"সুসমাচার" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

 
সাধারণত, প্রাচীন খ্রিস্টীয় সাহিত্যে "গসপেল" ছিল একটি বিশেষ বর্গের নাম।<ref>Peter Stuhlmacher, ed., ''Das Evangelium und die Evangelien'', [[Tübingen]] 1983, also in English: ''The Gospel and the Gospels''</ref> যেগুলি শাস্ত্রীয় সুসমাচারের মর্যাদা পায়নি, সেগুলিও প্রাচীন খ্রিস্টধর্মের যুগে প্রচলিত ছিল। [[টমাসলিখিত সুসমাচার]] সহ এইরকম অনেকগুলি গসপেলেই সুসমাচারের পরিচিত কাঠামোটি দেখা যায় না।<ref name="Oxford:unspecified">Cross, F. L., ed. The Oxford Dictionary of the Christian Church. New York: Oxford University Press. 2005, unspecified article</ref>
 
==প্রাথমিক বিবরণ==
{{ Main|মৌখিক সুসমাচার }}
বাইবেল-বিশেষজ্ঞদের মতে, যিশু সম্পর্কে লোকমুখে প্রচলিত গল্প ও কয়েকটি বিবরণীর সংকলন শাস্ত্রীয় সুসমাচারগুলির আগেই রচিত হয়েছিল। [[লূকলিখিত সুসমাচার|লূকলিখিত সুসমাচারের]] উৎসর্গ পৃষ্ঠার ভূমিকাটি থেজে জানা যায়, উক্ত সুসমাচারটি রচনার আগেই যিশু সম্পর্কে অনেক গল্প রচিত হয়েছিল।<ref>Stanley E. Porter ''Reading the Gospels today'' p100</ref> লুক যে শব্দটি (διήγησις ''diēgēsis'') ব্যবহার করেন, সেটি একটি [[প্রাচীন গ্রিক ভাষা|প্রাচীন গ্রিক]] শব্দ। সেটি ব্যবহৃত হত ঐতিহাসিক আখ্যান অর্থে।<ref>Charles H. Talbert ''Reading Luke: a literary and theological commentary'' 2002 p2 "(3) What exactly is Luke? The prologue (1:1–4) says it is a diegesis (account). The second-century rhetorician Theon defines diegesis as "an expository account of things which happened or might have happened". Cicero (De Inv. 1.19.27)"</ref>
 
"গসপেল" শব্দটি নূতন নিয়মের কোনো শাস্ত্রীয় সুসমাচারে ব্যবহৃত হয়নি। তবে পরবর্তীকালের একটি প্রথাগত পাঠ অনুযায়ী লূকলিখিত সুসমাচারে সুসমাচারের উল্লেখ দেখা যায়।<ref>F. F. Bruce ''Acts'' p383</ref>
 
==তথ্যসূত্র==