অষ্টক গীত ও নৃত্য: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্প্রসারণ
(সম্প্রসারণ)
বিভিন্ন অঞ্চলে একে বিভিন্ন নামে চিহ্নিত করা হয়; যেমনঃ ওপার বাংলার মুর্শিদাবাদ ও মালদহ অঞ্চলে “অষ্টকগান” নামে, এপার বাংলার বৃহত্তর কুষ্টিয়া অঞ্চলে ‘‘অষ্টগান’’ নামে, ফরিদপুর / বরিশাল অঞ্চলে “অষ্টক গীত / নৃত্য” নামে এটি পরিচিত।<br />
 
 
==পরিবেশনার পদ্ধিত==
অষ্টক গীত / নৃত্যের সূচনার পূর্বে উঠান বা মঞ্চের মাঝখানে দাঁড়িয়ে বাদ্যযন্ত্রীরা প্রথমে জনপ্রিয় কোনো-একটি দেশাত্মবোধক গানের সুরে সম্মিলিত বাদ্য বাদন শুরু করেন এবং এর সঙ্গে সঙ্গে উঠানের একপাশ থেকে কৃষ্ণ, রাধা ও তার অষ্ট সখী দুই বাহু তুলে বাদ্যের তালে তালে নাচতে নাচতে বাদ্যযন্ত্রীদের সামনের অভিনয়স্থলে এসে বৃত্তাকারে কয়েকবার প্রদক্ষিণ করেন। এরপর বাদন শেষে কৃষ্ণ এবং রাধাসহ সখীরা দুই দলে বিভক্ত হয়ে মুখোমুখি দাঁড়িয়ে বন্দনা পর্বের সূচনা করে; এক্ষেত্রে শ্রীকৃষ্ণ-রূপী অভিনেতার মুখোমুখি শ্রীরাধিকা ও সখী-রূপী অভিনেতারা জোড়হাতে বসে বন্দনার সূচনা করেন এবং বন্দনার একটি অন্তরা শেষে তারা বসা অবস্থা থেকে জোড়হাতে দেহের উপরের অংশ ঘোরাতে ঘোরাতে উঠে দাঁড়ায়, কিন্তু পরবর্তী অন্তরা শুরুর আগেই বসে যায় ও নতুন অন্তরা শুরু করে। বন্দনায় সাধারণতঃ দেবী সরস্বতী স্তুতি করা হলেও কখনো কখনো পিতা-মাতা, শিক্ষাগুরু প্রমুখেরও স্তুতি করা হয়। বন্দনার পর শুরু হয় মূল পালা যেখানে “সরকার”, যিনি কৃষ্ণ চরিত্রেও অভিনয় করেন, বর্ণনা করেন এবং এর প্রত্যুত্তরে থাকে রাধার কথকতা। অষ্টক গীত / নৃত্যের পরিবেশনায় বর্ণনার সময় অভিনেতারা অভিনয় শৈলী এবং গীতের সঙ্গে নৃত্য প্রদর্শন করে থাকে।<br />
 
 
২৯,০৮৪টি

সম্পাদনা