বাংলাদেশ কোস্ট গার্ডের জাহাজের তালিকা

উইকিমিডিয়ার তালিকা নিবন্ধ

বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড বর্তমানে ৫৭ টি জলযান পরিচালনা করছে। এগুলোর অধিকাংশই ছোট উপকূলীয় টহল জাহাজ। কোস্ট গার্ডের জাহাজের নামের পূর্বে "সিজিএস" বসে যার পূর্ণরূপ "কোস্ট গার্ড শিপ" এবং এর বাংলা অর্থ হচ্ছে "কোস্ট গার্ডের জাহাজ"।

অফশোর প্যাট্রোল ভেসেল (ওপিভি)সম্পাদনা

ক্লাস ছবি ধরন জাহাজ উৎস ওজন নোট
সক্রিয় (৪টি)
লিডার ক্লাস    ওপিভি সিজিএস সৈয়দ নজরুল (পিএল-৭১)
সিজিএস তাজউদ্দিন (পিএল-৭২)
সিজিএস মনসুর আলী (পিএল-৭৩)
সিজিএস কামরুজ্জামান (পিএল-৭৪)
  ইতালি ১২৮৫টন [১]

ইনশোর প্যাট্রোল ভেসেল (আইপিভি)সম্পাদনা

ক্লাস চিত্র ধরন জাহাজ উৎস ওজন নোট
সক্রিয় (৬টি)
রূপসী বাংলা ক্লাস আইপিভি সিজিএস রূপসী বাংলা (পি-২০১)   বাংলাদেশ
সবুজ বাংলা ক্লাস   আইপিভি সিজিএস সবুজ বাংলা (পি-২০২)
সিজিএস শ্যামল বাংলা (পি-২০৩)
  বাংলাদেশ ২৯৭টন জাহাজটির দৈর্ঘ্য হবে ৫১.৪ মিটার, প্রস্থ ৭ মিটার এবং গভীরতা ১.৯ মিটার সঙ্গে ২৩ নটিক্যাল মাইল গতি সম্পূর্ন।[১]
পদ্মা–শ্রেণি আইপিভি সিজিএস সোনার বাংলা (পি-২০৪)
সিজিএস অপরাজেয় বাংলা (পি-২০৫)
সিজিএস অপূর্ব বাংলা (পি-২০৬)
  বাংলাদেশ খুলনা শিপইয়ার্ডে নির্মাণাধীন রয়েছে।[২] জাহাজটির সর্বোচ্চ গতি হবে ২৩ নট এবং ওজন ৩০০ টন। প্রত্যেকটি জাহাজ ৪৬ জনকে বহন করতে সক্ষম।[৩][১]
অর্ডার করা হয়েছে (২)
আইপিভি সিজিএস স্বাধীন বাংলা (পি-২০৭)
সিজিএস জয় বাংলা (পি-২০৮)
  বাংলাদেশ ৩১৫টন জাহাজটির দৈর্ঘ্য হবে ৫২.৮ মিটার, প্রস্থ ৭.৪ মিটার এবং গভীরতা ১.৯৫ মিটার সঙ্গে ২৩ নটিক্যাল মাইল গতি সম্পূর্ন। নারায়ণগঞ্জ ডকইয়ার্ডে নির্মাণ কাজ চলছে।

ফাস্ট প্যাট্রোল বোট (এফপিবি)সম্পাদনা

ক্লাস চিত্র ধরন জাহাজ উৎস ওজন নোট
সক্রিয় (৪টি)
পোর্তে গ্রান্দে ক্লাস আইপিভি সিজিএস শ্বেতগাং (পি-১০১)
সিজিএস পোর্তে গ্রান্দে (পি-১০২)
  বাংলাদেশ আনন্দ শিপইয়ার্ড এ নির্মিত হয়েছে।
কুতুবদিয়া ক্লাস   এফপিবি সিজিএস কুতুবদিয়া
সিজিএস সোনাদিয়া
  বাংলাদেশ ২৩৫টন জাহাজগুলো থাকবে ৪৩.৪ দৈর্ঘ্যের,৬.৫ মিটার প্রস্থের, এবং ৩.৬ মিটার গভীরতা সঙ্গে ২৫ নটের সর্বোচ্চ গতি।[১]

ফাস্ট অ্যাটাক ক্রাফটসম্পাদনা

ক্লাস চিত্র ধরন জাহাজ উৎস ওজন নোট
সক্রিয় (৪টি)
সাংহাই-২ ক্লাস   ফাস্ট অ্যাটাক ক্রাফট সিজিএস তৌফিক (পি-৬১১)
সিজিএস তৌহিদ (পি-৬১২)
সিজিএস তামজিদ (পি-৬১৩)
সিজিএস তানভীর (পি-৬১৪)
  গণচীন ১৩৫টন

রিভারাইন প্যাট্রোল ক্রাফট (আরপিসি)সম্পাদনা

ক্লাস চিত্র ধরন জাহাজ উৎস ওজন নোট
সক্রিয় (৫টি)
পাবনা ক্লাস আরপিসি সিজিএস পাবনা (পি-১১১)
সিজিএস নোয়াখালী (পি-১১২)
সিজিএস পটুয়াখালী (পি-১১৩)
সিজিএস রাঙ্গামাটি (পি-১১৪)
সিজিএস বগুড়া (পি ১১৫)
  বাংলাদেশ ৬৯টন

ছোট নৌযানসম্পাদনা

ক্লাস চিত্র ধরন উৎস ওজন নোট
এক্স-১২ ফাস্ট পেট্রোল ক্রাফট হাই স্পিড পেট্রোল বোট   বাংলাদেশ  ইন্দোনেশিয়া ১০.২টন
মেটাল শার্ক   র‍্যাপিড রেসপন্স বোট   মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ৮টন
মেটাল শার্ক অ্যাম্বুলেন্স বোট   অ্যাম্বুলেন্স বোট   মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
ডিফেন্ডার ক্লাস   র‍্যাপিড রেসপন্স বোট   মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
টাইফুন বোট   হাই স্পিড বোট   ক্রোয়েশিয়া
হারবার প্যাট্রল বোট   হারবার প্যাট্রল বোট   বাংলাদেশ

আরো দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Coast guard to be turned into a modern force: PM Hasina"। Prothom Alo English। সংগ্রহের তারিখ ১৫ নভেম্বর ২০২০ 
  2. "Govt to procure three inshore patrol vessels for Coast Guard."। The Independent। ১৯ মে ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১ জুন ২০১৬ 
  3. "BCG to guard sea boundary with patrol vessel"। bssnews.net। ২ অক্টোবর ২০১৬। ২০১৬-১০-০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ অক্টোবর ২০১৬ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা