"লনয়াবো সতসবে" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

(খেলোয়াড়ী জীবন)
 
== খেলোয়াড়ী জীবন ==
নভেম্বর, ২০০৮ সালে প্রথমবারের মতো দক্ষিণ আফ্রিকার [[টেস্ট ক্রিকেট|টেস্ট]] দলে খেলার জন্য নির্বাচিত হন।<ref>[http://content-uk.cricinfo.com/ausvrsa2008_09/content/current/story/379218.html Uncapped Tsotsobe in Test squad for Australia]</ref> জুন, ২০১০ সালে ত্রিনিদাদে অনুষ্ঠিত [[ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দল|ওয়েস্ট ইন্ডিজের]] বিপক্ষে টেস্ট অভিষেক ঘটে তার।<ref>[http://cricketarchive.com/Archive/Scorecards/267/267786.html West Indies v South Africa in 2010], CricketArchive, 06-13-2010, accessed 06-18-2010</ref>
 
এরপর তিনি [[একদিনের আন্তর্জাতিক|ওডিআই]] দলে খেলার জন্য নির্বাচিত হন।<ref>http://content-rsa.cricinfo.com/ausvrsa2008_09/content/squad/383792.html</ref> ৩০ জানুয়ারি, ২০০৯ তারিখে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে অনুষ্ঠিত একদিনের আন্তর্জাতিকে অভিষিক্ত হয়ে ৯ ওভারে ৫০ রান দিয়ে ৪ [[উইকেট]] দখল করেন। খেলায় দক্ষিণ আফ্রিকা ৩৯ রানে জয়লাভের পাশাপাশি ওডিআই সিরিজ জয় করেছিল ৪-১ ব্যবধানে। [[২০১১ ক্রিকেট বিশ্বকাপ|২০১১]] সালের [[ক্রিকেট বিশ্বকাপ|বিশ্বকাপ ক্রিকেট]] [[প্রতিযোগিতা|প্রতিযোগিতায়]] দক্ষিণ আফ্রিকা দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। খেলায় তার দল কোয়ার্টার-ফাইনাল পর্যন্ত পৌঁছতে পেরেছিল।
 
১১ জানুয়ারি, ২০০৯ তারিখে [[টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিক|টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিকে]] অভিষেক ঘটে ততসোবের। [[মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ড|মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে]] অনুষ্ঠিত এ খেলায় প্রতিপক্ষ ছিল [[অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল|অস্ট্রেলিয়া]]। জুন, ২০১০ সালে [[জিম্বাবুয়ে জাতীয় ক্রিকেট দল|জিম্বাবুয়ের]] বিপক্ষে ২য় টি২০-তে [[মরনে মরকেল|মরনে মরকেলের]] আঘাতপ্রাপ্তিজনিত কারণে অংশ নেন। উদ্বোধনী ওভারে পরপর দু’টি চার দিলেও [[হ্যামিল্টন মাসাকাদজা|হ্যামিল্টন মাসাকাদজা’র]] গুরুত্বপূর্ণ উইকেটটি নেন।
 
== ঘরোয়া প্রতিযোগিতা ==
 
== তথ্যসূত্র ==
৭৫,২৩৫টি

সম্পাদনা