বাংলাদেশ নৌবাহিনীর সক্রিয় জাহাজের তালিকা

উইকিমিডিয়ার তালিকা নিবন্ধ

বাংলাদেশ নৌবাহিনীর বর্তমান নৌবহরে রয়েছে পাঁচটি ক্ষেপণাস্ত্রবাহী ফ্রিগেট, দুইটি টহল ফ্রিগেট, ছয়টি ক্ষেপণাস্ত্রবাহী করভেট এবং অন্যান্য ছোট জাহাজ। বাংলাদেশ নৌবাহিনী তাদের জাহাজের নামের আগে বানৌজা উপসর্গটি ব্যবহার করে যা বাংলাদেশ নৌবাহিনী জাহাজ বুঝায়।

বাংলাদেশ নৌবাহিনীর প্রতীক

ডুবোজাহাজ বহরসম্পাদনা

শ্রেণি ভিডিও ধরন জাহাজ উৎস ওজন টীকা
সক্রিয় (২টি)
টাইপ ০৩৫জি (মিং)
ডিজেল ইলেক্ট্রিক আক্রমণকারী ডুবোজাহাজ বানৌজা নবযাত্রা (এস১৬১)
বানৌজা জয়যাত্রা (এস১৬২)
  গণচীন ১,৬০৯ টন ১২ মার্চ, ২০১৭ সালে কমিশন লাভ করা টর্পেডো ও মাইন অস্ত্রে সজ্জিত এই ডুবোজাহাজ দুটি শত্রু জাহাজ ও ডুবোজাহাজে আক্রমণ করতে সক্ষম। এছাড়া, শত্রু জাহাজের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ এবং বিশেষ যুদ্ধকালীন দায়িত্ব পালন করতে সক্ষম। পাশাপাশি তেল-গ্যাস অনুসন্ধান ক্ষেত্র সমূহের অধিকতর নিরাপত্তা নিশ্চিতের মাধ্যমে দেশের সুনীল অর্থনীতির উন্নয়নে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে।

[১][২][৩][৪][৫]

প্রধান রণপোত বহরসম্পাদনা

ল্যান্ডিং প্ল্যাটফর্ম ডক (এলপিডি):সম্পাদনা

শ্রেণি ভিডিও ধরন জাহাজ উৎস ওজন টীকা
ক্রয় প্রক্রিয়াধীন (১টি)
- - ল্যান্ডিং প্লাটফর্ম ডক - - - ফোর্সেস গোল ২০৩০ বাস্তবায়নের আলোকে নির্মিতব্য জাহাজ।

[৬][৭]

ফ্রিগেট:সম্পাদনা

শ্রেণি ভিডিও ধরন জাহাজ উৎস ওজন টীকা
সক্রিয় (৫টি)
উলসান এফএফ ক্ষেপণাস্ত্রবাহী জাহাজ বানৌজা বঙ্গবন্ধু (এফ২৫)   দক্ষিণ কোরিয়া ২,৫০০ টন জাহাজ এবং বিমান বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র সজ্জিত জাহাজ যা ২০ জুন, ২০০১ সালে কমিশন লাভ করে। জাহাজটি গভীর সমুদ্রে টহল প্রদান, চোরাচালান বিরোধী অভিযান, দূর্ঘটনা পরবর্তী উদ্ধার ও অনুসন্ধান কার্যক্রম, মৎস্য সম্পদ সংরক্ষণ, প্রাকৃতিক দুর্যোগ পরবর্তী উদ্ধার ও ত্রাণ তৎপরতা পরিচালনা, পরিবেশ দূষণ প্রতিরোধসহ সার্বিক কর্মক্ষম সক্ষমতা বৃদ্ধিতে অংশগ্রহণ করে। পাশাপাশি সুনীল অর্থনীতি বাস্তবায়নে সমুদ্রের মূল্যবান সম্পদ রক্ষা এবং দেশের অর্থনৈতিক কল্যাণে কার্যকর ভূমিকা পালন করে।

[৮][৯][১০]

টাইপ ০৫৩এইচ৩ জিয়াংওয়েই-২
ক্ষেপণাস্ত্রবাহী জাহাজ বানৌজা ওমর ফারুক (এফ১৬)
বানৌজা আবু উবাইদাহ (এফ১৯)
  গণচীন ২,৩৯৩ টন জাহাজ এবং বিমান বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র সজ্জিত জাহাজ দুটি ৫ নভেম্বর, ২০২০ সালে কমিশন লাভ করে। গভীর সমুদ্রে দীর্ঘ সময়ব্যাপী মোতায়নযোগ্য এ জাহাজসমূহের মাধ্যমে বিশাল সমুদ্র এলাকায় অবৈধ অনুপ্রবেশ, চোরাচালান রোধ, জলদস্যুতা দমন, সমুদ্রে উদ্ধার তৎপরতা, সুনীল অর্থনীতির বিভিন্ন কর্মকান্ড পরিচালনাসহ মৎস্য ও প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষার পাশাপাশি তেল, গ্যাস অনুসন্ধানের জন্য বরাদ্দকৃত ব্লক সমূহের অধিকতর নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সম্ভব হবে।

[১১][১২][১৩]

টাইপ ০৫৩এইচ২ জিংহু-৩

ক্ষেপণাস্ত্রবাহী জাহাজ বানৌজা আবু বকর (এফ১৫)
বানৌজা আলী হায়দার (এফ১৭)
  গণচীন ২,০০০ টন জাহাজ বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র সজ্জিত জাহাজ দুটি ১ মার্চ, ২০১৪ সালে কমিশন লাভ করে। পরবর্তীতে জাহাজসমূহে লিওনার্দো কোম্পানির নির্মিত সেলেক্স ইএস ৩ডি মাল্টিফাংশনাল রাডার, সি-ব্যান্ড ও অন্যান্য নেভিগেশন সিস্টেম সংযোজন করা হয়। জাহাজ দুটি গভীর সমুদ্রে টহল প্রদান, উদ্ধার ও অনুসন্ধান কার্যক্রম, অবৈধ অনুপ্রবেশ ও চোরাচালান রোধ, জলদস্যুতা দমন, মৎস্য ও প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষায় কার্যকরী ভূমিকা রাখতে সক্ষম।

[১৪][১৫][১৬]

ক্রয় প্রক্রিয়াধীন (৬টি)
- - ক্ষেপণাস্ত্রবাহী জাহাজ -   বাংলাদেশ ≥৪,০০০ টন সামরিক সক্ষমতা বৃদ্ধি এবং ফোর্সেস গোল ২০৩০ বাস্তবায়নের আলোকে গৃহীত প্রকল্প। বৈদেশিক কারিগরি এবং প্রযুক্তিগত সহায়তায় চট্টগ্রাম ড্রাই ডক লিমিটেড কর্তৃক নির্মিতব্য ৬টি জাহাজ।

[৬][১৭][১৮][১৯][২০][২১]

করভেট:সম্পাদনা

শ্রেণি ভিডিও ধরন জাহাজ উৎস ওজন টীকা
সক্রিয় (৬টি)
ক্যাসল
ক্ষেপণাস্ত্রবাহী জাহাজ বানৌজা বিজয় (এফ৩৫)
বানৌজা ধলেশ্বরী (এফ৩৬)
  যুক্তরাজ্য ১,৪৩০ টন ৫ মার্চ, ২০১১ সালে কমিশন লাভ করা জাহাজসমূহকে গণচীনের কারিগরি সহায়তায় জাহাজ বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র ও স্বয়ংক্রিয় গান সিস্টেম দ্বারা সজ্জিত করা হয়।

[২২][১৪][২৩][২৪][২৫]

টাইপ ০৫৬ স্বাধীনতা



ক্ষেপণাস্ত্রবাহী জাহাজ বানৌজা স্বাধীনতা (এফ১১১)
বানৌজা প্রত্যয় (এফ১১২)
বানৌজা সংগ্রাম (এফ১১৩)
বানৌজা প্রত্যাশা (এফ১১৪)
  গণচীন ১,৪০০ টন জাহাজ ও বিমান বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্রে সজ্জিত জাহাজ স্বাধীনতা এবং প্রত্যয় ১৯ মার্চ, ২০১৬ সালে কমিশন লাভ করে। সংগ্রাম এবং প্রত্যাশা যথাক্রমে ১৮ জুন ও ৫ নভেম্বর, ২০২০ সালে কমিশন লাভ করে। প্রতিটি জাহাজ গভীর সমুদ্রে অবৈধ অনুপ্রবেশ, চোরাচালান রোধ, জলদস্যুতা দমন, সমুদ্রে উদ্ধার অভিযান, সুনীল অর্থনীতির বিভিন্ন কর্মকান্ড পরিচালনাসহ মৎস্য ও প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষায় কার্যকরী ভূমিকা রাখতে সক্ষম।

[২৬][২৭][৫][১৪][২৮][১২][২৯]

অফশোর প্যাট্রোল ভেসেল (ওপিভি):সম্পাদনা

শ্রেণি ভিডিও ধরন জাহাজ উৎস ওজন টীকা
সক্রিয় (৫টি)
আইল্যান্ড টহল জাহাজ বানৌজা সাঙ্গু (পি৭১৩)
বানৌজা তুরাগ (পি৭১৪)
বানৌজা কপোতাক্ষ (পি৯১২)
বানৌজা করতোয়া (পি৯১৩)
বানৌজা গোমতি (পি৯১৪)
  যুক্তরাজ্য ১,২৮০ টন গভীর সমুদ্রে টহল প্রদান, উদ্ধার ও অনুসন্ধান কার্যক্রম, অবৈধ অনুপ্রবেশ ও চোরাচালান রোধ, জলদস্যূতা দমন, মৎস্য ও প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষায় কার্যকরী ভূমিকা রাখতে সক্ষম।

