"ব্যাটিং (ক্রিকেট)" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

তথ্যসূত্র প্রদান করা হলো
(নতুন নিবন্ধ রচিত হলো)
 
(তথ্যসূত্র প্রদান করা হলো)
[[চিত্র:WGGrace.jpg|thumbs|right|200px|১৮৮৩ সালে ইংরেজ ক্রিকেটার [[ডব্লিউ. জি. গ্রেস]] গার্ড নিচ্ছেন]]
 
'''ব্যাটিং''' ক্রিকেট খেলার একটি পরিভাষা। ব্যাটিং কলা-কৌশল একধরনের শিল্প যা ক্রিকেট ব্যাটের সাহায্যে ক্রিকেট বলকে আঘাতের মাধ্যমে রান সংগ্রহ করা হয় অথবা নিজের উইকেট রক্ষার কাজে ব্যবহার করা হয়। একজন খেলোয়াড় যদি বর্তমানে ব্যাটিং অবস্থায় থাকেন, তাহলে তিনি ব্যাটসম্যান হিসেবে চিহ্নিত হবেন। বলকে আঘাত করার কৌশলকে শট বা স্ট্রোক নামে অভিহিত করা হয়। স্পেশালিস্ট ব্যাটসম্যান পরিভাষাটি সচরাচর শুধুমাত্র ব্যাটিংয়ে পারদর্শী খেলোয়াড়ের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়। এক্ষেত্রে তাকে ব্যাটসম্যানরূপে অভিহিত করা হয়ে থাকে। এছাড়াও, ব্যাটিংয়ে অংশগ্রহণকারী সকল খেলোয়াড়কেই '''ব্যাটসম্যান''' বলা হয়। একইভাবে স্পেশালিস্ট বোলার পরিভাষাটি শুধুমাত্র বোলিংয়ে পারদর্শী খেলোয়াড়ের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়। যদি একজন ব্যাটসম্যান ব্যাটিং এবং বোলিং - উভয় বিভাগেই সমান পারদর্শীতা অর্জন করেন, তাহলে তিনি অল-রাউন্ডারের মর্যাদা পান।
 
 
== ব্যাটিং কৌশল ==
[[চিত্র:cricket shots.svg|thumb|200px]]
ব্যাটিংকারী দলের প্রত্যেক ব্যাটসম্যানেরই মূখ্য উদ্দেশ্য থাকে কিভাবে নিরাপদে বোলারের বিরুদ্ধে ব্যাট করে [[রান (ক্রিকেট)|রান]] সংগ্রহ করা যায়। সেলক্ষ্যে ব্যাটসম্যানকে অবশ্যই বোলারের কৌশল, ফিল্ডারদের অবস্থান, পিচের অবস্থা, নিজের শক্তিমত্তা ও দূর্বলতাসহ বিভিন্ন দিকসম্পর্কে অবহিত হতে হয়। বোলারের বিভিন্নভাবে বল ছোঁড়ার সাথে তাল মিলিয়ে নির্দিষ্ট দিকে বলকে ঠেলে দিয়ে সর্বনিম্ন আউটের ঝুঁকি নিয়ে ব্যাটসম্যানকে অগ্রসর হতে হয়। এ সফলতা অর্জনে গভীর মনোযোগ ও কলা-কৌশল অবলম্বন করতে হয়। খেলার অবস্থার উপর ব্যাটসম্যানের আগ্রাসী ভূমিকা ও কৌশল নির্ভরশীল। রান রেট ও নিজের উইকেট হারানোর হিসাব-নিকাশ এর সাথে জড়িত। [[টুয়েন্টি২০ ক্রিকেট|টি২০ ক্রিকেট]], [[টেস্ট ক্রিকেট]] ও [[একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট]] - এ তিনধরণের [[আন্তর্জাতিক ক্রিকেট|আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে]] ব্যাটিংয়ের কৌশল ভিন্নতর হয়ে থাকে।
 
== পায়ের অবস্থান ==
ব্যাটসম্যানের দাঁড়ানোর উপর পায়ের অবস্থান নির্ভরশীল। এর উপরই তার আউট হওয়া নির্ভর করে। আদর্শভাবে পায়ের অবস্থান হতে হবে আরামপ্রদ, স্বতঃস্ফূর্ত এবং ভারসাম্যপূর্ণ। দুই পায়ের ব্যবধান হবে সমান্তরালে ফাঁক রেখে ৪০ সেন্টিমিটার দূরত্বে।<ref>''Cricket: A guide book for teachers, coaches and players'' (Wellington: New Zealand Government Printer, 1984), p. 8.</ref> পাশাপাশি সম্মুখের কাঁধ উইকেট বরাবর, মাথা বোলারের দিকে, ওজন সমান ও ভারসাম্য এবং ব্যাট পিছনের পায়ের পাতার কাছে। বল ছোড়া হলে ব্যাটসম্যান তার ব্যাটকে উপরে তুলবনে ও স্ট্রোক মারবেন। প্রয়োজনে নিজস্ব ওজনকে কাজে লাগিয়ে ও পায়ের উপর নির্ভর করে বলে প্রয়োগ করবেন। এরফলে তিনি সহজেই বলকে গন্তব্যস্থানে প্রেরণ করতে পারবেন যা বোলারের হাত থেকে নিক্ষিপ্ত হয়েছিল। সাইড-অন স্ট্যান্স একটি সাধারণ বিষয় হলেও [[শিবনারায়ণ চন্দরপল|শিবনারায়ণ চন্দরপলের]] ন্যায় কিছুসংখ্যক আন্তর্জাতিকমানের ব্যাটসম্যান ওপেন অথবা স্কয়ার অন স্ট্যান্স ব্যবহার করে থাকেন।
 
== টেস্ট ক্রিকেট ==
=== পুরুষ ===
=== মহিলা ===
 
== তথ্যসূত্র ==
{{Reflist}}
 
{{ক্রিকেটে অবস্থান}}
 
{{অসম্পূর্ণ}}
৭২,২৫৬টি

সম্পাদনা