"আতা" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট কসমেটিক পরিবর্তন করছে; কোনো সমস্যা?
(বট কসমেটিক পরিবর্তন করছে; কোনো সমস্যা?)
 
 
== প্রজাতিসমূহ ==
 
বর্তমানে সাতটি এনোনা ([[Annona]]) গণভুক্ত '[[প্রজাতি]]' এবং একটি '[[শংকর]] জাত' পৃথিবীজুড়ে বাড়ির আশেপাশে বা বানিজ্যিক ভিত্তিতে চাষ করা হয়। সবগুলোই সুস্বাদু ফল। <ref name="icuc">{{cite web
}}</ref>
 
জনপ্রিয় প্রজাতিগুলো হচ্ছে-
 
* '''''[[Annona squamosa]]''''' -এটিই বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি জন্মে। স্বাদেও এটিই সেরা। সুমিষ্ট এই ফলটি আতা নামে বেশিরভাগ স্থানে পরিচিত। তবে কোথাও কোথাও একে শরিফা বলা হয়। হিন্দিতেও একে শরিফা (शरीफा) বলা হয়। সংস্কৃত ভাষায় এর নাম সীতাফলম। এর চামড়ায় গুটি গুটি চোখ আছে।
 
* '''''[[Annona reticulata]]''''' -এর চামড়া মসৃণ, লালচে রঙ, স্বাদে কিছুটা নোনতা। নোনাফল নামে বেশি পরিচিত; তবে কোথাও কোথাও এটিকেই আতা বলা হয়। সংস্কৃত ভাষায় একে রামফলম বলা হয়।
 
* '''''[[Annona senegalensis]]''''' -ইংরেজিতে একে 'আফ্রিকান কাস্টার্ড অ্যাপল' বলা হয়। এরও চামড়া মসৃণ, হলদেটে রঙ। এটিও নোনাফল নামে বেশি পরিচিত। আফ্রিকান নোনা নামেও ডাকা হয়।
 
* '''''[[Annona muricata]]''''' -ইংরেজিতে একে 'সাওয়ার-সপ' (soursop বা graviola) বলা হয়। এরও চামড়া প্রায় মসৃণ, সবুজ রঙ। এটি 'শুল-রাম ফল' বা 'লক্ষ্মণ ফল' নামেও পরিচিত। মধ্য আমেরিকা, দক্ষিণ আমেরিকা, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া, প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল ও আফ্রিকায় এটি জন্মে।
 
* '''''[[Annona cherimola]]''''' -এটি বাংলাদেশে কমই জন্মে। এর চামড়াও অনেকটা মসৃণ। হিন্দিতে একে হনুমান ফল বলা হয়।
 
এছাড়া 'থাই লেসার্ড' এবং 'কাম্পং মভ' (Thai-Lessard, Kampong-Mauve) নামে এর দুটি প্রকরণ (variety) দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় পাওয়া যায়। <ref> http://toptropicals.com/catalog/uid/annona_squamosa.htm </ref>
| volume =3
| url = http://www.efloras.org/florataxon.aspx?flora_id=1&taxon_id=101891
| accessdate = 2008-04-20 }}</ref> কাঁচা ফল খাওয়া যায় না। বেলে দো-আঁশ মাটিতে আতা গাছ ভাল জন্মে। বীজ থেকে এর চারা করা হয়। এপ্রিল থেকে জুন মাসের মধ্যে ফুল ধরে এবং ৪/৫ মাসের মধ্যে আগস্ট থেকে সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যে ফল পেকে যায়। আতাফল হৃৎপিন্ড আকৃতির হয়ে থাকে। এতে প্রচুর পরিমাণে আমিষ ও শর্করা জাতীয় খাদ্যোপদান রয়েছে। পাকা আতার শাঁস মিস্টি হয়ে থাকে। খাওয়ার সময় জিভে চিনির মতো মিহি দানা দানা লাগে। এর কিছু ভেষজ গুণ রয়েছে। যেমন পাকা আতার শাঁস বলকারক, বাত-পিত্তনাশক ও বমনরোধক।<ref>মৃত্যুঞ্জয় রায়: ''বাংলার বিচিত্র ফল''। দিব্য প্রকাশ,২০০৭, ঢাকা। ISBN 984-483-266-7 পৃ: ৯৪।</ref>
 
পাকা ফল সুমিষ্ট হওয়ার কারণে অনেক সময়ই পোকার সংক্রমণ হয়, সাদা রঙের পোকা দ্বারা আক্রান্ত হয় ফল।
 
 
{{অসম্পূর্ণ}}
[[Category:বাংলাদেশের ফল]]
 
[[Category:বাংলার ফল]]
[[Categoryবিষয়শ্রেণী:বাংলাদেশের ফল]]
[[Category:ফল]]
[[Categoryবিষয়শ্রেণী:বাংলার ফল]]
[[বিষয়শ্রেণী:বাংলার ফল]]
[[বিষয়শ্রেণী:বাংলাদেশের ফল]]
[[বিষয়শ্রেণী:বাংলার ফল]]
 
[[en:Annona]]
[[en:Custard-apple]]
[[en:Custard apple]]
[[en:Sugar-apple]]
[[en:Annona reticulata]]
[[en:Annona cherimola]]
[[en:Annona senegalensis]]
[[ar:القشطة الهندي]]
[[de:Netzannone]]
[[esen:Annona reticulatasenegalensis]]
[[eo:Anono retikula]]
[[enes:Annona reticulata]]
[[fr:Cœur de bœuf]]
[[hi:शरीफा]]
[[ml:ആത്ത]]
[[nl:Custardappel]]
[[sa:रामफलम्]]
[[sa:सीताफलम्]]
[[te:సీతాఫలం]]
[[vi:Bình bát]]
 
{{অসম্পূর্ণ}}
 
 
[[বিষয়শ্রেণী:বাংলাদেশের ফল]]
[[বিষয়শ্রেণী:বাংলার ফল]]
২,০০,১০৩টি

সম্পাদনা