয় গ্যাসসমূহের]] প্রদত্ত প্রচলিত নাম [[বায়ু]] বা বাতাস।পরিমাণের দিক থেকে শুষ্ক বাতাসে ৭৮.০৯% [[নাইট্রোজেন]],২০.৯৫% [[অক্সিজেন]],<ref name="NYT-20131003">{{cite news |last=Zimmer |first=Carl |authorlink=Carl Zimmer |title=পৃথিবীর অক্সিজেন: একটি রহস্য যা গ্রহন করার জন্য সহজ |url=http://www.nytimes.com/2013/10/03/science/earths-oxygen-a-mystery-easy-to-take-for-granted.html |date=3 October 2013 |work=[[New York Times]] |accessdate=3 October 2013 }}</ref>০.৯৩% [[আর্গন]],০.০৩৯% [[কার্বন ডাইঅক্সাইড]] এবং সামান্য পরিমাণে অন্যান্য গ্যাস থাকে।বাতাসে এছাড়াও পরিবর্তনশীল পরিমাণ [[জলীয় বাষ্প]] রয়েছে যার গড় প্রায় ১%।বাতাসের পরিমাণ ও বায়ুমন্ডলীয় চাপ বিভিন্ন স্তরে বিভিন্ন রকম হয়,স্থলজ উদ্ভিদ ও স্থলজ প্রাণীর বেঁচে থাকার জন্য উপযুক্ত বাতাস কেবল পৃথিবীর ট্রপোস্ফিয়ার এবং কৃত্রিম বায়ুমণ্ডলসমূহে পাওয়া যাবে।
পৃথিবীর বায়ুমণ্ডল এবং তার প্রক্রিয়া নিয়ে চর্চা করাকে [[বায়ুমণ্ডলীয় বিজ্ঞান]] বা '''অ্যাইরলজি''' বলা হয়।[[লিওন টিইসারিয়েক ডি বর্ট]] ও [[রিচার্ড অ্যাসম্যান]] এই শাস্ত্রের প্রারম্ভিক পথিকৃৎ।<ref>[http://books.google.com/books?id=OlckxY7BA_0C&pg=PA17&lpg=PA17&dq=Assman+stratosphere&source=bl&ots=YN13AEOnkN&sig=zwpdSVh0OW6UUToQoFzETgIudUc&hl=en&ei=H9feTuOkCYiQiAL4qfHPCA&sa=X&oi=book_result&ct=result&resnum=6&sqi=2&ved=0CEwQ6AEwBQ#v=onepage&q=Assman%20stratosphere&f=false] সৌরমণ্ডলের
মধ্যে অতিবেগুনি রশ্মির বিকিরণ By Manuel Vázquez, Arnold Hanslmeier</ref>
== বায়ুমন্ডলের সংযুক্তি ==
 
[[Fileচিত্র:Atmospheric Water Vapor Mean.2005.030.jpg|thumb|right|বায়ুমণ্ডলীয় জলীয় বাষ্পের গড়]]
 
