"ধনুর্বিদ্যা" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্প্রসারণ
(সম্প্রসারণ)
[[চিত্র:Archer_Pretoria.jpg|250px|thumb|তীরন্দাজ কর্তৃক শিকারের দৃশ্য]]
 
'''তীরন্দাজী''' বা '''ধনুর্বিদা ''' ({{lang-en|Archery}}) এক ধরনের কলাবিদ্যা, অনুশীলন কিংবা দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে [[তীর]]-[[ধনুক|ধনুকের]] সাহায্যে অনুশীলনের জন্যে ব্যবহার করা হয়। ল্যাটিন শব্দ আর্কাস থেকে ইংরেজি আর্চারী শব্দটির উৎপত্তি ঘটেছে। ঐতিহাসিকভাবে ধনুর্বিদ্যা মূলতঃ [[পশু]] [[শিকার]] এবং [[যুদ্ধক্ষেত্র|যুদ্ধক্ষেত্রে]] লড়াইয়ের উদ্দেশ্যে উদ্ভাবন করা হয়। বর্তমানে এটি [[চিত্তবিনোদনমূলক খেলা|চিত্তবিনোদনমূলক খেলায়]] বহুল প্রচলিত ক্রীড়াবিশেষ। ব্যক্তি হিসেবে যিনি তীর-ধনুক ব্যবহার করেন বা [[প্রতিযোগিতা|প্রতিযোগিতায়]] অংশগ্রহণ করেন, তিনি [[তীরন্দাজ]] বা আর্চার বা বোম্যান নামে পরিচিত। যিনি বা যারা এ [[খেলা]] উপভোগ করেন কিংবা ধনুর্বিদ্যায় অভিজ্ঞ, তিনি ''ধনুর্বিদ্যাবিশারদ'' নামে আখ্যায়িত হয়ে থাকেন।<ref>The noun "toxophilite", meaning "a lover or devotee of archery, an archer", is derived from ''[[Toxophilus]]'' by [[Roger Ascham]] —"imaginary proper name invented by Ascham, and hence title of his book (1545), intended to mean 'lover of the bow'." "toxophilite, n." ''Oxford English Dictionary''. Second edition, 1989; online version November 2010. <http://www.oed.com:80/Entry/204131>; accessed 10 March 2011. Earlier version first published in ''New English Dictionary'', 1913.</ref>
 
== ইতিহাস ==
ধারনা করা হয় যে, পাঁচ হাজারেরও অধিক বছর পূর্বে ধনুর্বিদ্যার প্রচলন ঘটেছিল। শুরুতে ধনুক দিয়ে শিকার করা হতো। পরবর্তীকালে হস্তনির্মিত [[অস্ত্র]] হিসেবে যুদ্ধক্ষেত্রে এর বহুল প্রচলন ঘটে। এটি [[আর্টিলারি|গোলন্দাজ সৈন্যবিভাগের]] অবিচ্ছেদ্য অংশ ছিল। আধুনিক [[সভ্যতা]] হিসেবে পারস্য, মেসিডোনিয়া, নুবিয়া, গ্রীক, পার্থিয়া, ভারতীয়, জাপান, চীন এবং কোরিয়ার সরকার ব্যবস্থায় তাদের [[সেনাবাহিনী|সেনাবাহিনীতে]] ব্যাপক সংখ্যায় ধনুক সংরক্ষণ করা হতো। নিখুঁত লক্ষ্যভেদে এর জুড়ি ছিল না এবং দক্ষ তীরন্দাজগণ যুদ্ধ জয়ে ব্যাপক ভূমিকা রাখতেন।
 
সংস্কৃত শব্দ ধনুর্বিদ্যাকে সাধারণ অর্থে [[মার্শাল আর্ট|মার্শাল আর্টকে]] নির্দেশ করা হয়ে থাকে। ধনুর্বিদ্যার উত্থান ঘটে এশিয়ায়। পূর্ব এশিয়ায় কোরিয়ার তিনটি রাজ্যের একটি গোগুরিও রাজ্যে একদল দক্ষ তীরন্দাজের রেজিমেন্ট ছিল।<ref>[[Book of the Later Han]] [http://zh.wikisource.org/wiki/%E5%BE%8C%E6%BC%A2%E6%9B%B8/%E5%8D%B785]"句驪一名貊耳有別種依小水為居因名曰小水貊出好弓所謂貊弓是也"</ref><ref name="koreantrad">{{citation
| title = Korean Traditional Archery
| last1 = Duvernay
| first1 = Thomas A.
| last2 = Duvernay
| first2 = Nicholas Y.
| publisher = Handong Global University
| year = 2007
| postscript = <!--none-->
}}</ref>
 
== অলিম্পিক ক্রীড়া ==
 
অলিম্পিকের আসরে শুধুমাত্র বাঁকানো ধনুক ব্যবহারের অনুমতি দেয়া হয়। ১৯৮৪ সাল থেকে [[১৯৮৪ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক্‌স|লস এঞ্জেলেস অলিম্পিক]] থেকে [[দক্ষিণ কোরিয়া]] মহিলাদের ইভেন্টে একচ্ছত্র প্রাধান্য বিস্তার করে আছে। ২০০০ সালে অনুষ্ঠিত [[২০০০ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক্‌স|সিডনী অলিম্পিকের]] আসর থেকে ব্যক্তিগত পর্যায়ে [[স্বর্ণপদক]], রৌপ্যপদক ও ব্রোঞ্জপদক এবং দলীয়ভাবেও স্বর্ণপদক লাভ করেছিল। এছাড়াও তারা ২০০৪ সালে অনুষ্ঠিত [[২০০৪ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক্‌স|এথেন্স অলিম্পিক]], ২০০৮ সালের [[২০০৮ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক্‌স|বেইজিং অলিম্পিক]] এবং ২০১২ সালের [[২০১২ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক্‌স|লন্ডন অলিম্পিকে]] স্বর্ণপদক লাভ করে। <!-- তরতাজা সংবাদ --> বর্তমানে চীন, জাপান, তাইপে, ভারত প্রমূখ দেশের ক্রীড়াবিদগণ কোরিয়ার আধিপত্য রোধে আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।
 
== তথ্যসূত্র ==
{{reflist}}
 
{{অসম্পূর্ণ}}
 
[[en:Archery]]
৭৫,২৩৫টি

সম্পাদনা