"গ্রাম স্টেইন" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

এই পদ্ধতিটির নামকরণ করা হয়েছে আবিষ্কারক ক্রিসচিআন গ্রাম ([[Hans Christian Gram]]) (১৮৫৩-১৯৩৮) এর নামে যিনি এ পদ্ধতি প্রথম প্রয়োগ করেন তার সহযোগী কার্ল ফ্রেডলেনডার ([[Carl Friedländer]]) এর সাথে বার্লিন শহরের একটি হাসপাতালের মর্গে কাজ করার সময়। তবে গ্রাম এ পদ্ধতি ব্যাক্টেরিয়াকে পৃথকীকরণের জন্য নয়, মূলত ফুসফুস কলাতে ব্যাক্টেরিয়াকে ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করার জন্যই প্রয়োগ করেছিলেন। তাঁর আবিষ্কৃত পদ্ধতিটি তিনি প্রকাশ করেন ১৮৮৪ সালে।
==কার্যপ্রণালী==
প্রথমত ব্যবহার্য সকল সরাঞ্জম ভালমতো জীবাণুমুক্ত(Sterilize) করে নিতে হবে। এরপর ট্রান্সফার লুপ ব্যাবহার করে নিরাপদে নমুনা সংগ্রহ করতে হবে এবং স্লাইড এ স্থাপন করে স্মিয়ার তৈরি করতে হবে এবং লুপটিকে পুনরায় বুনসেন বার্নার এর শিখায় জ্বালিয়ে জীবাণুমুক্ত করতে হবে। তারপর স্লাইডটিতে কৃস্টাল ভায়োলেট যোগ করে কিছুক্ষণ রেখে দিতে হবে। স্লাইডটি ভালভাবে ধুয়ে নিয়ে তাতে গ্রাম-এর আয়োডিন সল্যুশন যোগ করতে হবে যাতে রঞ্জনটি স্থায়ী হয়। কিছুক্ষণ পর স্লাইডটি ধুয়ে নিয়ে তাতে যোগ করতে হবে ইথাইল অ্যালকোহল বা অ্যাসিটোন, যা নিরঞ্জক হিসাবে কাজ করে। এরপর সবশেষে স্লাইডটি ধুয়ে নিয়ে তাতে যোগ করতে হবে স্যাফ্রানিন এবং অণুবীক্ষণ যন্ত্রের নিচে স্মিয়ারটিকে পর্যবেক্ষণ করতে হবে।
 
 
৫৬টি

সম্পাদনা