"সোনার কেল্লা (চলচ্চিত্র)" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

(r2.7.1) (বট যোগ করছে: ru:Золотая крепость (фильм))
এক রাত্রে, বর্মন তার মনস্তত্ত্ববিদ্যা ব্যবহার করে মুকুলকে সংবিষ্ট করে এবং জানতে পারে যে কেল্লাটি জয়শালমে। পরের দিন, ফেলুদাও একই কথা বুঝতে পারে যখন মনে করতে পারে যে জলসালমের কেল্লা সোনালী হলুদ পাথর দিয়ে তৈরী। যখন তিনি আবার ফিরে আসেন, তখন তিনি জানেন যে বর্মন আগেই চলে গিয়েছে। মন্দার বোস বলেন যে মুকুল জায়গাটার নাম বর্মর বলতে পেরেছে। যখন ফেলুদা হাজরার নাম ভুল বানাতে লেখা দেখে হোটেলের খাতায়, তখন সে গাড়ি নিয়ে জলশামে যেতে শুরু করে যাতে হাজরার রাস্তায় গুরো করা কাঁচ ফেলুদার গাড়ির চাকা পাংচার করে দেয়।
 
ফেলুদা উটে উঠে কাছে ট্রেনে জন্য ছুটে এবং পরের ট্রেনে জলসামেজয়সালমের যায়। সেখানে মন্দার বোস ফেলুদাকে আঘাত করতে চেষ্টা করে, কিন্তু ঘুমের ভাব দেখিয়ে তিনি বেঁচে যান। হঠাৎ জটায়ু মন্দার বোসের ছুরিকে চুরি করে এবং জটায়ুকেই ব্যবহার করে ট্রেনের সাইডে ঝুলে থাকে যাতে পরে সে আবার কোনো একটি ট্রেনের কামরাতে উঠতে পারে। সেখানে আসল ডঃ হাজরা দরজাটাকে ধাক্কা দিয়ে মন্দার বোসকে মৃত্যু আনে।
 
পরের দিন সকালে, তারা তিনজন জয়শালমে[[জয়সালমের]] পৌঁছায় এবং ডঃ হাজরার সাথে কথা বলে। তারা বর্মন এবং মুকুলকে পায় কেল্লা মধ্যে দিয়ে খুঁজতে। বর্মনের ময়ূরের প্রতি ভয়ের কারণে সে একটিকে ঘুলি করতে চেষ্টা করে, যা দেখে মুকুল দৌড়ে পালায়। এই সময় ফেলুদা আগে এবং তাকে আটক করে। সে জানায় সে এখানে কোনো রত্ন ছিলো না, এবং মুকুলকে আবার সুস্থ হিসেবে দেখে যাতে তাকে আবার কলকাতায় নিয়ে যেতে পারে।
 
==শিল্পী পরিচিতি==
২৪৯টি

সম্পাদনা