"আলতাফ মাহমুদ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

ছোট সম্পাদনা
(সংযোজিত বিষয়শ্রেণী:বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধা; হটক্যাটের মাধ্যমে)
(ছোট সম্পাদনা)
'''আলতাফ মাহমুদ''' (জন্ম: [[ডিসেম্বর ২৩|২৩ ডিসেম্বর]], [[১৯৩০]] - মৃত্যু: [[সেপ্টেম্বর ৩|৩ সেপ্টেম্বর]], [[১৯৭১]]) একজন [[বাংলাদেশ|বাংলাদেশী]] সুরকার, সাংস্কৃতিক কর্মী ও [[বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ|স্বাধীনতা যুদ্ধের]] শহীদ মুক্তিযোদ্ধা। তিনি একজন ভাষা সৈনিক ছিলেন এবং ২১শে ফেব্রুয়ারির শহীদ দিবসে গাওয়া [[আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো]] গানটির বর্তমান সুরটিও তাঁর করা। এই গানের সুরকার হিসেবেই তিনি সমধিক পরিচিত।
 
== জন্ম ও শিক্ষাজীবন ==
== প্রারম্ভিক জীবন ==
১৯৩০ সালের ২৩শে ডিসেম্বর [[বরিশাল জেলা|বরিশাল জেলার]] [[মুলাদি]] উপজেলার পাতারচর গ্রামে আলতাফ মাহমুদ জন্মগ্রহণ করেন। [[বরিশাল জিলা স্কুল]] থেকে তিনি মেট্রিকুলেশন পরীক্ষা পাশ করে [[বিএম কলেজ|বিএম কলেজে]] ভর্তি হন। পরে তিনি চিত্রকলা শিখতে [[ক্যালকাটা আর্টস স্কুল|ক্যালকাটা আর্টস স্কুলে]] গমণ করেন। বিদ্যালয়ে থাকা অবস্থায়ই মাহমুদ গান গাইতে শুরু করেন। তিনি প্রসিদ্ধ ভায়োলিন বাদক [[সুরেন রায়|সুরেন রায়ের]] কাছে প্রথম সঙ্গীতে তালিম নেন। তিনি গণসঙ্গীত গাইতে শেখেন যা সে সময় তাকে জনপ্রিয়তা এনে দেয়।
 
== পেশাদার ক্যারিয়ার ==
১৯৫০ সালে আলতাফ মাহমুদ ঢাকায় আসেন এবং ''ধুমকেতু শিল্পী সংঘ'' তে যোগ দেন। পরবর্তীকালে তিনি এই সংস্থাটির 'সঙ্গীত পরিচালক' পদে আসীন হন। ১৯৫৪ সালে "ভিয়েনা শান্তি সম্মেলনে" মাহমুদ আমন্ত্রিত হন, কিন্তু [[করাচি|করাচিতে]] পাকিস্তানী সরকার তাঁর পাসপোর্ট আটকে দেয়ায় তিনি এখানে যোগ দিতে পারেননি। তিনি ১৯৬৩ সাল পর্যন্ত করাচিতে ছিলেন এবং ওস্তাদ আব্দুল কাদের খাঁ-র কাছে উচ্চাঙ্গ সঙ্গীত বিষয়ক তালিম নিয়েছিলেন। এছাড়া তিনি নৃত্য পরিচালক ঘনশ্যাম এবং সঙ্গীত পরিচালক দেবু ভট্টাচার্য্য এর সহকারী হিসেবেও কাজ করেছেন। করাচি থেকে [[ঢাকা]] ফেরার পর মাহমুদ ১৯টি বিভিন্ন চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন। এর মধ্যে রয়েছে বিখ্যাত চলচ্চিত্র [[জীবন থেকে নেয়া]] সহ, ক্যায়সে কাহু, কার বউ, তানহা প্রভৃতি। এছাড়া তিনি রাজনীতি ও বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংস্থার সাথেও জড়িত ছিলেন। সঙ্গীতে প্রতিভা থাকলেও মাহমুদ ছবিও আঁকতে পারতেন।
 
== ভাষা আন্দোলন ও স্বাধীনতা যুদ্ধ ==
১৯৫০ সালের দিকে তিনি [[বাংলা ভাষা আন্দোলন|ভাষা আন্দোলনের]] পক্ষে সমর্থন আদায়ের জন্য বিভিন্ন জায়গায় গণসঙ্গীত গাইতেন। গান গাওয়ার মাধ্যমে মাহমুদ এই আন্দোলনকে সর্বদাই সমর্থন যুগিয়েছেন। ১৯৬৯ সালে তিনি [[আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো]] গানটিতে পুণরায় সুরারোপ করেন, যেটি প্রথমত সুর করেছিলেন আব্দুল লতিফ। এই সুরটি [[জহির রায়হান|জহির রায়হানের]] চলচ্চিত্র [[জীবন থেকে নেয়া]] তেও ব্যবহৃত হয়।
১৩,৮০৫টি

সম্পাদনা