[[বায়ু]] বা বাতাস প্রধানত [[নাইট্রোজেন]],[[অক্সিজেন]] ও [[আর্গন]] দ্বারা গঠিত এবং এই গ্যাসসমূহ একত্রে বায়ুমন্ডলের অন্যান্য প্রধান গ্যাসসমূহ গঠন করে।জলীয় বাষ্প ভরের দিক থেকে বায়ুমন্ডলের প্রায় ০.২৫%।জলীয় বাষ্পের ঘনত্বের উল্লেখযোগ্যভাবে তারতম্য ঘটে যেমন বায়ুমন্ডলের শীতলতর অংশে প্রায় ১০ [[পিপিএমভি]] (প্রতি মিলিয়নে কণা) হয় যা ৫% বেড়ে যায় উষ্ণ অংশে এবং অন্যান্য বায়ুমণ্ডলীয় গ্যাসের ঘনত্ব সাধারণত কোনো জলীয় বাষ্প ছাড়া শুষ্ক বায়ু জন্য প্রদান করা হয়।<ref name="WallaceHobbs">Wallace, John M. and Peter V. Hobbs.বায়ুমন্ডলীয় বিজ্ঞান; ''একটি প্রাথমিক জরিপ''.Elsevier. দ্বিতীয় সংস্করণ, ২০০৬. ISBN 13:978-0-12-732951-2. Chapter 1</ref> অবশিষ্ট গ্যাসসমূহকে প্রায়ই ট্রেস গ্যাস উল্লেখ করা হয়,<ref>{{cite web|url=http://www.ace.mmu.ac.uk/eae/Atmosphere/Older/Trace_Gases.html|title=Trace Gases|publisher=Ace.mmu.ac.uk|accessdate=2010-10-16|archiveurl=http://web.archive.org/web/20101009044345/http://www.ace.mmu.ac.uk/eae/atmosphere/older/Trace_Gases.html|archivedate=9 October 2010 <!--DASHBot-->|deadurl=no}}</ref> যার মধ্যে গ্রিনহাউজ গ্যাসসমূহ আছে যেমন কার্বন ডাইঅক্সাইড,[[মিথেন]],[[নাইট্রাস অক্সাইড]], এবং [[ওজোন]]।পরিস্রুৎ বাতাসে অন্যান্য অনেক রাসায়নিক যৌগ যা সামান্য পরিমাণে অন্তর্ভুক্ত থাকে।প্রাকৃতিক উৎস থেকে সৃষ্ট অনেক বস্তু স্থানভেদে এবং ঋতুভেদে পরিবর্তনশীল ক্ষুদ্র আকারে উপস্থিত থাকতে পারে যেমন অপরিশোধিত বাতাসের নমুনায় [[এরোসল|এরোসলের]] উপস্থিতি।এছাড়াও খনিজ [[কনা]],জৈব উপাদান,[[পরাগ রেণু]] ও গুটিবীজ,সাগরের স্প্রে এবং [[আগ্নেয়গিরি|আগ্নেয়গিরির]] [[ছাই]] উপস্থিত থাকে।বিভিন্ন শিল্প দূষকসমূহ যেমন [[ক্লোরিন]] ([[মৌল]] বা [[যৌগ]] আকারে),[[ফ্লোরিন]] যৌগ এবং পারদ মৌল বাষ্প প্রভৃতি গ্যাসীয় অথবা এরোসল রূপে বাতাসে উপস্থিত থাকতে পারে।সালফার যৌগ যেমন [[হাইড্রোজেন সালফাইড]] এবং [[সালফার ডাইঅক্সাইড]] (SO<sub>2</sub>) প্রাকৃতিক উৎস থেকে অথবা শিল্প কলকারখানার দূষিত বাতাস থেকে আহরিত হতে পারে।
|}
 
