"হারিছ মিয়া" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

→‎কর্মজীবন: ছোট সম্পাদনা
(→‎কর্মজীবন: ছোট সম্পাদনা)
 
==কর্মজীবন==
হারিছ মিয়া ছিলেন নিয়মিত মুক্তিবাহিনীর তৃতীয় ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের সুবেদার মেজর। মুক্তিযুদ্ধের শুরুতে হারিছ মিয়ারতাঁর কোম্পানির অবস্থান ছিল সৈয়দপুর সেনানিবাসে। এই রেজিমেন্টের অধিনায়ক ও উপ-অধিনায়ক দুজনই ছিল অবাঙালি। মার্চ মাসে সম্ভাব্য ভারতীয় আগ্রাসনের কথা বলে তাঁদের চারটি কোম্পানিই সেনানিবাসের বাইরে পাঠানো হয়। সেনানিবাসে ছিল হেডকোয়ার্টার কোম্পানি এবং রিয়ার পার্টি। ব্যাটালিয়নের সুবেদার মেজর হারিছ মিয়া ছিলেন সেনানিবাসে। [[মার্চ ৩০|৩০ মার্চ]] গভীর রাতে পাকিস্তান সেনাবাহিনী তাঁদের আক্রমণ করে। সেনানিবাসে অবস্থানরত বাঙালি সেনারা তাঁর নেতৃত্বে বিদ্রোহ করে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেন। প্রতিরোধযুদ্ধে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।
 
==মুক্তিযুদ্ধে ভূমিকা==
১৩,৮০৫টি

সম্পাদনা