[২৩][৩০][৩১][৩২]

ক্রয় প্রক্রিয়াধীন (৬টি)
- - টহল জাহাজ -   বাংলাদেশ ≥২,০০০ টন ফোর্সেস গোল ২০৩০ এর আলোকে চট্টগ্রাম ড্রাই ডক লিমিটেড কর্তৃক নির্মিতব্য ৬টি যুদ্ধজাহাজ।

[৩৩][৩৪][৩৫][৩৬]

লার্জ প্যাট্রোল ক্রাফট (এলপিসি):সম্পাদনা

শ্রেণি ভিডিও ধরন জাহাজ নির্মাতা ওজন টীকা
সক্রিয় (৫টি)
দুর্জয় টহল জাহাজ বানৌজা দুর্জয় (পি৮১১)
বানৌজা নির্মূল (পি৮১৩)
  গণচীন ৬৭৫ টন গণচীনে নির্মিত ক্ষেপণাস্ত্রবাহী বিশেষায়িত জাহাজসমূহ ২৯ আগস্ট, ২০১৩ সালে কমিশন লাভ করে। জাহাজ দুটি যুদ্ধকালীন সময়ে দেশের জলসীমার সার্বভৌমত্ব রক্ষা, বহিঃশত্রুর আক্রমণ প্রতিরোধ এবং শান্তিকালীন সময়ে জলসীমার নিরাপত্তা রক্ষার দায়িত্ব পালন করে।

[১৪][৩৭][৩৮][৩৯][৪০]

বানৌজা দুর্গম (পি৮১৪)
বানৌজা নিশান (পি৮১৫)
  বাংলাদেশ গণচীনের কারিগরি সহায়তায় খুলনা শিপইয়ার্ডে নির্মিত সাবমেরিন বিধ্বংসী বিশেষায়িত জাহাজসমূহ ৮ নভেম্বর, ২০১৭ সালে কমিশন লাভ করে। জাহাজ দুটি যুদ্ধকালীন সময়ে দেশের জলসীমার সার্বভৌমত্ব রক্ষা, সাবমেরিন বিধ্বংসী অভিযান, বাণিজ্যিক জাহাজের নিরাপত্তা রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। এছাড়া, শান্তিকালীন সময়ে জাহাজ দুটি অবৈধ মৎস্য নিধন, জলদস্যুতা, মানবপাচার ও চোরাচালান প্রতিরোধসহ সুনীল অর্থনীতির পরিকল্পনা বাস্তবায়নে কার্যকর ভূমিকা রাখবে।

[৪১][৪২][৪৩][৪৪]

সি ড্রাগন টহল জাহাজ বানৌজা মধুমতি (পি৯১১)   দক্ষিণ কোরিয়া ৬৩৫ টন গভীর সমুদ্রে টহল এবং উদ্ধার অভিযান কার্যক্রমে নিয়োজিত জাহাজ যা ১৮ ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৮ সালে কমিশন লাভ করে।

[৪৫][৪৬]

ক্রয় প্রক্রিয়াধীন (২টি)
- - টহল জাহাজ -   বাংলাদেশ ≥৭০০ টন ১৯ মে, ২০১৯ সালে প্রতিরক্ষা ক্রয় মহাপরিদপ্তর এবং খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেড কর্তৃপক্ষের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। বৈদেশিক কারিগরি ও প্রযুক্তিগত সহায়তায় ক্ষেপণাস্ত্র সজ্জিত ২টি জাহাজ নির্মাণাধীন রয়েছে।

[৭][৪৭][৪৮][৪৯][৫০]

প্যাট্রোল ক্রাফট (পিসি):সম্পাদনা

শ্রেণি ভিডিও ধরন জাহাজ উৎস ওজন টীকা
সক্রিয় (১৮টি)
মেঘনা টহল জাহাজ বানৌজা মেঘনা (পি২১১)
বানৌজা যমুনা (পি২১২)
  সিঙ্গাপুর ৪১০ টন উপকূলীয় অঞ্চলে টহল প্রদান, উদ্ধার ও অনুসন্ধান কার্যক্রম, অবৈধ অনুপ্রবেশ ও চোরাচালান রোধ, জলদস্যূতা দমন, মৎস্য ও প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষায় কার্যকরী ভূমিকা রাখতে সক্ষম।

[৫১]

পদ্মা (ব্যাচ-১)


টহল জাহাজ বানৌজা পদ্মা (পি৩১২)
বানৌজা সুরমা (পি৩১৩)
বানৌজা অপরাজেয় (পি২৬১)
বানৌজা অদম্য (পি২৬২)
বানৌজা অতন্দ্র (পি২৬৩)
  বাংলাদেশ ৩৫০ টন উপকূলীয় অঞ্চলে টহল প্রদান, উদ্ধার ও অনুসন্ধান কার্যক্রম, অবৈধ অনুপ্রবেশ ও চোরাচালান রোধ, জলদস্যূতা দমন, মৎস্য ও প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষায় কার্যকরী ভূমিকা রাখতে সক্ষম। প্রতিটি যুদ্ধজাহাজ গণচীনের কারিগরি সহায়তায় খুলনা শিপইয়ার্ডে নির্মিত হয়।

[১৪][৫২][৫৩][৫৪][৫৫][৫৬][৫৭]

টাইপ ০২১ হুডং টহল জাহাজ বানৌজা দুর্ধর্ষ (পি৮১২৫)
বানৌজা দুর্দান্ত (পি৮১২৬)
বানৌজা দোর্দণ্ড (পি৮১২৮)
বানৌজা অনির্বাণ (পি৮১৩১)
  গণচীন ২০৫ টন জাহাজ বিধ্বংসী সি-৭০৪ ক্ষেপণাস্ত্র দ্বারা সজ্জিত যুদ্ধজাহাজ।

[৫৮][৫৯][৬০]

টাইপ ০২১ হুডং টহল জাহাজ বানৌজা সালাম (পি৭১২)   গণচীন ২০৫ টন উপকূলবর্তী অঞ্চলে টহল প্রদান, উদ্ধার ও অনুসন্ধান কার্যক্রম, অবৈধ অনুপ্রবেশ ও চোরাচালান রোধ, জলদস্যূতা দমন, মৎস্য ও প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষায় কার্যকরী ভূমিকা রাখতে সক্ষম।

[৫৮]

কর্ণফুলী টহল জাহাজ বানৌজা কর্ণফুলী (পি৩১৪)
বানৌজা তিস্তা (পি৩১৫)
  সার্বিয়া ২০২ টন নদী এবং উপকূলবর্তী অঞ্চলে টহল প্রদান, উদ্ধার ও অনুসন্ধান কার্যক্রম, অবৈধ অনুপ্রবেশ ও চোরাচালান রোধ, জলদস্যূতা দমন, মৎস্য ও প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষায় কার্যকরী ভূমিকা রাখতে সক্ষম।

[৬১][৬২]

টাইপ ০৬২ হাইজুই টহল জাহাজ বানৌজা বরকত (পি৭১১)   গণচীন ১৭০ টন নদী এবং উপকূলবর্তী অঞ্চলে টহল প্রদান, উদ্ধার ও অনুসন্ধান কার্যক্রম, অবৈধ অনুপ্রবেশ ও চোরাচালান রোধ, জলদস্যূতা দমন, মৎস্য ও প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষায় কার্যকরী ভূমিকা রাখতে সক্ষম।

[৬৩]

সি ডলফিন টহল জাহাজ বানৌজা তিতাস (পি১০১১)
বানৌজা কুশিয়ারা (পি১০১২)
বানৌজা ধানসিঁড়ি (পি১০১৪)
  দক্ষিণ কোরিয়া ১৪৩ টন নদী এবং উপকূলবর্তী অঞ্চলে টহল, উদ্ধার অভিযান, অবৈধ অনুপ্রবেশ ও চোরাচালান রোধ, জলদস্যূতা দমন, মৎস্য ও প্রাকৃতিক সম্পদ রক্ষায় কার্যকরী ভূমিকা রাখতে সক্ষম।

[৬৪][৬৫]

ক্রয় প্রক্রিয়াধীন (৫টি)
পদ্মা (ব্যাচ-২) - টহল জাহাজ বানৌজা শহীদ দৌলত (পি৪১১)
বানৌজা শহীদ ফরিদ (পি৪১২)
বানৌজা শহীদ মহিবুল্লাহ (পি৪১৩)
বানৌজা শহীদ আক্তার উদ্দিন (পি৪১৪)
বানৌজা শহীদ সালাউদ্দিন (পি৪১৫)
  বাংলাদেশ ৩৫০ টন ২ ডিসেম্বর, ২০১৯ সালে খুলনা শিপইয়ার্ডে নির্মাণ কাজের উদ্বোধন হয়। প্রতিটি জাহাজের প্রস্তাবিত দৈর্ঘ্য ৫১.৬০ মিটার, প্রস্থ ৭.৫০ মিটার, গভীরতা ৪.২০ মিটার এবং সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘন্টায় ২১ নটিক্যাল মাইল। নির্মাণাধীন জাহাজসমূহে ২টি ৩,০৪১ অশ্বশক্তির (২২৭০ কিলোওয়াট) জার্মান এমটিইউ ডিজেল ইঞ্জিন, ২টি ১৮ কিলোওয়াট বিশিষ্ট যুক্তরাজ্যে নির্মিত সিএটি জেনারেটর, ১টি ৩০ মিমি অ্যাসেলসান স্ম্যাশ রিমোট কন্ট্রোলড গান এবং ২টি ১২.৭ মিমি সিআইএস-৫০ মেশিনগান থাকবে। নৌবহরে যুক্ত হওয়ার পর এই যুদ্ধজাহাজসমূহ উপকূলীয় এলাকায় টহল প্রদান, চোরাচালান বিরোধী অভিযান, দূর্ঘটনা পরবর্তী উদ্ধার ও অনুসন্ধান কার্যক্রম, মৎস্য সম্পদ সংরক্ষণ, প্রাকৃতিক দূর্যোগ পরবর্তী উদ্ধার ও ত্রাণ তৎপরতা পরিচালনা, পরিবেশ দূষণ প্রতিরোধসহ সার্বিক অপারেশনাল সক্ষমতা বৃদ্ধিতে অংশগ্রহণ করবে। পাশাপাশি সুনীল অর্থনীতি বাস্তবায়নে সমুদ্রের মূল্যবান সম্পদ রক্ষা এবং দেশের অর্থনৈতিক কল্যাণে কার্যকর ভূমিকা পালন করবে।