== বায়ুমণ্ডলের গঠন ==
 
=== প্রধান স্তরসমূহ ===
সাধারণত বায়ুমন্ডলের উচ্চতা বৃদ্ধির সাথে সাথে বায়ু চাপ এবং ঘনত্ব হ্রাস পায়।কিন্তু,তাপমাত্রার সঙ্গে উচ্চতায় আরো জটিল সমীকরণ আছে এবং কিছু অঞ্চলে তাপমাত্রা তুলনামূলকভাবে স্থির বা এমনকি বৃদ্ধি পেতে পারে উচ্চতা বাড়ার সাথে সাথে।তাপমাত্রা ও উচ্চতার সাধারণ পরিলেখ ধ্রুবক এবং [[বেলুন সাউন্ডিং]] দ্বারা চেনা যায়।তাপমাত্রার এই আচরণ দ্বারা বায়ুমন্ডলীয় স্তর মধ্যে পার্থক্য নির্ণয় করা যায়।এই ভাবে,পৃথিবীর বায়ুমণ্ডল পাঁচটি প্রধান স্তরে (একে বায়ুমণ্ডলীয় স্তরবিন্যাস বলা হয়) ভাগ করা যায়।সর্বোচ্চ থেকে সর্বনিম্ন পর্যন্ত এই স্তরগুলো হচ্ছেঃ
* এক্সোস্ফিয়ারঃ >৭০০ কিলোমিটার (>৪৪০ মাইল)
* থার্মোস্ফিয়ারঃ ৮০ থেকে ৭০০ কিলোমিটার (৫০ থেকে ৪৪০ মাইল)<ref name="থার্মোস্ফিয়ার">{{cite web |author=Randy Russell |title= থার্মোস্ফিয়ার |সাল=২০০৮|url= http://www.windows2universe.org/earth/Atmosphere/thermosphere.html|accessdate=2013-10-18}}</ref>
* মেসোস্ফিয়ারঃ ৫০ থেকে ৮০ কিলোমিটার (৩১ থেকে ৫০ মাইল)
* স্ট্র্যাটোস্ফিয়ারঃ ১২ থেকে ৫০ কিলোমিটার (৭ থেকে ৩১ মাইল)
* ট্রপোস্ফিয়ারঃ ০ থেকে ১২ কিলোমিটার (০ থেকে ৭ মাইল)<ref>{{cite web|url=http://www-das.uwyo.edu/~geerts/cwx/notes/chap01/tropo.html|title=ট্রপস্ফিয়ারের উচ্চতা|publisher=Das.uwyo.edu|date=|accessdate=2012-04-18}}</ref>
 
==== এক্সোস্ফিয়ার ====
[[এক্সোস্ফিয়ার]] হচ্ছে পৃথিবীর বায়ুমন্ডলের সবচেয়ে দূরবর্তী স্তর,[[এক্সোবেস]] থেকে শুরু হয়ে ৭০০ কিলোমিটার উপরে বিস্তৃত এবং সমুদ্রতল হতে প্রায় [[চাঁদ|চাঁদের]] দূরত্বের অর্ধেক পথ।এটি প্রধানত হাইড্রোজেন, [[হিলিয়াম]] এবং কিছু ভারী [[অনু|অনুসমূহ]] যেমন নাইট্রোজেন, অক্সিজেন এবং কার্বন ডাইঅক্সাইড দিয়ে গঠিত।এই অণু ও পরমাণুসমূহ পরস্পর থেকে এত দূরে থাকে যে একে অপরের সঙ্গে সংঘর্ষে লিপ্ত হয় না ফলে বায়ুমন্ডল আর গ্যাস হিসাবে আচরণ করে না।এই সকল মুক্ত ভ্রমনরত কণাসমূহ নিক্ষিপ্ত বস্তুর নির্দিষ্ট আবক্র পথ অনুসরণ করে।
 
==== থার্মোস্ফিয়ার ====
[[থার্মোস্ফিয়ার]] প্রায় ৮০ কিলোমিটার (৫০ মাইল;২৬০.০০০ ফুট) উপরে অবস্থিত এবং [[মেসোপজ]] থেকে [[থার্মোপজ]] পর্যন্ত এই স্তরের তাপমাত্রা উচ্চতা বৃদ্ধি সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে যা এক্সোস্ফিয়ারে প্রবেশ করলে উচ্চতার সঙ্গে সঙ্গে [[ধ্রুবক]] হয়।যেহেতু থার্মোপজ এক্সোস্ফিয়ার নীচে অবস্থিত তাই একে এক্সোবেসও বলা হয়।এর গড় উচ্চতা পৃথিবী থেকে প্রায় ৭০০ কিলোমিটার কিন্তু প্রকৃতপক্ষে সৌর ক্রিয়া ও ব্যাপ্তি সঙ্গে পরিবর্তিত হয় ৫০০ থেকে ১০০০ (৩১০-৬২০ মাইল; ১৬০০০০০-৩৩০০০০০ ফুট) কিলোমিটার পর্যন্ত।<ref name="থার্মোস্ফিয়ার">{{cite web |author=Randy Russell |title= থার্মোস্ফিয়ার |সাল=2008|url= http://www.windows2universe.org/earth/Atmosphere/thermosphere.html|accessdate=2013-10-18}}</ref> এই স্তরের তাপমাত্রা সর্বোচ্চ ১,৫০০° [[সেলসিয়াস]] (২,৭০০° ফাঃ) পর্যন্ত হয়। [[আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন]] এর কক্ষপথ এই স্তরের ৩২০ থেকে ৩৮০ কিলোমিটারের (২০০ এবং ২৪০ মাইল) মধ্যে অবস্থিত। [[মেরুজ্যোতি]] যা উত্তর গোলার্ধে অরোরা বোরিয়ালিস (aurora borealis) এবং দক্ষিণ গোলার্ধে অরোরা অস্ট্রালিস (aurora australis) নামে পরিচিত তা মাঝেমধ্যে থার্মোস্ফিয়ার এবং এক্সোস্ফিয়ার নীচের অংশ দেখা যায়।
 
