"জাতীয় সংসদ ভবন" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট বিষয়শ্রেণী ঠিক করেছে
(বট বিষয়শ্রেণী ঠিক করেছে)
বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত অনুষ্ঠিত আটটি সংসদ নির্বাচনের মধ্যে প্রথম ও দ্বিতীয় নির্বাচনের পর গঠিত সংসদের অধিবেশনগুলি অনুষ্ঠিত হয় পুরনো সংসদ ভবনে, যা বর্তমানে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় হিসাবে ব্যবহৃত হচ্ছে।
 
তৎকালীন পাকিস্তান সরকার পূর্ব পাকিস্তান (বর্তমান বাংলাদেশ) ও পশ্চিম পাকিস্তানের (বর্তমান পাকিস্তান) জন্য আইনসভার জন্য জাতীয় সংসদ ভবনের নির্মাণ শুরু হয় [[১৯৬১]] সালে। [[১৯৮২]] সালের [[২৮শে জানুয়ারি]] নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হওয়ার পর একই বছরের [[১৫ই ফেব্রুয়ারি]] বাংলাদেশের দ্বিতীয় সংসদের অষ্টম (এবং শেষ) অধিবেশনে প্রথম সংসদ ভবন ব্যবহৃত হয়। তখন থেকেই আইন প্রণয়ন এবং সরকারি কর্মকাণ্ড পরিচালনার মূল কেন্দ্র হিসাবে এই ভবন ব্যবহার হয়ে আসছে।
 
== সংসদীয় ইতিহাস ==
<br />৬) ষষ্ঠ সংসদ: ১২ দিন ([[১৯শে মার্চ]], [[১৯৯৬]] - [[৩০শে মার্চ]], [[১৯৯৬]]) [[বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল|বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের]] নেতৃত্বে
<br />৭) সপ্তম সংসদ: ৫ বছর ([[১৪ই জুলাই]], [[১৯৯৬]] - [[১৩ই জুলাই]], ২০০১) [[আওয়ামী লীগ|আওয়ামী লীগের]] নেতৃত্বে
<br />৮) অষ্টম সংসদ: ([[২৮শে অক্টোবর]], [[২০০১]] - [[২৭শে অক্টোবর]], [[২০০৬]]) [[বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল]] নেতৃত্বাধীন চার দলীয় জোটের নেতৃত্বে</br />
<br />৯) নবম সংসদ: ([[১৭ই জানুয়ারি]], [[২০০৯]] - ) [[আওয়ামী লীগ]] নেতৃত্বাধীন জোট</br>
 
এর মধ্যে প্রথম সংসদ কখনোই জাতীয় সংসদ ভবন ব্যবহার করেনি। প্রতিটি সংসদের নেতা ছিলেন প্রধানমন্ত্রী।
{{অসম্পূর্ণ}}
 
[[বিষয়শ্রেণী:বাংলাদেশের ভবন ও স্থাপনাসমূহস্থাপনা]]
[[বিষয়শ্রেণী:সমকালীন স্থাপত্য]]
৩,৪২,৭০০টি

সম্পাদনা