[৬৬][৬৭][৫০]

উভচর জাহাজ বহরসম্পাদনা

ল্যান্ডিং ক্রাফট ইউটিলিটি (এলসিইউ):সম্পাদনা

শ্রেণি ভিডিও ধরন জাহাজ উৎস ওজন টীকা
সক্রিয় (১০টি)
সন্দ্বীপ


ল্যান্ডিং ক্রাফট ইউটিলিটি বানৌজা সন্দ্বীপ (এল৯০৩)
বানৌজা হাতিয়া (এল৯০৪)
বানৌজা টুনা (এল৯০৫)
বানৌজা তিমি (এল৯০৬)
বানৌজা ডলফিন (এল৯০৭)
বানৌজা পেঙ্গুইন (এল৯০৮)
  বাংলাদেশ ৪১৫ টন খুলনা শিপইয়ার্ডে নির্মিত প্রতিটি জাহাজ সেনাসদস্য, রসদ, অস্ত্র ও গোলাবারুদ, ট্যাংক, সামরিক যানবাহন এবং বিভিন্ন প্রকার সামরিক সরঞ্জাম পরিবহনে সক্ষম।

[৬৮][৬৯][৭০][৭১][৭২][৭৩][৭৪]

এলসিইউ ১৫১২ - ল্যান্ডিং ক্রাফট ইউটিলিটি বানৌজা শাহ পরান (এল৯০১)
বানৌজা শাহ মকদুম (এল৯০২)
  মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ৩৭৫ টন ১৬ মে, ১৯৯২ সালে কমিশন লাভ করা ৪১.১ মিটার দৈর্ঘ্যের জাহাজ সমূহ ১৭৫ টন ধারণক্ষমতা সম্পন্ন। জাহাজ দুটি যুদ্ধ ও শান্তিকালীন সময়ে সেনাসদস্য, রসদ, অস্ত্র ও গোলাবারুদ, ট্যাংক, সামরিক যানবাহন এবং বিভিন্ন প্রকার সামরিক সরঞ্জাম পরিবহনে সক্ষম।

[৭৫][৭৬]

শাহ আমানত - ল্যান্ডিং ক্রাফট ইউটিলিটি বানৌজা শাহ আমানত (এল৯০০)   ডেনমার্ক ৩৬৬ টন ১৯৯০ সালে কমিশন লাভ করা ৪৭ মিটার দৈর্ঘ্যের জাহাজটি ১৫০ টন ধারণক্ষমতা সম্পন্ন। যা যুদ্ধ ও শান্তিকালীন সময়ে সেনাসদস্য, রসদ, অস্ত্র ও গোলাবারুদ, ট্যাংক, সামরিক যানবাহন এবং বিভিন্ন প্রকার সামরিক সরঞ্জাম পরিবহনে সক্ষম।

[৭৭]

এলসিইউ ল্যান্ডিং ক্রাফট ইউটিলিটি -   বাংলাদেশ - দেশীয় প্রযুক্তিতে নির্মিত নৌযান যা সেনাসদস্য, সামরিক যানবাহন এবং মালামাল পরিবহনে সক্ষম।

ল্যান্ডিং ক্রাফট ট্যাংক (এলসিটি):সম্পাদনা

ক্লাস ভিডিও ধরন জাহাজ উৎস ওজন টীকা
সক্রিয় (৫টি)
এলসিটি ল্যান্ডিং ক্রাফট ট্যাংক বানৌজা এলসিটি ১০৩ (এ৫৮৬)
বানৌজা এলসিটি ১০৫ (এ৫৮৮)
  বাংলাদেশ - ডকইয়ার্ড অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস লিমিটেড কর্তৃক নির্মিত জাহাজসমূহ সেনাসদস্য, রসদ, অস্ত্র ও গোলাবারুদ, ট্যাংক, সামরিক যানবাহন এবং বিভিন্ন প্রকার সামরিক সরঞ্জাম পরিবহনে সক্ষম।

[৭৭][৭৮][৭৯]

টাইপ ০৬৮ ইউচীন ল্যান্ডিং ক্রাফট ট্যাংক বানৌজা এলসিটি ১০১ (এ৫৮৪)
বানৌজা এলসিটি ১০২ (এ৫৮৫)
বানৌজা এলসিটি ১০৪ (এ৫৮৭)
  গণচীন ৮৫ টন নদী এবং উপকূলবর্তী অঞ্চলে উদ্ধার কার্যক্রম পরিচালনা, রসদ, অস্ত্র ও গোলাবারুদ পরিবহন কাজে ব্যবহৃত হয়।
নির্মাণাধীন (৩টি)
- - ল্যান্ডিং ক্রাফট ট্যাংক -   বাংলাদেশ - ১৫ জুন, ২০২২ সালে খুলনা শিপইয়ার্ডে কিল লেয়িং অনুষ্ঠানের মাধ্যমে নির্মাণ কাজের উদ্বোধন হয়। প্রতিটি জাহাজের প্রস্তাবিত দৈর্ঘ্য ৭০ মিটার, প্রস্থ ১৩ মিটার, গভীরতা ৩.৬ মিটার এবং সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ১৫ নটিক্যাল মাইল। নির্মাণাধীন জাহাজসমূহে ২টি ২২৫০ বিএইচপি ক্যাটারপিলার ইঞ্জিন থাকবে। নৌবহরে যুক্ত হওয়ার পর প্রতিটি জাহাজ ৫টি মিডিয়াম আর্টিলারি গান, ৬টি সামরিক ট্যাংক, ১২টি সাঁজোয়া যান, ১৮টি সামরিক ট্রাক ও ৩৫০ জন সেনাসদস্য পরিবহনে সক্ষম হবে।

[৬][৮০][৮১][৮২][৮৩][৮৪]

ল্যান্ডিং ক্রাফট ভেহিকেল অ্যান্ড পার্সোনেল (এলসিভিপি):সম্পাদনা

ক্লাস ভিডিও ধরন জাহাজ উৎস ওজন টীকা
সক্রিয় (৩টি)
এলসিভিপি
ল্যান্ডিং ক্রাফট ভেহিকেল অ্যান্ড পার্সোনেল এলসিভিপি ০১১ (এল০১১)
এলসিভিপি ০১২ (এল০১২)
এলসিভিপি ০১৩ (এল০১৩)
  বাংলাদেশ ৮৩ টন সামরিক সরঞ্জাম, রসদ, অস্ত্র-গোলাবারুদ, সেনাসদস্য এবং সামরিক যানবাহন পরিবহনের জন্য ব্যবহৃত হয়। প্রথম ২টি জাহাজ খুলনা শিপইয়ার্ড এবং পরবর্তী ১টি ডকইয়ার্ড অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস লিমিটেড দ্বারা নির্মিত হয়।

[৭৫][৮৫]

সহায়ক জাহাজ বহরসম্পাদনা

প্রশিক্ষণ জাহাজ:সম্পাদনা

শ্রেণি ভিডিও ধরন জাহাজ উৎস ওজন টীকা
সক্রিয় (১২টি)
হ্যামিল্টন
টহল ফ্রিগেট বানৌজা সমুদ্র জয় (এফ২৮)
বানৌজা সমুদ্র অভিযান (এফ২৯)
  মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ৩,২৫০ টন গভীর সমুদ্রে টহল, উদ্ধার অভিযান এবং প্রশিক্ষণ কার্যক্রম পরিচালনায় ব্যবহৃত হয়।

[১৪][৮৬][৮৭][৮৮]

সি ডলফিন
টহল জাহাজ বানৌজা চিত্রা (পি১০১৩)   দক্ষিণ কোরিয়া ১৪৩ টন নাবিক, অফিসার ক্যাডেট ও অন্যান্য কর্মকর্তাদের কার্যক্রম পরিচালনায় ব্যবহৃত হয়।

[৮৯]

- - ট্রেনিং ভেসেল -   বাংলাদেশ - নদী এবং উপকূলবর্তী অঞ্চলে প্রশিক্ষণ কার্যক্রম পরিচালনার জন্য মেটাসেন্টার লিমিটেড দ্বারা নির্মিত হয়।

[৯০]

- - সেইলিং ভেসেল -   বাংলাদেশ - স্বয়ংক্রিয় ও অন্যান্য ভারীঅস্ত্র ফায়ারিং প্রশিক্ষণ প্রদানের জন্য ৮টি জাহাজ খুলনা শিপইয়ার্ড দ্বারা নির্মিত হয়।

[৯১]

