বিপজ্জনক পণ্য (ইংরেজি: Dangerous goods, সংক্ষেপে DG) বলতে সেইসব পদার্থকে বোঝায় যেগুলি পরিবহনের সময় স্বাস্থ্য, নিরাপত্তা, সম্পত্তি ও প্রাকৃতিক পরিবেশের জন্য সেগুলি ঝুঁকির কারণ হতে পারে। কিছু কিছু বিপজ্জনক পণ্য আছে, যেগুলি পরিবহন না করা হলেও ঝুঁকির কারণ হতে পারে; এগুলিকে বিপজ্জনক উপাদান (ইংরেজি: Hazardous materials, সংক্ষেপে HAZMAT হ্যাজম্যাট) বলে। বিপজ্জনক পণ্যের একটি উদাহরণ হল বিপজ্জনক বর্জ্য যা জনস্বাস্থ্য ও প্রাকৃতিক পরিবেশের জন্য তাৎপর্যপূর্ণ সম্ভাব্য হুমকি হতে পারে।[১]

একটি জরুরি চিকিৎসা কারিগর দল বিপজ্জনক উপাদান ও বিষাক্ত সংক্রমণ পরিস্থিতির মোকাবেলার জন্য উদ্ধারকারী (ধূসর পোশাক) ও সংক্রমণ-নিবারণকারী (সবুজ পোশাক) হিসেবে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করছে।

বিপজ্জনক পদার্থগুলিকে প্রায়শুই রাসায়নিক প্রবিধানের আওতাধীন রাখা হয়। বিপজ্জনক পদার্থসমূহের বিধানকারী দলগুলিকে বিশেষ প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয় এবং তারা তেজস্ক্রিয় পদার্থ, দাহ্য পদার্থ, বিস্ফোরক পদার্থ, ক্ষয়কারক পদারথ, জারক পদার্থ, শ্বাসরোধী পদার্থ, জৈব-বিপজ্জনক পদার্থ, বিষাক্ত পদার্থ, রোগজীবাণু, অতিপ্রতিক্রিয়াজনক পদার্থ, ইত্যাদির মোকাবেলা করতে পারেন। এছাড়া সংকুচিত গ্যাস ও তরল ও উত্তপ্ত পদার্থ, এবং এগুলি ধারণকারী সব ধরনের পণ্য, কিংবা অন্য কোনও বিশেষ পরিস্থিতিতে বিপজ্জনক হতে পারে, এরকম বৈশিষ্ট্যযুক্ত পদার্থও বিপজ্জনক পদার্থের অন্তর্ভুক্ত।

বিপজ্জনক পদার্থ ও পণ্যগুলিকে প্রায়শই একটি হীরকাকৃতির প্রতীক দ্বারা নির্দেশ করা হয়। পণ্যের উপরে সরাসরি, বা এটিকে যে আধারে রাখা হয় তার উপরে, কিংবা এটিকে যে ভবন বা স্থাপনায় সংরক্ষণ করা হয়, তার গায়ে ঐ প্রতীক লাগানো থাকে। হীরকের ভেতরের রঙ বিপদের প্রকৃতি নির্দেশ করে। যেমন দাহ্য পদার্থকে লাল রঙ দিয়ে নির্দেশ করা হয়, কারণ আগুন ও তাপ সাধারণত লাল রঙের হয়ে থাকে। অন্যদিকে বিস্ফোরক পদার্থকে কমলা রঙ দিয়ে নির্দেশ করা হয়, কারণ দাহ্য (লাল) পদার্থের সাথে জারক (হলুদ) পদার্থ মেশালে হলুদ সৃষ্টি হয়। অদাহ্য ও বিষহীন গ্যাসকে সবুজ রঙ দিয়ে নির্দেশ করা হয়, কারণ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে ফ্রান্সের সমস্ত সংকুচিত বায়ুযুক্ত বাহনগুলি এই রঙে রাঙানো ছিল এবং ফ্রান্সেই হীরকাকৃতির প্রতীক ও রঙ দিয়ে বিপজ্জনক পদার্থকে শনাক্তকরণ করার পদ্ধতিটি সর্বপ্রথম উদ্ভাবন করা হয়।

বৈশ্বিক নিয়মকানুনসম্পাদনা

সবচেয়ে ব্যাপকভাবে প্রয়োগ করা নিয়ন্ত্রক প্রকল্পটি হ'ল বিপজ্জনক পণ্য পরিবহনের জন্য। জাতিসংঘের অর্থনৈতিক ও সামাজিক পরিষদ বিপজ্জনক পণ্য পরিবহনের উপর জাতিসংঘের সুপারিশ জারি করে, যা বেশিরভাগ আঞ্চলিক, জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক নিয়ন্ত্রক প্রকল্পগুলির ভিত্তি গঠন করে। উদাহরণস্বরূপ, ইন্টারন্যাশনাল সিভিল এভিয়েশন অর্গানাইজেশন বিপজ্জনক উপকরণগুলির বিমান পরিবহনের জন্য বিপজ্জনক পণ্য প্রবিধান তৈরি করেছে যা জাতিসংঘের মডেলের উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে তবে বিমান পরিবহনের অনন্য দিকগুলি সামঞ্জস্য করার জন্য সংশোধন করা হয়েছে। ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত আইএটিএ বিপজ্জনক পণ্য প্রবিধান (ডিজিআর) উত্পাদন করার জন্য আন্তর্জাতিক বিমান পরিবহন সমিতি দ্বারা পৃথক এয়ারলাইন এবং সরকারী প্রয়োজনীয়তাগুলি অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।[২] একইভাবে, আন্তর্জাতিক সামুদ্রিক সংস্থা (আইএমও) সমুদ্রপথে বিপজ্জনক পণ্য পরিবহনের জন্য আন্তর্জাতিক সামুদ্রিক বিপজ্জনক পণ্য কোড ("আইএমডিজি কোড", সমুদ্রে জীবনের সুরক্ষার জন্য আন্তর্জাতিক কনভেনশনের অংশ) তৈরি করেছে। আইএমও সদস্য দেশগুলি সমুদ্রে বিপজ্জনক পণ্য ছড়িয়ে পড়লে ক্ষতিপূরণ প্রদানের জন্য এইচএনএস কনভেনশনও তৈরি করেছে।

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Resources Conservation and Recovery Act"। US EPA। 
  2. "Dangerous Goods Regulations (DGR)"IATA। ২০১৪-০৪-২৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা