"মিখাইল বাকুনিন" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

(+)
 
চরমপন্থী মতবাদের জন্য ফরাসী সরকার বাকুনিনকে বহিষ্কৃত ঘোষণা করে। তিনি প্রথমে [[বেলজিয়াম]] ও পরে পুনরায় জার্মানিতে ফেরত আসেন। ১৮৪৯ সালে [[ডেসড্রেন বিদ্রোহ|ডেসড্রেন বিদ্রোহে]] অংশগ্রহণ করার অভিযোগে তাকে [[মৃত্যুদণ্ড]] প্রদান করা হয়। কিন্তু বাকুনিন বিদেশী নাগরিক হওয়ায় তার মৃত্যুদণ্ডাদেশ মওকুফ করে [[যাবজ্জীবন কারাদণ্ড]] প্রদান করা হয়। তাকে রুশ সরকারের নিকট হস্তান্তর করা হয়। ১৮৫৫ সাল পর্যন্ত তাকে কারাগারে রাখার পর স্থায়ীভাবে [[সাইবেরিয়া|সাইবেরিয়ায়]] নির্বাসিত করা হয়।
 
১৮৬১ সালে বাকুনিন [[জাপান]] ও [[যুক্তরাষ্ট্র]] হয়ে ইংল্যান্ডে পালিয়ে যান। সেখানে অল্পকিছুকাল অবস্থানের পর তিনি [[সুইজারল্যান্ড]] গমন করেন এবং মৃত্যুকাল পর্যন্ত সেখানেই অবস্থান করেন। ১৮৬৯ সালে তিনি "সোশাল ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্স" নামে একটি রাজনৈতিক দল গঠন করেন এবং অল্প কয়েকদিনের মধ্যে দলটিকে মার্ক্সের "ইন্টারন্যাশনাল ওয়ার্কিংমেনস অ্যাসোসিয়েশন"এর সাথে যুক্ত করে ফেলেন। আদর্শগত কারণে মার্ক্সের সাথে তার মতবিরোধ হওয়ায় তাকে অ্যাসোসিয়েশন থেকে বহিষ্কার করা হয়।
 
তবে তিনি ইতিমধ্যে চরমপন্থী আন্দোলনের নেতা হিসেবে বেশ পরিচিতি লাভ করেন। প্রবন্ধ, লিফলেট, প্রচার পুস্তিকা বিভিন্ন আকারে বাকুনিন [[ফরাসী ভাষা|ফরাসী]], [[স্পেনীয় ভাষা|স্পেনীয়]] ও [[জার্মান ভাষা|জার্মান ভাষায়]] বহু পুস্তক রচনা করেন এবং প্রতিটি রচনায় তার নৈরাজ্যবাদী আদর্শ প্রচার করেন। ফরাসী ভাষায় বাকুনিনের প্রায় সমগ্র রচনার সংকলন ''Oevres'' প্রকাশিত হয়। ইংরেজিতে ''[[গড অ্যান্ড দি স্টেট]]'' নাম দিয়ে তার অংশবিশেষের অনুবাদ প্রকাশিত হয়। এই অনূদিত অংশেই অবশ্য বাকুনিনের মৌল আদর্শ সুস্পষ্টভাবে প্রতিফলিত হয়েছে।
 
[[বিষয়শ্রেণী:১৮১৪-এ জন্ম]]