"পিটার সিমোন পালাস" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

+
(+)
(+)
 
পিটার [[নেদারল্যান্ডস]] ও [[লন্ডন|লন্ডনে]] ঘুরে বেড়ান। এ ভ্রমণের ফলে তিনি চিকিৎসাবিদ্যা ও শল্যবিদ্যা সম্পর্কে নতুন জ্ঞান আহরণ করেন। এরপর তিনি [[দ্য হেগ|দ্য হেগে]] স্থায়ী হন। প্রাণীর শ্রেণীবিন্যাসকরণে তাঁর আবিষ্কৃত নতুন পদ্ধতি [[জর্জ কুভিয়ে]] কর্তৃক প্রশংসিত হয়। ১৭৬৬ সালে তিনি ''Miscellanea Zoologica'' রচনা করেন। গ্রন্থটিতে তিনি অসংখ্য নতুন [[মেরুদণ্ডী প্রাণী]] সম্পর্কে বিস্তারিত বিবরণ দেন। এসব প্রাণীর নমুনা বিভিন্ন ডাচ মিউজিয়ামে সংরক্ষিত ছিল। [[আফ্রিকা|আফ্রিকার]] দক্ষিণাঞ্চল ও [[ইস্ট ইন্ডিজ|ইস্ট ইন্ডিজে]] তিনি গবেষণা অভিযান চলানোর পরিকল্পনা করেন। তাঁর পিতা বার্লিনে তাঁকে ডেকে পাঠানোয় তাঁর এ পরিকল্পনা ভেস্তে যায়।
 
১৭৬৭ সালে রাশিয়ার সম্রাজ্ঞী [[দ্বিতীয় ক্যাথরিন]] পালাসকে [[সেন্ট পিটার্সবুর্গ বিজ্ঞান অ্যাকাডেমি|সেন্ট পিটার্সবুর্গ বিজ্ঞান অ্যাকাডেমির]] অধ্যাপক পদে যোগদানের আমন্ত্রণ জানান। ১৭৬৮ থেকে ১৭৭৪ পর্যন্ত তিনি সমগ্র মধ্য রাশিয়া, [[উরাল পর্বতমালা]], পশ্চিম [[সাইবেরিয়া]], [[আলতাই পর্বতমালা|আলতাই]], [[পোভোলঝাই]] ও [[ট্রান্সবৈকাল]] অঞ্চল চষে বেড়ান এবং প্রচুর প্রাকৃতিক ইতিহাস সম্পর্কিত নমুনা জোগাড় করেন। তিনি [[কাস্পিয়ান সাগর]], [[আমুর নদী]] ও [[বৈকাল হ্রদ|বৈকাল হ্রদে]] ব্যাপক অভিযান চালান। এসব অভিযানে তিনি বিচিত্র বিষয়ে সব নতুন নতুন তথ্য আবিষ্কার করেন। তিনি ভূতত্ত্ব ও খনিজবিজ্ঞান সম্পর্কিত তথ্য উদঘাটন করেন; স্থানীয় আদিবাসী ও তাদের ধর্ম, আচারআচরণ ইত্যাদি লিপিবদ্ধ করেন। নতুন উদ্ভিদ ও প্রাণীর বর্ণনাও তাঁর লেখনীতে স্থান পায়। তাঁর এসব লেখা তিনি সেন্ট পিটার্সবুর্গে পাঠান ও সেগুলো ''Reise durch verschiedene Provinzen des Russischen Reichs'' (রাশিয়ান সাম্রাজ্যের বিভিন্ন প্রদেশে অভিযান, তিন খণ্ড, ১৭৭১-১৭৭৬) নামে প্রকাশিত হয়।১৭৭৬ সালে পালাস রয়েল সুইডিশ অ্যাকাডেমি অব সায়েন্সেস-এর বিদেশী সদস্য নির্বাচিত হন।
 
{{Commons|Peter Simon Pallas|পিটার সিমোন পালাস}}