"অ্যারন ফিঞ্চ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

খেলোয়াড়ী জীবন
(ইনফো!)
(খেলোয়াড়ী জীবন)
 
বর্তমানে তিনি [[টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক|টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিকে]] সর্বোচ্চ রানসংগ্রহকারী হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন।
 
== খেলোয়াড়ী জীবন ==
২০০৯/১০ মৌসুমে নিজ রাজ্যদলের পক্ষে খেলার সুযোগ পান। [[প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট|প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে]] তাসমানিয়ার বিপক্ষ প্রথম [[সেঞ্চুরী]] করেন ১০২ [[রান (ক্রিকেট)|রান]] করে। ৩য় উইকেটে [[ডেভিড হাসি|ডেভিড হাসি’র]] সাথে ২১২ রানের জুটি গড়েন।
 
১৪ জুন, ২০১১ তারিখে [[মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ড|মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে]] অনুষ্ঠিত [[টুয়েন্টি২০]] খেলায় [[ইংল্যান্ড ক্রিকেট দল|ইংল্যান্ডের]] বিপক্ষে [[ম্যান অব দ্য ম্যাচ]] [[পুরস্কার]] লাভ করেন। ২৯ আগস্ট, ২০১৩ তারিখে ফিঞ্চ টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিকে [[বিশ্বরেকর্ড|নতুন রেকর্ড]] গড়েন। সাউদাম্পটনের [[Rose Bowl (cricket ground)|রোজ বোল]] মাঠে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে মাত্র ৬৩ বলে ১৫৬ রান করে ক্রিকেট বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দেন তিনি। ইনিংসটিতে ১৪টি ছক্কার মার ছিল যা একটি রেকর্ড ও ১১টি চার ছিল। এরফলে [[নিউজিল্যান্ড জাতীয় ক্রিকেট দল|নিউজিল্যান্ডের]] [[ব্রেন্ডন ম্যাককুলাম|ব্রেন্ডন ম্যাককুলামের]] ১২৩ রানের পূর্বেকার রেকর্ডটি ম্লান হয়ে যায়।<ref name="record">{{cite news|url=http://www.stuff.co.nz/sport/cricket/9105241/Finch-breaks-McCullums-T20-world-record|title=Finch breaks McCullum's T20 world record|author=John Mehaffey|date=30 August 2013|accessdate=30 August 2013|newspaper=stuff.co.nz}}</ref>
 
== তথ্যসূত্র ==
৭৭,২৬৮টি

সম্পাদনা