মাইন বিধ্বংসী জাহাজ:সম্পাদনা

শ্রেণি ভিডিও ধরন জাহাজ নির্মাতা ওজন টীকা
সক্রিয় (৪টি)
রিভার - মাইন বিধ্বংসী জাহাজ বানৌজা শাপলা (এম৯৫)
বানৌজা সৈকত (এম৯৬)
বানৌজা সুরভী (এম৯৭)
  যুক্তরাজ্য ৯০৪ টন গভীর সমুদ্রে টহল ও উদ্ধার অভিযান কার্যক্রম পরিচালনায় নিয়োজিত জাহাজ।

[২৩][৯২][৯৩][৯৪][৯৫]

টাইপ ০১০ মাইন বিধ্বংসী জাহাজ বানৌজা সাগর (এম৯১)   গণচীন ৫৬৯ টন গভীর সমুদ্রে টহল ও উদ্ধার অভিযান কার্যক্রম পরিচালনায় নিয়োজিত জাহাজ।

[৯৬]

ক্রয় প্রক্রিয়াধীন (২টি)
- - মাইন বিধ্বংসী জাহাজ -   বাংলাদেশ - গভীর সমুদ্রে মাইন নিষ্ক্রিয়করণ, অপসারণ এবং টহল কার্যক্রম পরিচালনার জন্য নির্মিতব্য ২টি জাহাজ।

[৬]

গবেষণা ও জরিপ জাহাজ:সম্পাদনা

শ্রেণি ভিডিও ধরন জাহাজ উৎস ওজন টীকা
সক্রিয় (৭টি)
রোবাক - জরিপ জাহাজ বানৌজা অনুসন্ধান (এইচ৫৮৪)   যুক্তরাজ্য ১,৩৫০ টন গভীর সমুদ্রে হাইড্রোগ্রাফিক জরীপ, উদ্ধার ও অনুসন্ধান কার্যক্রমে নিয়োজিত বিশেষায়িত জাহাজ যা ২৯ ডিসেম্বর ২০১০ সালে কমিশন লাভ করে।

[৯৭][১৪][২৩][৯৮]

রিভার - জরিপ জাহাজ বানৌজা শৈবাল (এম৯৮)   যুক্তরাজ্য ৯০৪ টন গভীর সমুদ্রে হাইড্রোগ্রাফিক জরীপ, গবেষণা, টহল প্রদান, উদ্ধার ও অনুসন্ধান কার্যক্রম পরিচালনায় নিয়োজিত জাহাজ।

[২৩][৯৯][১০০]

অগ্রদূত জরিপ জাহাজ বানৌজা অগ্রদূত (এইচ৫৮৩)   বাংলাদেশ - ৪৫ মিটার দৈর্ঘ্যের উপকূলীয় জরিপ জাহাজটি ১৯৯৬ সালে বাণিজ্যিক পরিষেবা থেকে অধিগ্রহণ করে পুনঃসংস্করণের মাধ্যমে ১৯৯৮ সালে কমিশন লাভ করে। পরবর্তীতে ২০১০ সালে কংসবার্গ গ্রুপেন ইএ-৪০০ একক-বিম ইকো সাউন্ডার দ্বারা সজ্জিত করা হয়।

[১০১][১০২]

দর্শক জরিপ জাহাজ বানৌজা দর্শক (এইচ৫৮১)
বানৌজা তল্লাশী (এইচ৫৮২)
  বাংলাদেশ - ৫ নভেম্বর, ২০২০ সালে কমিশন লাভ করা জাহাজ দুটির উপকূলীয় এলাকায় সকল ধরনের হাইড্রোগ্রাফিক এবং ওশানোগ্রাফিক তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করার সক্ষমতা রয়েছে। খুলনা শিপইয়ার্ডে নির্মিত প্রতিটি জাহাজের দৈর্ঘ্য ৩৪.৭৮ মিটার, প্রস্থ ৮.৪০ মিটার, গভীরতা ৩.১৭ মিটার এবং জাহাজসমূহ ২টি ৬০০‌ অশ্বশক্তির ইঞ্জিন সজ্জিত দ্বারা সজ্জিত।

[১১][১২][১০৩]

জরিপ বোট
জরিপ জাহাজ বানৌজা জরিপ বোট-১ (জেবি-০১)
বানৌজা জরিপ বোট-২ (জেবি-০২)
  বাংলাদেশ ১৭.৫ টন নদী এবং উপকূলবর্তী অঞ্চলে জরিপ এবং গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনার জন্য জাহাজ দুটি খুলনা শিপইয়ার্ডে নির্মিত হয়। প্রতিটি জাহাজের দৈর্ঘ্য ১৪.৭ মিটার, প্রস্থ ৫.১ মিটার এবং গভীরতা ১.৫ মিটার। জাহাজসমূহে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ২টি ৩০১ অশ্বশক্তির কামিন্স ইঞ্জিন এবং যুক্তরাজ্যে নির্মিত ২টি ২২.৪ কিলোওয়াট বিশিষ্ট বেটা মেরিন জেনারেটর রয়েছে।

[১০৪][১০৫][১০৬]

ক্রয় প্রক্রিয়াধীন (১টি)
- - জরিপ জাহাজ -   বাংলাদেশ ≥১০০ টন গভীর সমুদ্রে বিভিন্ন প্রকার জরিপ কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ডকইয়ার্ড অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস লিমিটেড দ্বারা নির্মিতব্য ১টি জাহাজ।

[৬][১০৭]

রসদ ও জ্বালানিবাহী জাহাজ:সম্পাদনা

শ্রেণি ভিডিও ধরন জাহাজ উৎস ওজন টীকা
সক্রিয় (২টি)
খান জাহান আলী জ্বালানিবাহী জাহাজ বানৌজা খান জাহান আলী (এ৫১৫)   বাংলাদেশ ৪,০০০ টন ৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৫ সালে কমিশন লাভ করা ৭৯.৮৫ মিটার দৈর্ঘ্যের জাহাজটি আনন্দ শিপইয়ার্ডে নির্মিত হয় যা ২,৪০০ টন ডিজেল এবং ১২০ টন বিমানের জ্বালানি ধারণক্ষমতা সম্পন্ন।

[৭০][১০৮][১০৯]

নৌ কল্যাণ - উপকূলীয় কন্টেইনার জাহাজ এমভি নৌ কল্যাণ-১
এমভি নৌ কল্যাণ-২
  বাংলাদেশ - রসদ, অস্ত্র-গোলাবারুদ এবং বিভিন্ন সামরিক সরঞ্জাম পরিবহনের জন্য খুলনা শিপইয়ার্ডে নির্মিত হয়।

[১৪][১১০][১১১]

ক্রয় প্রক্রিয়াধীন (২টি)
- - রসদবাহী জাহাজ -   বাংলাদেশ - রসদ, অস্ত্র-গোলাবারুদ ও অন্যান্য সামরিক সরঞ্জাম পরিবহনের জন্য নির্মিতব্য ১টি জাহাজ।

[৬]

- - জ্বালানিবাহী জাহাজ -   বাংলাদেশ - গভীর সমুদ্রে টহলরত জাহাজসমূহে জ্বালানি সরবরাহের জন্য নির্মিতব্য ১টি জাহাজ।

[৬]

কারিগরি সহায়ক জাহাজ:সম্পাদনা

শ্রেণি ভিডিও ধরন জাহাজ উৎস ওজন টীকা
সক্রিয় (২টি)
সুন্দরবন - ভাসমান ড্রাইডক বিএনএফডি সুন্দরবন (এ৭১১)   সার্বিয়া - ১৫ আগস্ট, ১৯৮০ সালে ক্রয় করা ভাসমান ড্রাইডকটি টিটো শিপইয়ার্ড, ট্রোগির, যুগোস্লাভিয়া কর্তৃক নির্মিত হয়। ১১৭ মিটার দৈর্ঘ্য এবং ২৭.৬ মিটার প্রস্থের ভাসমান ড্রাইডকটির উত্তোলন ক্ষমতা ৩,৫০০ টন।

[১১২][১১৩]

বলবান - স্ব-চালিত ভাসমান ক্রেন বিএনএফসি বলবান (এ৭৩১)   বাংলাদেশ ৬৫০ টন ১৮ মে, ১৯৮৮ সালে কমিশন লাভ করা ৭০ টন উত্তোলন ক্ষমতা সম্পন্ন স্ব-চালিত ভাসমান ক্রেনটি খুলনা শিপইয়ার্ডে নির্মিত হয়।

[১১৪]

ক্রয় প্রক্রিয়াধীন (২টি)
- - ভাসমান ড্রাইডক - - - নৌবহরের অন্যান্য জাহাজের রক্ষণাবেক্ষণ, মেরামত এবং অন্যান্য কারিগরি সহায়তা প্রদানের লক্ষ্যে নির্মিতব্য ১টি ভাসমান ড্রাইডক।

[৬][১১৫][১১৬]

- - স্ব-চালিত ভাসমান ক্রেন -   বাংলাদেশ - অন্যান্য জাহাজের দূর্ঘটনাকালীন সহযোগিতা এবং ডুবন্ত জাহাজের উদ্ধার অভিযান কার্যক্রম পরিচালনার জন্য খুলনা শিপইয়ার্ডে নির্মিতব্য ১টি জাহাজ।

