"ডেভিড অ্যাটনবারা" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট কসমেটিক পরিবর্তন করছে; কোনো সমস্যা?
(বট কসমেটিক পরিবর্তন করছে; কোনো সমস্যা?)
'''স্যার ডেভিড অ্যাটেনব্রো''' (ইংরেজি ভাষায়: Sir David Attenborough, পুরো নাম: ডেভিড ফ্রেডরিক অ্যাটেনব্রো) (জন্ম: [[৮ই মে]], [[১৯২৬]], [[লন্ডন]], [[ইংল্যান্ড]]) প্রখ্যাত ব্রিটিশ সম্প্রচারক, লেখক এবং প্রামাণ্য চিত্র নির্মাতা। টেলিভিশনে নতুন ধারার প্রামাণ্য চিত্র নির্মাণের মাধ্যমে প্রকৃতি, জীবজগৎ, সংস্কৃতি, সভ্যতা ও বিজ্ঞানের নানা বিষয় সাধারণ মানুষের কাছে তুলে ধরার জন্য তিনি বিখ্যাত। তার প্রধান আগ্রহের বিষয় প্রাকৃতিক ইতিহাস। তিনি বিখ্যাত চলচ্চিত্র প্রযোজক ও অভিনেতা [[রিচার্ড অ্যাটেনব্রো|স্যার রিচার্ড অ্যাটেনব্রোর]] ভাই।
 
অ্যাটেনব্রো পড়াশোনা করেছেন কেমব্রিজের ক্লেয়ার কলেজে। ১৯৪৭ সালে সেখান থেকেই এম.এ. ডিগ্রি অর্জন করার পর ১৯৪৯ সালে একটি প্রকাশনা সংস্থায় চাকরি শুরু করেন। ১৯৫২ সালে [[ব্রিটিশ ব্রডক্যাস্টিং কর্পোরেশন]] তথা বিবিসি-র একটি প্রশিক্ষণ প্রোগ্রামে অংশগ্রহনের পর তিনি বিবিসি-র সাথে যুক্ত হয়ে যান, তার এই জীবন শুরু হয় টেলিভিশন প্রযোজক হিসেবে। সরীসৃপ প্রাণী সংরক্ষণবিদ ও তত্বাবধায়ক জ্যাক লেস্টারের সাথে মিলে ১৯৫৪ সালে তিনি ''জু কোয়েস্ট'' (Zoo Quest) নামে একটি টিভি অনুষ্ঠানের ধারণা নিয়ে আসেন। এই অনুষ্ঠানে বনে এবং চিড়িয়াখানায় প্রাণীদের সরাসরি দেখানো হতো। এর মাধ্যমে বিবিসি-র কর্মপরিসর অনেক বেড়ে যায়।
 
১৯৬৫ সালে বিবিসি-র দ্বিতীয় টিভি চ্যানেল বিবিসি-২ প্রতিষ্ঠার পর অ্যাটেনব্রোকে চ্যানেলটির নিয়ন্ত্রকের দায়িত্ব দেয়া হয়। দায়িত্ব নিয়ে তিনি বেশ কিছু অভূতপূর্ব এবং আলোড়ন সৃষ্টিকারী টিভি অনুষ্ঠানের প্রযোজনা এবং পৃষ্ঠপোষকতা করেন যার মধ্যে রয়েছে কল্পকাহিনীভিত্তিক ''দ্য ফরসাইট সেগা'', জ্যাকব ব্রনোফস্কির ''দি অ্যাসেন্ট অফ ম্যান'' এবং কেনেথ ক্লার্কের ''সিভিলাইজেশন''।
১৯৬৮ থেকে ১৯৭২ সাল পর্যন্ত তিনি সমগ্র বিবিসি-র টেলিভিশন প্রোগ্রামিং বিভাগের পরিচালক ছিলেন। কিন্তু বিবিসি-র সাধারণ পরিচালক পদের জন্য তাকে আহ্বান জানানোর সম্ভাবনা তৈরি হলে তিনি পদত্যাগ করেন, কারণ তার মূল আগ্রহ সরাসরি অনুষ্ঠান নির্মাণে, টেবিল-চেয়ারে বসে প্রশাসনিক কাজ করায় নয়।<ref>[[:en:Life on Air: David Attenborough's 50 Years in Television|Life on Air: David Attenborough's 50 Years in Television]], অ্যাটেনব্রোর জীবন সম্পর্কে একটি বিবিসি প্রামাণ্য চিত্র</ref> এরপর তিনি স্বাধীনভাবে ধারাবাহিক অনুষ্ঠান নির্মাণ শুরু করেন। প্রথমদিকে তিনি নৃবিজ্ঞান এবং প্রাকৃতিক ইতিহাসের উপর অনেকগুলো বহুল প্রশংসিত টিভি অনুষ্ঠানের রচনা, এবং ধারাবিবরণী করেছেন যার মধ্যে রয়েছে ''লাইফ অন আর্থ'', ''দ্য লিভিং প্ল্যানেট'', ''দ্য ট্রায়ালস অফ লাইফ'' এবং ''দ্য লাইফ অফ বার্ডস''। পরবর্তী ধারাবিহাকগুলোতে তাকে ভৌগলিক উষ্ণায়নের উপর গুরুত্ব দিতে দেখা গেছে।<ref>[http://www.britannica.com/EBchecked/topic/42130/Sir-David-Attenborough Sir David Attenborough], এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা, ১৮ই মার্চ ২০১৩ তারিখে সংগৃহীত</ref>
 
== কর্ম ==
=== টেলিভিশন অনুষ্ঠান ===
২০০৫ সালে বিবিসি ২৪টি ডিভিডির একটি সেট হিসেবে অ্যাটেনব্রোর প্রাকৃতিক জীব-জন্তু বিষয়ক টিভি অনুষ্ঠানগুলো প্রকাশ করে। এগুলোকে একসাথে লাইফ সিরিজ বলা হয়। লাইফ সিরিজ আসলে অনেকগুলো টিভি ধারাবাহিকের সমষ্টি।
 
|}
 
=== রচনাবলি ===
* ''Zoo Quest to Guyana'' (১৯৫৬)
* ''Zoo Quest for a Dragon'' (১৯৫৭) - ১৯৫৯ সালে পুনঃপ্রকাশিত
* ''Galapagos with David Attenbourough'' (দ্বিমাত্রিক সংস্করণ) অথবা ''Galapagos 3D'' (২০১২)
 
== তথ্যসূত্র ==
<references/>
 
== বহিঃসংযোগ ==
{{Wikiquote}}
{{commons category}}
* [http://www.worldlandtrust.org/about/david-attenborough.htm ওয়ার্ল্ড ল্যান্ড ট্রাস্টের সম্মাননা]
 
[[Categoryবিষয়শ্রেণী:১৯২৬-এ জন্ম]]
[[Categoryবিষয়শ্রেণী:অজ্ঞেয়বাদী]]
[[Categoryবিষয়শ্রেণী:ইংরেজ সংরক্ষণবিদ]]
[[Categoryবিষয়শ্রেণী:ইংরেজ পরিবেশবাদী]]
[[Categoryবিষয়শ্রেণী:ইংরেজ প্রকৃতিবিদ]]
[[Categoryবিষয়শ্রেণী:ইংরেজ টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব]]
২,০০,১০৩টি

সম্পাদনা