==== মেসোস্ফিয়ার ====
[[মেসোস্ফিয়ার]] সমুদ্রপৃষ্ট হতে ৫০ কিলোমিটার (১৬০,০০০ ফিট ৩১ মাইল) উপরে [[স্ট্র্যাটোপজ]] থেকে শুরু হয়ে মেসোপজ পর্যন্ত প্রায় ৮০ থেকে ৮৫ (৫০-৫৩ মাইল; ২৬০০০০-২৮০০০০ ফুট) কিলোমিটার এলাকা জুড়ে বিস্তৃত।উল্কাপিন্ড সাধারণত ৭৬ কিমি থেকে ১০০ কিমি এর মধ্যে উচ্চতায় মেসোস্ফিয়ার দেখা যায়।তাপমাত্রা মেসোস্ফিয়ারে উচ্চতা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে হ্রাস যায়।মেসোস্ফিয়ারের উপরে অবস্থিত মেসোপজে তাপমাত্রা এত হ্রাস পায় যে এটিই পৃথিবীর সবচেয়ে শীতলতম স্থান এবং ঐ স্থানের গড় তাপমাত্রা প্রায় -৮৫° সেলসিয়াস (-১২০° ফাঃ, ১৯০ [[কেলভিন]])।<ref>{{Cite journal|last=States|first=Robert J.|last2=Gardner|first2=Chester S.|title=
মেসোপজ অঞ্চলের তাপীয় গঠন(৮০–১০৫ কিলোমিটার) at 40°N Latitude. Part I: Seasonal Variations|journal=
</ref> এই উচ্চতায় তাপমাত্রা -১০০° সেলসিয়াস (-১৫০° ফাঃ; ১৭০ কেলভিন) পর্যন্ত হ্রাস পেতে পারে।<ref>{{cite web|author=Joe Buchdahl|url=http://www.ace.mmu.ac.uk/eae/Atmosphere/Older/Mesosphere.html|title=Atmosphere, Climate & Environment Information Programme|publisher=Ace.mmu.ac.uk|date=|accessdate=2012-04-18}}</ref> এই স্তরের ঠান্ডা তাপমাত্রার কারনে জলীয় বাষ্প জমাট বাঁধে।
 