ডুবুরি সহায়ক জাহাজ:সম্পাদনা

শ্রেণি ভিডিও ধরন জাহাজ উৎস ওজন টীকা
সক্রিয় (১টি)
শাহ জালাল - ডাইভিং সার্পোট ভেসেল বানৌজা শাহ জালাল (এ৫১৩)   জাপান ৬০০ টন [৫৯][১১৭]
নির্মাণাধীন (৩টি)
- - ডাইভিং সার্পোট ভেসেল -   বাংলাদেশ ≥২৬০ টন ১০ জুন, ২০২১ সালে কিল লেয়িং অনুষ্ঠানের মাধ্যমে খুলনা শিপইয়ার্ডে নির্মাণ কাজের উদ্বোধন হয়। প্রতিটি জাহাজের প্রস্তাবিত দৈর্ঘ্য ৩৮.৪ মিটার, প্রস্থ ৪ মিটার, গভীরতা ৪.৫ মিটার এবং সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ১৫ নটিক্যাল মাইল। নির্মাণাধীন জাহাজসমূহে ১২০০ কিলোওয়াটের ২টি ১৬০৯ এইচপি ক্যাটারপিলার ডিজেল ইঞ্জিন এবং ২টি ২৫০ কিলোওয়াটের ৩৩৫ এইচপি ক্যাটারপিলার জেনারেটর থাকবে।

[৬][১১৮][১১৯][১২০][১২১]

টাগবোট:সম্পাদনা

শ্রেণি ভিডিও ধরন জাহাজ উৎস ওজন টীকা
সক্রিয় (৬টি)
টাইপ ৮৩৭ হুজিউ - ফ্লিট ওশান টাগবোট বানৌটা খাদেম (এ৭২১)   গণচীন ১,৪৭২ টন ৬ মে, ১৯৮৪ সালে কমিশন লাভ করা জাহাজটি উহু শিপইয়ার্ডে নির্মিত হয়।

[১২২]

হালদা

সাবমেরিন টাগবোট বানৌটা হালদা (এ৭২৫)
বানৌটা পশুর (এ৭২৬)
  বাংলাদেশ ৮৬০ টন ৮ নভেম্বর, ২০১৭ সালে কমিশন লাভ করা জাহাজ সমূহ ডামেন গ্রুপ এবং মালয়েশিয়ান কারিগরি সহায়তায় খুলনা শিপইয়ার্ডে নির্মিত হয়। টাগবোট দুটি বহিঃনোঙ্গরে ও পোতাশ্রয়ে সাবমেরিনের নিরাপত্তা নিশ্চিতের পাশাপাশি নৌবাহিনীর অন্যান্য জাহাজ এবং বাণিজ্যিক জাহাজকে টোয়িং সহযোগিতা প্রদান, পোতাশ্রয়ে ও সমুদ্রে অগ্নিনির্বাপণ এবং উদ্ধারকারী জাহাজ হিসেবে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে।

[৪৪][১২৩][১২৪][১২৫]

সেবক ফ্লিট কোস্টাল টাগবোট বানৌটা সেবক (এ৭২২)   বাংলাদেশ ৪০০ টন [১২৬]
ডামেন স্ট্যান ৩০০৮ টাগ ফ্লিট কোস্টাল টাগবোট বানৌটা রূপসা (এ৭২৩)
বানৌটা শিবসা (এ৭২৪)
  বাংলাদেশ ৩৩০ টন ৩ অক্টোবর, ২০০৪ সালে কমিশন লাভ করা জাহাজ সমূহ ডামেন গ্রুপের কারিগরি সহায়তায় দক্ষিণ কোরিয়ান সরঞ্জাম এবং উপকরণ দ্বারা খুলনা শিপইয়ার্ডে নির্মিত হয়।

[১২৭]

ক্রয় প্রক্রিয়াধীন (৩টি)
- - টাগবোট -   বাংলাদেশ - বৈদেশিক কারিগরি এবং প্রযুক্তিগত সহায়তায় খুলনা শিপইয়ার্ডে নির্মিতব্য ১টি অত্যাধুনিক জাহাজ।

[৬]

- - টাগবোট -   বাংলাদেশ - বৈদেশিক কারিগরি এবং প্রযুক্তিগত সহায়তায় ডকইয়ার্ড অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস লিমিটেড কর্তৃক নির্মিতব্য ২টি জাহাজ।

[১২৮]

পন্টুন এবং বার্জ:সম্পাদনা

শ্রেণি ভিডিও ধরন সংখ্যা উৎস ওজন টীকা
সক্রিয় (-)
পন্টুন সামরিক পন্টুন -   বাংলাদেশ - নদী এবং উপকূলবর্তী অঞ্চলে অস্থায়ী জেটি স্থাপন ও অন্যান্য জাহাজ সমূহকে সার্বিক সহযোগিতা করার জন্য বাংলাদেশ নৌবাহিনী ডকইয়ার্ড, খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেড এবং ডকইয়ার্ড অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস লিমিটেড কর্তৃক নির্মিত হয়।
বার্জ সামরিক বার্জ -   বাংলাদেশ - অভ্যন্তরীণ নদী এবং উপকূলবর্তী অঞ্চলে সামরিক মালামাল পরিবহন, দক্ষিণ সুদানে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে নিয়োজিত বাংলাদেশ ফোর্স মেরিন ইউনিটের সার্বিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেড এবং ডকইয়ার্ড অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস লিমিটেড কর্তৃক নির্মিত হয়।
ব্যারাক বার্জ সামরিক ব্যারাক বার্জ -   সংযুক্ত আরব আমিরাত - জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনের অধীনে দক্ষিণ সুদানে নিয়োজিত বাংলাদেশ ফোর্স মেরিন ইউনিট কর্তৃক ব্যবহৃত হয়।

[১২৯][১৩০]

টেন্ডার জাহাজ:সম্পাদনা

শ্রেণি ভিডিও ধরন জাহাজ উৎস ওজন টীকা
সক্রিয় (৩টি)
এমএফভি ৫৫ - ফ্লিট টেন্ডার বানৌজা এমএফভি ৫৫   বাংলাদেশ -
এমএফভি ৬৬ - ফ্লিট টেন্ডার বানৌজা এমএফভি ৬৬   বাংলাদেশ -
সংকেত - ফ্লিট টেন্ডার এমভি সংকেত   বাংলাদেশ - নদী এবং উপকূলবর্তী অঞ্চলে অন্যান্য যুদ্ধজাহাজ সমূহের সার্বিক সহযোগিতার জন্য ১৯৮৩ সালে হাইস্পিড শিপইয়ার্ডে জাহাজটি নির্মিত হয়।২টি ১৪০০ এইচপি জার্মান ডুয়েটজ ইঞ্জিন সজ্জিত জাহাজটির সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ২৩ নটিক্যাল মাইল।

[১৩১]

অনুসন্ধান এবং উদ্ধারকারী জাহাজ:সম্পাদনা

শ্রেণি ভিডিও ধরন জাহাজ উৎস ওজন টীকা
সক্রিয় (-)
মেটাল শার্ক
র‍্যাপিড রেসপন্স বোট -   মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ৭.৬ টন নদী বা উপকূলবর্তী অঞ্চলে টহল কার্যক্রম এবং উদ্ধার অভিযান পরিচালনায় ব্যবহৃত হয়।

[১৩২][১৩৩][১৩৪][১৩৫]

ডিফেন্ডার

র‍্যাপিড রেসপন্স বোট -   মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ৮.৫ টন নদী বা উপকূলবর্তী অঞ্চলে টহল কার্যক্রম এবং উদ্ধার অভিযান পরিচালনায় ব্যবহৃত হয়।

[১৩৬][১৩৭][১৩৮][১৩৯][১৪০]

আরআইবি ৩৪' এসএফ - ফাস্ট প্যাট্রোল বোট -   ইটালি - নদী এবং উপকূলবর্তী অঞ্চলে টহল কার্যক্রম, উদ্ধার অভিযান এবং জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ইটালিয়ান কোম্পানি এফবি ডিজাইন কর্তৃক নির্মিত হয়।

[১৪১][১৪২][১৪৩]

এক্স-১২ কম্ব্যাট ক্রাফট

হারবার প্যাট্রোল বোট ০৮টি   বাংলাদেশ ১০.৭ টন নদী বা উপকূলবর্তী অঞ্চলে টহল কার্যক্রম এবং উদ্ধার অভিযান পরিচালনায় ব্যবহৃত হয়।

[১৪৪][১৪৫][১৪৬][১৪৭][১৪৮]

সীহর্স-১৩
ইন্টারসেপ্টর বোট ২টি   বাংলাদেশ - নদী বা উপকূলবর্তী অঞ্চলে টহল কার্যক্রম পরিচালনা এবং অপরাধ দমনে ব্যবহৃত হয়।

[১৪৫][১৪৯]

ইয়ামাহা ওয়াইপিএফ ৩৭ ফাস্ট প্যাট্রোল বোট -   বাংলাদেশ - নদী বা উপকূলবর্তী অঞ্চলে টহল কার্যক্রম এবং উদ্ধার অভিযান পরিচালনায় ব্যবহৃত হয়।
জিএফ ৪৬ মিনিস্টার কেবিন ক্রুজার - ফাস্ট প্যাট্রোল বোট -   বাংলাদেশ ১৬ টন নদী বা উপকূলবর্তী অঞ্চলে টহল কার্যক্রম এবং উদ্ধার অভিযান পরিচালনায় ব্যবহৃত হয়।

[১৪৯]

জিএফ ৩২ কেবিন ক্রুজার - ফাস্ট প্যাট্রোল বোট -   বাংলাদেশ - নদী বা উপকূলবর্তী অঞ্চলে টহল কার্যক্রম এবং উদ্ধার অভিযান পরিচালনায় ব্যবহৃত হয়।

[১৫০][১৫১]

ইয়ামাহা এমএফজি ৩৩ এক্সএলসি - ফাস্ট প্যাট্রোল বোট -   বাংলাদেশ - নদী বা উপকূলবর্তী অঞ্চলে টহল কার্যক্রম এবং উদ্ধার অভিযান পরিচালনায় ব্যবহৃত হয়।

[১৫২]

এএল ২১০পি
-
- ফাস্ট প্যাট্রোল বোট ২টি
৬টি
  গণচীন - গণচীনে নির্মিত ২টি ২১ মিটার ও ৬টি ১৫ মিটার দৈর্ঘ্যের স্পিড বোট সমূহ ভাসানচর আশ্রয়ন প্রকল্পের সার্বিক নিরাপত্তা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ এবং টহল কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ব্যবহৃত হয়।

[১৫৩][১৫৪][১৫৫]

- রিজিড হাল ইনফ্ল্যাটেবল বোট -   মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র - নদী বা উপকূলবর্তী অঞ্চলে টহল কার্যক্রম এবং উদ্ধার অভিযান পরিচালনায় ব্যবহৃত হয়।

[১৫৬][১৫৭][১৫৮][১৫৯]

পোলারিস কমান্ডো - রিজিড হাল ইনফ্ল্যাটেবল বোট -   কানাডা - নদী বা উপকূলবর্তী অঞ্চলে টহল কার্যক্রম এবং উদ্ধার অভিযান পরিচালনায় ব্যবহৃত হয়।
আসিস - রিজিড হাল ইনফ্ল্যাটেবল বোট -   সংযুক্ত আরব আমিরাত - নদী বা উপকূলবর্তী অঞ্চলে টহল কার্যক্রম এবং উদ্ধার অভিযান পরিচালনায় ব্যবহৃত হয়।

[১৬০]

জেবেক ৫০০ এআর - রিজিড হাল ইনফ্ল্যাটেবল বোট -   দক্ষিণ কোরিয়া - নদী বা উপকূলবর্তী অঞ্চলে টহল কার্যক্রম এবং উদ্ধার অভিযান পরিচালনায় ব্যবহৃত হয়।
টাইগার মেরিন ৪২০ - রিজিড হাল ইনফ্ল্যাটেবল বোট -   নেদারল্যান্ডস - নদী বা উপকূলবর্তী অঞ্চলে টহল কার্যক্রম এবং উদ্ধার অভিযান পরিচালনায় ব্যবহৃত হয়।
ডাচ হেলথ বোটস - সার্চ এন্ড রেসকিউ বোট ১৫টি   নেদারল্যান্ডস - ৯.২ মিটার দৈর্ঘ্য এবং ঘন্টায় সর্বোচ্চ ৪২ নটিক্যাল মাইল গতিতে চলতে সক্ষম প্রতিটি বোট দুর্যোগ পরবর্তী উদ্ধার অভিযান কার্যক্রমে ব্যবহৃত হয়।

[১৬১]

ক্রয় প্রক্রিয়াধীন (-)
- - ডুবোজাহাজ সহায়ক এবং উদ্ধারকারী জাহাজ - - - ফোর্সেস গোল ২০৩০ বাস্তবায়নের আলোকে নির্মিতব্য ১টি জাহাজ।

[৬]

- - অনুসন্ধান এবং উদ্ধারকারী জাহাজ -   বাংলাদেশ - গভীর সমুদ্রে অনুসন্ধান ও উদ্ধার অভিযান পরিচালনার জন্য ডকইয়ার্ড অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস লিমিটেড কর্তৃক নির্মিতব্য ১টি জাহাজ।

[১৬২]

মেডিকেল সাপোর্ট ভেসেল - র‍্যাপিড রেসপন্স ওয়াটার অ্যাম্বুলেন্স -   বাংলাদেশ - নদী ও উপকূলবর্তী অঞ্চলে দ্রুত চিকিৎসা সেবা প্রদানের জন্য ডকইয়ার্ড অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস লিমিটেড কর্তৃক নির্মিতব্য জাহাজ।

[১৬৩][১৬৪]

- - ফাস্ট প্যাট্রোল বোট ২টি   বাংলাদেশ - ডকইয়ার্ড অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস লিমিটেড কর্তৃক নির্মিতব্য ২টি ২০ মিটার দৈর্ঘ্যের জাহাজ।

[১৬৫]

- - ফাস্ট প্যাট্রোল বোট ৬টি
৭টি
  বাংলাদেশ - ডকইয়ার্ড অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস লিমিটেড কর্তৃক নির্মিতব্য ৬টি ২০ মিটার এবং ৭টি ১৪ মিটার দৈর্ঘ্যের জাহাজ।

[১৬৬]

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "বাংলাদেশ নৌবাহিনী প্রধানের নিকট প্রথমবারের মত দুটি সাবমেরিন হস্তান্তর করলো চীন সরকার"আইএসপিআর। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৭ 
  2. "প্রথমবারের মত দু'টি সাবমেরিন সংযোজনের মাধ্যমে ত্রিমাত্রিক শক্তি হিসেবে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর আত্মপ্রকাশ– সাবমেরিন 'নবযাত্রা' ও 'জয়যাত্রা' এর কমিশনিং করলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা"আইএসপিআর। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৭ 
  3. "বাংলাদেশ নৌবাহিনীতে যুক্ত হলো দুটি সাবমেরিন"বিবিসি বাংলা। ১২ মার্চ ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ২৭ নভেম্বর ২০২১ 
  4. "যুক্ত হলো দুই সাবমেরিন, ত্রিমাত্রিক যাত্রায় নৌবাহিনী" 
  5. "বাংলাদেশ নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজ ও সাবমেরিন নিয়ে ইত্যাদির তথ্যসমৃদ্ধ প্রতিবেদন" 
  6. "২০০৯-২০২০ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ নৌবাহিনীর সাফল্য ও অগ্রগতি" (PDF)প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১২-৩০ 
  7. "Webinar 2: Navy Power and Future Plans in South Asia" 
  8. "UNROCA (United Nations Register of Conventional Arms)"www.unroca.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৭ 
  9. "Join Bangladesh Navy"joinnavy.navy.mil.bd। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৭ 
  10. "DIMDEX 2018 Visiting Warships Doha Qatar Maritime Defense Exhibition" 
  11. "নৌবাহিনীর নতুন তিনটি আধুনিক যুদ্ধজাহাজ 'ওমর ফারুক', 'আবু উবাইদাহ', 'প্রত্যাশা', এবং দুইটি জরিপ জাহাজ 'দর্শক'এবং 'তল্লাশী'এর কমিশনিং করলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা"আইএসপিআর। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৭ 
  12. "আরো এক ধাপ এগিয়ে গেল নৌবাহিনী- Bangladesh Navy" 
  13. "মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক বানৌজা এর কমিশনিং অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ" 
  14. "গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ০৭ (সাত) বছরের অগ্রগতির তথ্য প্রচারের ব্যবস্থাকরণ সম্পর্কিত" (PDF)। ২০১৬-০৪-০৭। 
  15. "বাংলাদেশ ও ভারত নৌবাহিনীর মধ্যকার যৌথ টহলে অংশ নিতে নৌবাহিনীর দুটি যুদ্ধজাহাজ 'আবু বকর' ও 'ধলেশ¡রী' এর চট্টগ্রাম ত্যাগ"আইএসপিআর। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৮ 
  16. "জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর বানৌজা আলী হায়দার শত্রুপক্ষের আতঙ্ক" 
  17. "Chittagong Dry Dock Limited | CDDL" 
  18. "সংসদ ভবন থেকে সরাসরি" 
  19. "Indigenous capital warship building in Bangladesh:challenges and ways to forward"National Defence College E-Journal (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-০২ 
  20. "One stop hardware acquisition trend in Bangladesh Navy:challenges and ways forward"National Defence College E-Journal (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-০২ 
  21. "Scots public-owned shipyard in talks to build warships for Bangladesh Navy"The Scottish Sun (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২২-০৪-১৭। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৪-১৯ 
  22. "বানৌজা ধলেশ্বরী এবং বিজয় - কমিশনিং অনুষ্ঠান" (PDF)প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৮-১২ 
  23. "Sailing under a different flag – former Royal Navy vessels serving with other navies | Navy Lookout"www.navylookout.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৭ 
  24. "অন্য দেশের সমুদ্র সীমা রক্ষার পাশাপাশি বিনামুল্যে চিকিৎসা সেবায় বাংলাদেশ নৌ বাহিনী 21Jul.19" 
  25. "সংযুক্ত আরব আমিরাতে অনুষ্ঠিতব্য INTERNATIONAL DEFENCE EXHIBITION (IDEX-2019) এ অংশ নিতে নৌবাহিনী যুদ্ধজাহাজ ধলেশ¡রী এর মোংলা বন্দর ত্যাগ"আইএসপিআর। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১২-০৬ 
  26. "বানৌজা স্বাধীনতা, সমুদ্র অভিযান এবং বানৌজা প্রত্যয় এর কমিশনিং অনুষ্ঠান" (PDF)প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৮-১২ 
  27. "IMDEX Asia 2019 Day 3 – RSN Unmanned Systems, HTMS Bhumibol Adulyadej, BNS Shadhinota, Kyansitthar" 
  28. "গণচীন হতে দেশে পৌঁছেছে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর নতুন দুটি যুদ্ধজাহাজ 'সংগ্রাম' ও 'প্রত্যাশা'"আইএসপিআর। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৬-২৪ 
  29. "PM commissions warship 'BNS Sangram'" 
  30. "UNROCA (United Nations Register of Conventional Arms)"www.unroca.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৭ 
  31. "সাধারণ মানুষের পরিদর্শনের জন্য উন্মুক্ত নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজ | Naval Ship | Independence Day 2022" 
  32. "বানৌজা করতোয়া এর নিম্নেবর্ণিত কাজের জন্য যোগ্য ও উপযুক্ত মেরামতকারী প্রতিষ্ঠান সমূহের নিকট হতে দরপত্র আহব্বান করা যাচ্ছে" (PDF)কমডোর সুপারিনটেনডেন্ট ডকইয়ার্ড, নিউমুরিং, চট্টগ্রাম। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৬-১০ 
  33. "Building warships locally"Building warships locally | theindependentbd.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৮ 
  34. "CDDL: Bangladesh Navy orders six offshore patrol vessels"Naval Today (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২০-০১-২৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৮ 
  35. Team, ESD Editorial (২০২০-০৩-১০)। "The Bangladesh Navy – An Available, Adaptive and Affordable Force"European Security & Defence (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১২-২৮ 
  36. Ferguson, John; Glover, John (২০২২-০৪-১৮)। "Scots ferry fiasco yard sets its sights on building warships for the Bangladesh navy"businessInsider (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৪-২০ 
  37. "বানৌজা বঙ্গবন্ধুকে ন্যাশনাল স্ট্যান্ডার্ড প্রদান, এমপিএ সংযোজন এবং বানৌজা দুর্জয়, নির্মূল ও সুরমার কমিশনিং অনুষ্ঠান" (PDF)প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়। সংগ্রহের তারিখ ২২ জুন ২০২২ 
  38. "Full Video || বঙ্গোপসাগরে নৌবাহিনীর মিসাইল উৎক্ষেপণ মহড়া 16Jan.20| Bangladesh Navy Missiles" 
  39. "শান্তি রক্ষায় তৎপর বানৌজা নির্মূল" 
  40. "ভূ-মধ্যসাগরে শান্তিরক্ষার দায়িত্ব পালন শেষে দেশে ফিরেছে নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজ 'আলী হায়দার' ও 'নির্মূল'"আইএসপিআর। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৮ 
  41. "LARGE PATROL CRAFT – Khulna Shipyard Ltd" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৭ 
  42. "Technical Specifications of 2×Large Patrol Craft for Bangladesh Navy"Khulna Shipyard Ltd (ইংরেজি ভাষায়)। ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০২২ 
  43. "দেশেই তৈরী হলো নৌ-বাহিনীর জন্য বড় ২টি যুদ্ধ জাহাজ" 
  44. "মহামান্য রাষ্ট্রপতি খুলনা শীপইয়ার্ডে নির্মিত সর্ববৃহৎ যুদ্ধজাহাজ দুর্গম ও নিশান এবং সাবমেরিন টাগ পশুর ও হালদা নৌবহরে কমিশনিং করলেন"আইএসপিআর। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৮ 
  45. "জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশন ইউনিফিল (লেবানন) এ অংশ নিতে নৌবাহিনীর ১৩৫ জন নৌ সদস্যের চট্টগ্রাম ত্যাগ"আইএসপিআর। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-০২ 
  46. "Warship building in Bangladesh, problems and prospects: analysis and recommendations"National Defence College E-Journal (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-০২ 
  47. "Tender Specification for Construction of 02 X Large Patrol Craft (LPC) in Local Shipyard for BN" (PDF)dgdp.gov.bd। Directorate General of Defence Purchase। ২০ মে ২০২১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ মে ২০২১ 
  48. "ADA Sınıfı Korvet ve ATMACA Bangladeş'te kısa listeye girdi | SavunmaSanayiST" (তুর্কী ভাষায়)। ২০২০-১২-০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-২১ 
  49. MSI (২০২০-০৩-৩১)। "Brigadier General Md Tariqul Alam TARIQ, the Defence Attaché of Bangladesh to Turkey: "Turkish companies are winning the tenders for product compatibility, lower price and easy after sale service.""savunmahaber.com (তুর্কী ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-০২ 
  50. "বাংলাদেশ নৌবাহিনীতে নতুন যুদ্ধজাহাজ 'শহীদ দৌলত' | BD Navy | Navy Ship | Somoy TV" 
  51. "ঘূর্ণিঝড় 'ফণী' পরবর্তী দূর্গত এলাকায় জরুরি ত্রাণ ও চিকিৎসা সহায়তা শুরু করেছে বাংলাদেশ নৌবাহিনী"আইএসপিআর। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১২-০৬ 
  52. "PATROL CRAFT – Khulna Shipyard Ltd" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৮ 
  53. "মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে নৌবাহিনীর জাহাজ সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত"আইএসপিআর। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৬-১৭ 
  54. "বানৌজা অপরাজেয়... | Barta24.com" 
  55. "সশস্ত্র বাহিনী দিবসে চাঁদপুরে অদম্যের প্রদর্শনী | Bangladesh Navy | Chandpur" 
  56. "সশস্ত্র বাহিনী দিবসে চাঁদপুরে যুদ্ধ জাহাজ" 
  57. "বানৌজা অতন্দ্র এর নিম্নেবর্ণিত কাজের জন্য যোগ্য ও উপযুক্ত মেরামতকারী প্রতিষ্ঠান সমূহের নিকট হতে দরপত্র আহব্বান করা যাচ্ছে" (PDF)কমডোর সুপারিনটেনডেন্ট ডকইয়ার্ড, নিউমুরিং, চট্টগ্রাম। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৬-১০ 
  58. "Project 205 (Osa) class | The milestone of the missile boat" 
  59. "পানগাঁও বন্দরে বিশ্রামরত বাংলাদেশ নৌবাহিনীর কিছু জাহাজ | বানৌজা শাহ জালাল | Bangladesh Navy Ships" 
  60. "বানৌজা দুর্দান্ত এর নিম্নেবর্ণিত কাজের জন্য যোগ্য ও উপযুক্ত মেরামতকারী প্রতিষ্ঠান সমূহের নিকট হতে দরপত্র আহব্বান করা যাচ্ছে" (PDF)কমডোর সুপারিনটেনডেন্ট ডকইয়ার্ড, নিউমুরিং, চট্টগ্রাম। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৬-১০ 
  61. "বানৌজা কর্ণফুলী বাংলাদেশ নৌবাহিনীর একটি ক্রালজেভিকা শ্রেনীর"bn.freejournal.info। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৭ 
  62. "যুদ্ধজাহাজে তিন ঘণ্টা" 
  63. "যুদ্ধ জাহাজ ঘুরে দেখার সুযোগ পেল জনসাধারণ | Armed Forces Day | Somoy TV" 
  64. "সাধারণ মানুষের পরিদর্শনের জন্য উন্মুক্ত নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজ | Naval Ship | Independence Day 2022" 
  65. "BNS Dhansiri- Bangladesh Navy (BN), Ship Repair"Dockyard and Engineering Works Limited, Bangladesh Navy। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-৩০ 
  66. "খুলনা শিপইয়ার্ডে পাঁচটি প্যাট্রোল ক্র্যাফটের কিল লেয়িং করলেন নৌবাহিনী প্রধান"আইএসপিআর। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১২-০৬ 
