"তরফ রাজ্য" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

(Mdyusufmiah ব্যবহারকারী উইকিপিডিয়া:তরফ রাজ্য পাতাটিকে তরফ রাজ্য শিরোনামে স্থানান্তর করেছেন)
*শাহ আরেফিন; মাজার; [[লাউড় রাজ্য|লাউড়]]; [[সুনামগঞ্জ]] ।
*শাহ সুলতান কমর উদ্দীন; মাজার; মদনপুর; [[নেত্রকোনা জেলা |নেত্রকোনা]] ।
*শাহ রুকন উদ্দীন আনসারী; মাজার; [[শাহবাজপুর টাউন|শাহবাজপুর]]; [[সরাইল উপজেলা|সরাইল]]; শাহবাজপুর; [[ব্রাহ্মণবাড়িয়া]] ।
*শাহ মাহমুদ; মাজার; লশরকপুর; [[হবিগঞ্জ জেলা|হবিগঞ্জ]]।
* শাহ গাজী; মাজার; বিশগাও; গাজীপুর; [[চুনারুঘাট উপজেলা|চুনারুঘাট]] [[হবিগঞ্জ জেলা|হবিগঞ্জ]] ।
* শাহ বদর, মাজার; [[চট্টগ্রাম]]<ref name="তরফ" /><br />
এদিকে সৈয়দ নাসির উদ্দীনের '''তরফ''' বিজয় সংবাদ দিল্লীতে পৌছলে দিল্লীর সম্রাট সনদের মাধ্যমে সৈয়দ নাসির উদ্দীনকে রাজ্য পরিচালনার দায়ীত্ব প্রদান করেন। সৈয়দ নাসির উদ্দীন কোন এক অনিবার্য কারণে রাজপুর (আধুনা বিষগ্রাম) থেকে বিশ মাইল দুরবর্তি এক স্থানে রাজধানী স্থানান্তর করেন। স্থানান্তর কৃত রাজধানীর রাজ কর্মচারি, সৈন্য বা লস্কর প্রভৃতির অবস্থান উপলক্ষে এ স্থান ''লস্করপুর'' নামে খ্যাত হয়। যা অদ্যাবদি এ নাম (লস্করপুর) বলে অভিহিত হচ্ছে । সৈয়দ নাসির উদ্দীন পরলোক গমন করলে তাঁর পুত্র সিরাজ উদ্দীন তরফের শাসনভার প্রাপ্ত হন। সৈয়দ সিরাজ উদ্দীন থেকে সৈয়দ নাসির উদ্দীনের বংশ বিস্তৃত হয় এবং পর্যায়ক্রমে তারাই তরফ রাজ্যের শাসন কার্যে নিয়োজিত হন। বংশীয় ধারাবাহিকতায় ১৫৮১ সালে সৈয়দ মুসার রাজত্ব কালে ত্রিপুরা রাজ্যের নৃপতি অমর মাণিক্যের সাথে এক যুদ্ধে সৈয়দ মুসা পরাজিত হয়ে তাদের আত্মীয় আরাকান পতির সহযোগিতায় রাজ্য ফেরত পান। এসময় সৈয়দ মুসার ভাই সৈয়দ মিনা ওরফে সৈয়দ সুলতান দিল্লীতে অবস্থান করছিলেন। সৈয়দ মিনা ওরফে [[সৈয়দ সুলতান]] [[দিল্লী]] থেকে ফিরে এলে দুই ভাইয়ের মধ্যে বিভিন্ন কারণে মনোমালিন্য দেখা দেয় । সৈয়দ সুলতান লস্করপুর থেকে প্রায় তিন মাইল দুরে গিয়ে বাড়ি নির্মাণ করে সেখানে অবস্থান করেন। তখন তরফ দুই ভাগে বিভক্ত হয়। সৈয়দ মিনা ওরফে সৈয়দ সুলতান মধ্যযুগের একজন বিখ্যাত কবি ছিলেন । নবনির্মিত সেই বাড়িতে থেকে সাহিত্য চর্চার মধ্যদিয়ে শেষ জীবন কাটিয়ে যান। সুলতান নামানুসারে আদ্যাবদি নবনির্মিত বাড়ি ''সুলতানশী হাবেলী'' নামে পরিচিত হচ্ছে <ref name="তরফ" /> <ref name="শ্রীহট্ট" />। সৈয়দ মুসা প্রায় ত্রিশ বত্সর কাল জীবিত থেকে রাজ্য পরিচালনা করেন। সৈয়দ মুসার পরে তার পুত্র সৈয়দ আদম তরফ রাজ্যের একাংশের এবং অপরাংশে সৈয়দ সুলতান পুত্র সৈয়দ ইউনুস শাসন কার্যে মনোনিত হন । এ সময় দিল্লীর সম্রাট কর্তৃক সৈয়দ আদমকে তরফের ফৌজদারী বিচার ভার ও সৈয়দ ইউনুসকে দেওয়ানী বিচার ভার প্রদত্ত করা হয়। সৈয়দ ইউনুস পরলোকগমন করলে তার কনিষ্ট ভ্রাতা সৈয়দ ক্রিঞ্জিয়া 'সুলতানশী' রিয়াসতের উত্তরাধিকারী হন । সৈয়দ ক্রিঞ্জিয়া ও সৈয়দ আদমের অধঃস্থন বংশধরদের মধ্য থেকে খ্যাতনামা ব্যক্তিত্যের আবির্যভাগ ঘটে। যারা রাজ্য পরিচালনার সাথে সাথে ধর্ম প্রচার সহ বাংলা সাহিত্যে উপরও বিভিন্ন ভাবে অবদান রেখেছেন। নবাবী আমলে তরফ রাজ্যকে ঢাকার অন্তর্ভুক্ত করা হয়। 'চাকলে জাহাঙ্গীর নগর' জেলা লস্করপুর বলে বিভিন্ন রেকট-পত্রে থেকে এর উল্লেখ করা হয়েছে । অতপর তালুক সৃষ্টির সময় এটিকে বিভিন্ন ভাগে বিভক্ত করে কয়েকটি প্রধান পরগণা তরফ থেকে পৃথক করে দশসনা বন্দোবস্ত প্রদান করা হয়।
 
==প্রখ্যাত ব্যক্তিত্ব==
যেহেতু সৈয়দ নাসির উদ্দীন একজন প্রখ্যাত ইসলাম প্রচারক ছিলে। তাই বংশধর ও এখানকার ভক্ত মুরিদ গণ মানুষকে ভালবেসে ইসলামি সভ্যতা ও সংস্কৃতির প্রতি আহবান জানাতেন। যার ফলে মুরাড়বন্দ গরগাহ শরিফ নামে প্রখ্যাত দরবেশ সৈয়দ নাসির উদ্দীনের কবর বা মাজার ভক্ত অনুরক্তদের মিলন কেন্দ্রে পরিণত হয়ে উঠে। পরবর্তিতে এ বংশ হতে অসংখ্য ওলী-আউলিয়া, শিক্ষাবিদ, রাজনীতিবিদ সহ অনেক জ্ঞানী-গুণীর আবির্ভাব ঘটে। যাঁদের মধ্যে অন্যতম বিখ্যাত দরবেশ ছিলেন সৈয়দ শাহ খোদাবন্দ, সৈয়দ ইব্রাহীম (দিল্লী থেকে সনদ প্রাপ্ত, মুলক-উল-উলামা), সৈয়দ ইলিয়াছ কুদ্দুছ (কুতুবুল আউলিয়া), সৈয়দ শাহ নুরী, (সাধক পীর) । এছাড়া অন্যান্য বিখ্যাত ব্যক্তিত্বদের মধ্যে; আরাকান রাজ্যের উজির [[সৈয়দ মুসা]], বিখ্যাত সাধক গদাহাসন, মধ্যযোগের মহাকবি [[সৈয়দ সুলতান]], ঐতিহাসিক [[সৈয়দ মুজতবা আলী]], [[সৈয়দ মুস্তফা আলী]], [[সৈয়দ মুর্তাজা আলী]] [[সৈয়দ মোস্তফা কামাল]] সহ আরও অনেক মহা পুরুষগণ সৈয়দ নাসির উদ্দীনের বংশে জন্ম নিয়েছেন বলে শ্রীহট্টের ইতিবৃত্ত সহ বিভিন্ন গ্রন্থে রয়েছে<ref name="শ্রীহট্ট" /><ref name="তরফ" /> ।
বেনামী ব্যবহারকারী