==== স্ট্র্যাটোস্ফিয়ার ====
[[স্ট্র্যাটোস্ফিয়ার]] অঞ্চল পৃথিবী থেকে ১২ কিলোমিটার (৭.৫ মাইল, ৩৯,০০০ ফুট) উপরে [[ট্রপোপজ]] হতে শুরু হয়ে স্ট্র্যাটোপজ পর্যন্ত ৫০ থেকে ৫৫ (৩১-৩৪ মাইল; ১৬০,০০০- ১৮০,০০০ ফুট) কিলোমিটার এলাকা জুড়ে বিস্তৃত।স্ট্রাটস্ফিয়ারে শীর্ষে বায়ুমন্ডলীয় চাপ সমুদ্র পৃষ্টের ১০০০ ভাগের এক।ওজোন স্তর দ্বারা অতিবেগুনি রশ্মির বিকিরণ শোষণ বৃদ্ধি কারণে উচ্চতার সঙ্গে সঙ্গে এই স্তরের তাপমাত্রা বাড়ে।ট্রপোপজে তাপমাত্রা -৬০° সেলসিয়াস হতে পারে (-৭৬° ফাঃ; ২১০ কেলভিন),স্ট্রাটস্ফিয়ারে উপরে অনেক গরম।<ref name="স্ট্র্যাটোস্ফিয়ার">{{cite web |author=বায়ুমন্ডলীয় বিজ্ঞান পত্রিকা |title=স্ট্র্যাটোস্ফিয়ার |year=1993 |url= http://www.webref.org/chemistry/s/stratopause.htm|accessdate=2013-10-18}}</ref>
 
==== ট্রপোস্ফিয়ার ====
ট্রপোস্ফিয়ার ভূপৃষ্ঠ থেকে শুরু হয় এবং প্রায় ১২ কিলোমিটার উচ্চতায় ট্রপোপজ পর্যন্ত বিস্তৃত,যদিও এই উচ্চতার তারতম্য ঘটে আবহাওয়ার কারণে যা মেরুতে প্রায় ৯ কিলোমিটার (৩০,০০০ ফুট) এবং [[বিষুবরেখা|বিষুবরেখায়]] প্রায় ১৭ কিলোমিটার (৫৬,০০০ ফুট)।<ref>{{cite web|url=http://www-das.uwyo.edu/~geerts/cwx/notes/chap01/tropo.html|title=ট্রপোপজের উচ্চতা|publisher=Das.uwyo.edu|date=|accessdate=2012-04-18}}</ref> ট্রপোস্ফিয়ার সবচেয়ে বেশি উওপ্ত হয় ভূপৃষ্ঠ কর্তৃক বিকিরিত শক্তি দ্বারা,তাই সাধারণত ট্রপোস্ফিয়ার সর্বনিম্ন অংশ উষ্ণ এবং উচ্চতা বৃদ্ধির সঙ্গে তাপমাত্রা হ্রাস পায়।মূলত সমস্ত আবহাওয়া সংশ্লিষ্ট যেমন মেঘ ইত্যাদিসহ ট্রপোস্ফিয়ার বায়ুমণ্ডলের ভরের প্রায় ৮০% ধারণ করে।<ref>মেকগ্রাও হিলের সংক্ষিপ্ত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি এনসাইক্লোপিডিয়া. (1984). ট্রপোস্ফিয়ার. "এটা সম্পূর্ণ বায়ুমণ্ডলের ভরের প্রায় পাঁচ ভাগের চার ধারণ করে."</ref> ট্রপোপজ হচ্ছে ট্রপস্ফিয়ার ও স্ট্রাটস্ফিয়ার মধ্যে সীমারেখা সরূপ।
 
[[Fileচিত্র:Endeavour silhouette STS-130.jpg|thumb|একটি স্পেস শাটল মহাকাশযান স্ট্রাটস্ফিয়ার এবং মেসোস্ফিয়ার অতিক্রম করতে দেখা যাচ্ছে. কমলা স্তরটি হচ্ছে [[ট্রপোস্ফিয়ার]], সাদাটে স্তরটি হচ্ছে [[স্ট্র্যাটোস্ফিয়ার]] এবং তারপর নীল স্তরটি হচ্ছে [[মেসোস্ফিয়ার]].<ref>{{cite web|title=ISS022-E-062672 caption|url=http://spaceflight.nasa.gov/gallery/images/shuttle/sts-130/html/iss022e062672.html|publisher=NASA|accessdate=21 September 2012}}</ref>]]
 
== তথ্যসূত্র ==
{{reflist|2}}
 
২,০০,১০৩টি

সম্পাদনা