  67. "5 x Patrol Craft BN – Khulna Shipyard Ltd" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৭ 
  68. "LANDING CRAFT UTILITY – Khulna Shipyard Ltd" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৭ 
  69. "বাংলাদেশ নৌবাহিনীতে বানৌজা কে জে আলী, বানৌজা সন্দীপ ও বানৌজা হাতিয়া এর কমিশনিং, নবনির্মিত এলসিটি-১০৩ ও এলসিটি-১০৫ সংযুক্তিকরণ অনুষ্ঠান"। ২০২১-১২-৩০। 
  70. "প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মংলায় অয়েল ফ্লিট ট্যাঙ্কার কমিশনিং এবং ল্যান্ডিং ক্রাফট ইউটিলিটি (এলসিইউ) সংযুক্তকরণ উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানে ভাষণ দেন"pmo.gov.bd/। ২০১৫-০৯-০৬। 
  71. "রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে পাঠাতে তৈরি হচ্ছে ৪টি জাহাজ"Dhaka Tribune Bangla। ২০১৯-১১-১৯। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৮ 
  72. "জাতিসংঘের মালামাল নিয়ে ভাসানচরে নৌবাহিনীর দুই জাহাজ | Rohingya News | UNHCR | Bhasan Char" 
  73. "নিরাপত্তা জোরদার করা হচ্ছে ভাসানচরে! | Rohinga | Char Vasan | UNHCR Help | Somoy TV" 
  74. "আবারও শুরু হলো নৌবাহিনীর জাহাজে রোহিঙ্গা স্থানান্তর | Rohingya News | Bangladesh Navy | Bhasan Char" 
  75. "ঘূর্ণিঝড় 'ইয়াস' পরবর্তী জরুরি উদ্ধার, ত্রাণ ও চিকিৎসা সহায়তায় নৌবাহিনীর ১৮টি যুদ্ধজাহাজ, মেরিটাইম পেট্রোল এয়ারক্রাফট ও হেলিকপ্টার"আইএসপিআর। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১২-০৬ 
  76. "ঘূর্ণিঝড় আম্পান: জরুরি উদ্ধারে নৌবাহিনীর ২৫টি জাহাজ"bdnews24.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১২-০৬ 
  77. "ঘূর্ণিঝড় "ফণী" পরবর্তী জরুরি উদ্ধার, ত্রাণ ও চিকিৎসা সহায়তায় প্রস্তুত রয়েছে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ৩২টি জাহাজ ও নৌ কন্টিনজেন্ট"আইএসপিআর। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১২-০৬ 
  78. "বাংলাদেশ নৌবাহিনীতে বানৌজা কে জে আলী, বানৌজা সন্দীপ ও বানৌজা হাতিয়া এর কমিশনিং, নবনির্মিত এলসিটি-১০৩ ও এলসিটি-১০৫ সংযুক্তিকরণ অনুষ্ঠান"। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১২-৩০ 
  79. "গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ০৭ (সাত) বছরের অগ্রগতির তথ্য প্রচারের ব্যবস্থাকরণ সম্পর্কিত" (PDF)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৪-০৭ 
  80. "Landing Craft Tank (LCT) specification. Bangladesh Navy" (PDF)Directorate General Defence Purchase, Ministry of Defence (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২ ডিসেম্বর ২০২১ 
  81. "খুলনা শিপইয়ার্ড এ নির্মাণাধীন বাংলাদেশ নৌবাহিনীর জন্য ০৩ টি ল্যান্ডিং ক্র‍্যাফট ট্যাংক এর কিল লেয়িং অনুষ্ঠান"www.facebook.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৬-১৬ 
  82. আলম, নাছিম উল। "দেশে প্রথমবারের মত 'ল্যান্ডিং ক্রাফট টাংক' নির্মান করছে খুলনা শিপইয়ার্ড"DailyInqilabOnline (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৬-১৬ 
  83. Pratidin, Bangladesh (২০২২-০৬-১৬)। "নতুন মাইলফলকে খুলনা শিপইয়ার্ড"বাংলাদেশ প্রতিদিন। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৬-১৬ 
  84. "নৌ-বাহিনীর জন্য নতুন ৩টি জাহাজ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন | Khulna Shipyard | Bangladesh Navy | Somoy TV" 
  85. "সিলেট ও সুনামগঞ্জে ত্রাণ কার্যক্রমকে বেগবান করতে যোগ দিয়েছে নৌবাহিনীর তিনটি জাহাজ"www.facebook.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৬-২৫ 
  86. "U.S. Security Cooperation with Bangladesh"United States Department of State (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৭ 
  87. "Former Coast Guard Cutter Jarvis Transferred to Growing Bangladesh Navy"Defense Media Network (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৭ 
  88. "U.S. Coast Guard Transferred Cutter Rush to the Bangladesh Navy as the BNS Somudra Avijan"U.S. Embassy in Bangladesh (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৫-০৫-০৭। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৭ 
  89. "মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস- ২০২২ উদ্যাপন উপলক্ষে নৌবাহিনীর জাহাজ সর্বসাধারণের পরিদর্শনের জন্য উন্মুক্ত"আইএসপিআর। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৪-০৮ 
  90. "Training boat construction work going on for Bangladesh Navy- Metacentre Ltd, Rupganj, Narayanganj"www.facebook.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৬-০৫ 
  91. "8 X ROUND & SQUARE SHAPE CATAMARAN – Khulna Shipyard Ltd" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-৩০ 
  92. "বানৌজা শাপলা এর নিম্নেবর্ণিত কাজের জন্য যোগ্য ও উপযুক্ত মেরামতকারী প্রতিষ্ঠান সমূহের নিকট হতে দরপত্র আহব্বান করা যাচ্ছে" (PDF)কমডোর সুপারিনটেনডেন্ট ডকইয়ার্ড, নিউমুরিং, চট্টগ্রাম। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৬-১০ 
  93. Productions, Idéal। "Minesweepers - Shapla & Surovi"Masson Marine (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৭-১৩ 
  94. "৫ জেলেকে জীবিত উদ্ধার করলো বাংলাদেশ নৌবাহিনী | Bangladesh Navy | Bay of Bengal | Rescue | Somoy TV" 
  95. "UNROCA (United Nations Register of Conventional Arms)"www.unroca.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৭ 
  96. "বঙ্গোপসাগরে ইঞ্জিন বিকল হয়ে যাওয়া একটি ফিশিং বোট থেকে ৫ জেলেকে উদ্ধার করেছে নৌবাহিনী"আইএসপিআর। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৮ 
  97. "৬ দিন ধরে সাগরে ভাসমান মাঝি-মাল্লাকে জীবিত উদ্ধার করল নৌবাহিনী | Bangladesh Navy | Troller Boat" 
  98. "National Report of Bangladesh" (PDF)Bangladesh Navy Hydrographic & Oceanographic Centre (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৮-১৩ 
  99. "National Report of Bangladesh" (PDF)Bangladesh Navy Hydrographic & Oceanographic Centre (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৮-১৩ 
  100. "UNROCA (United Nations Register of Conventional Arms)"www.unroca.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৭ 
  101. "বানৌজা অগ্রদূত এর নিম্নেবর্ণিত কাজের জন্য যোগ্য ও উপযুক্ত মেরামতকারী প্রতিষ্ঠান সমূহের নিকট হতে দরপত্র আহব্বান করা যাচ্ছে" (PDF)কমডোর সুপারিনটেনডেন্ট ডকইয়ার্ড, নিউমুরিং, চট্টগ্রাম। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৬-১০ 
  102. "National Report of Bangladesh" (PDF)Bangladesh Navy Hydrographic & Oceanographic Centre (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৮-১৩ 
  103. হক, এম মিনারুল (২০২১-০৭-১৩)। "NATIONAL REPORTS FROM BANGLADESH TO THE NIOHC20" (PDF)20TH MEETING OF THE NORTH INDIAN OCEAN HYDROGRAPHIC COMMISSION (NIOHC20) (ইংরেজি ভাষায়): ২। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৫-৩১ 
  104. "02 X JARIP BOAT – Khulna Shipyard Ltd" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৭ 
  105. "JARIP BOAT – Khulna Shipyard Ltd" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৭-১১ 
  106. Maritime, Baird (২০২১-১০-২২)। "VESSEL REVIEW | JB-01 & JB-02 – Durable shallow-draught survey boats for Bangladesh Navy"Baird Maritime (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১২-৩০ 
  107. "Expression of Interest (EOI) 01×Survey & Research Vessel" (PDF)www.dewbn.gov.bd (ইংরেজি ভাষায়)। ৮ এপ্রিল ২০২২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০২২ 
  108. Khan, M Zillur Rahim (২০১৮-০৬-৩০)। "INDIGENOUS CAPITAL WARSHIP BUILDING IN BANGLADESH: CHALLENGES AND WAYS FORWARD"NDC e-journal (ইংরেজি ভাষায়)। ঢাকা: জাতীয় প্রতিরক্ষা কলেজ (বাংলাদেশ)১৭ (১): ২২৫। আইএসএসএন 1683-8475। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০২-১৭lay summary 
  109. "2774 DWT Oil Tanker: Built in 2015 for Bangladesh Navy – Ananda Shipyard & Slipways Limited" (PDF) (ইংরেজি ভাষায়)। ২৭ নভেম্বর ২০২১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৭ 
  110. "খুলনা শিপইয়ার্ডে নির্মিতব্য বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর জন্য 02 টি এলপিসি এর কিল লেয়িং এবং 02 টি কন্টেইনার ভেসেল এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে কেক কাটলেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, মানানীয় নৌ বাহিনীর প্রধান এমডি খুশিলি এবং অন্যান্য অতিথিবৃন্দ - Khulna Shipyard Ltd"www.facebook.com। সংগ্রহের তারিখ ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৫ 
  111. "খুলনা শিপইয়ার্ডে নির্মিত নৌ কল্যাণ ফাউন্ডেশন এর জন্য নির্মিত কন্টেইনার ভেসেল নৌ কল্যাণ-1 এর বিচিং করা হয় রুপসা ডকইয়ার্ডে"www.facebook.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৬-২৩ 
  112. "BNFD Sundarban, Commodore Superintendent Dockyard" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুন ২০২২ 
  113. "History of Commodore Superintendent Dockyard"Commodore Superintendent Dockyard। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-৩০ 
  114. "BANGLADESH NAVY FLOATING CRANE (BNFC BALABAN) – Khulna Shipyard Ltd" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৭ 
  115. "Tender for Ship Docking & Repair Facility" (PDF)Directorate General of Defence Purchase (DGDP) (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২২ 
  116. "Expression of interest (EOI) Ship Docking & Repair Facility" (PDF)Dockyard And Engineering Works Ltd, Bangladesh Navy (ইংরেজি ভাষায়)। ৬ এপ্রিল ২০২২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২২ 
  117. "ঘূর্ণিঝড় পরবর্তী জরুরি উদ্ধার, ত্রাণ ও চিকিৎসা সহায়তায় খুলনা, চট্টগ্রাম ও সেন্টমার্টিন্সে ১০টি যুদ্ধজাহাজসহ নৌ কন্টিনজেন্ট ও মেডিক্যাল টিম প্রস্তুত"আইএসপিআর। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১২-০৬ 
  118. "Tender Specification 3×Diving boat Bangladesh Navy (BN)" (PDF)Directorate General Defense Purchase (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১২-৩১ 
  119. "03 x Diving Boat Bn – Khulna Shipyard Ltd" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৭ 
  120. "নৌবাহিনীর জন্য ৩টি ডাইভিং বোট তৈরি করছে খুলনা শিপইয়ার্ড"SAMAKAL (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-৩০ 
  121. "নৌবাহিনীর জন্য খুলনা শিপইয়ার্ডে তৈরি হচ্ছে অত্যাধুনিক ডাইভিং বোট 13Jun.21|| Khulna shipyard" 
  122. sun, daily। "Bangladesh, US Navy joint exercise 'Carat- 2015' ends | Daily Sun"daily sun (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৬-১১ 
  123. "02 X Submarine Handling Tug – Khulna Shipyard Ltd" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-১১-২৭ 
  124. "দেশেই তৈরী হলো নৌ-বাহিনীর জন্য বড় ২টি যুদ্ধ জাহাজ"