"প্লোতিনোস" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
| signature =
}}
'''প্লোতিনোস''' (গ্রিক: Πλωτῖνος, লাতিন: Plotinus) (২০৪/৫ - ২৭০) প্রাচীন মিশরে জন্মগ্রহণকারী গ্রিক বংশোদ্ভূত দার্শনিক যাকে [[নব্য-প্লেটোবাদ|নব্য-প্লেটোবাদের]] জনক হিসেবে অভিহিত করা হয়। [[প্লেটো|প্লেটোর]] দর্শন থেকে উদ্বুদ্ধ হয়ে তিনি একটি জটিল আধ্যাত্মিক বিশ্বতত্ত্ব তৈরি করেন যার মৌলিক উপাদান তিনটি- একক সত্ত্বা, বুদ্ধিমত্তা এবং আত্মা। তার মতে এই তিন সত্ত্বার সৃজনশীল সমন্বয়ের মাধ্যমেই সকল সত্ত্বা অস্তিত্ব লাভ করে। এই উৎপত্তি কেবল কার্যকারণ নয় বরং এক ধরণের ধ্যানের উপরও নির্ভর করে। বুদ্ধিবৃত্তিক ধ্যানকে তিনি সৃষ্টির মূলনীতির সাথে মিলিয়েছেন, তার বিশ্বে ধ্যানের মাধ্যমেই সকল সত্ত্বা একত্রিত হয়ে সর্বব্যাপী বাস্তবতা তৈরি করে। প্লোতিনোসকে পুরোপুরি সর্বপ্রাণবাদী বলা যাবে না কিন্তু এটা সত্য যে তার জগতে শূন্য থেকে কিছু সৃষ্টি হতে পারে না।
 
বিশ্বতাত্ত্বিক চিন্তাভাবনার পাশাপাশি প্লোতিনোস অনুভূতি উপলব্ধির প্রক্রিয়া এবং জ্ঞান নিয়ে একটি অনন্য তত্ত্ব প্রস্তাব করেছিলেন। এই তত্ত্বের ভিত্তি হিসেবে যে ধারণা কাজ করেছিল তা হচ্ছে, মন কেবল একটি জড় তথ্য সংগ্রাহক নয়, সে কম্পিউটারের মত কেবল তথ্য সংগ্রহ করে চলে না, বরং তার অনুভবের বস্তুটিকে সে তার মত করে রূপ ও গড়ন দেয়। এ হিসেবে তাকে আধুনিক [[রূপতত্ত্ব|রূপতত্ত্বের]] (ফেনোমেনোলজি) অগ্রদূত হিসেবে বিবেচনা করা যায়। উল্লেখ্য মাত্র বিংশ শতকে জার্মান দার্শনিক [[এডমুন্ড হুসার্ল]] রূপতত্ত্বের জন্ম দিয়েছেন।
১৩,৪৫৫টি

সম্পাদনা