ফিলিপাইন সাগর

ফিলিপাইনের পূর্ব এবং উত্তর-পূর্ব উপকূলীয় সাগর

ফিলিপাইন সাগর হচ্ছে ফিলিপাইনের পূর্ব ও উত্তরপূর্বে অবস্থিত একটি প্রান্তিক সমুদ্র যেটি ভূপৃষ্ঠের আনুমানিক ৫ নিযুত বর্গকিলোমিটার (২ নিযুত বর্গমাইল) অঞ্চল দখল করে রয়েছে।[১] ফিলিপাইন সাগর প্লেট সমুদ্রটির তল গঠন করেছে, যা পশ্চিমের উত্তর প্রশান্ত মহাসাগর একটি অংশ গঠন করেছে।[২] এটির দক্ষিণ পশ্চিমে রয়েছে ফিলিপাইন দ্বীপপুঞ্জের (লুজন, কাটান্ডুয়ানেস, সামার, লেইতে এবং মিন্দানাও) ; দক্ষিণপূর্বে হালমাহেরা, মোরোতাই, পালাউ, ইয়াপ, এবং উলিথি; পূর্ব দিকের মারিয়ানাস, গুয়াম সহ, সাইপান, এবং তিনিয়ান; উত্তরপূর্বে বনিন এবং ইয়ো জিমা; উত্তরে জাপানি দ্বীপপুঞ্জের হনসু, শিকোকু, এবং কিউশু ;উত্তর পশ্চিমে রুকু দ্বীপপুঞ্জ ; এবং পশ্চিমে তাইওয়ান[৩]

ফিলিপাইন সাগর
Philippine Sea location.jpg
ফিলিপাইন সাগর প্রশান্ত মহাসাগর-এ অবস্থিত
ফিলিপাইন সাগর
ফিলিপাইন সাগর
প্রশান্ত মহাসাগরের অবস্থান
ফিলিপাইন সাগর ফিলিপাইন-এ অবস্থিত
ফিলিপাইন সাগর
ফিলিপাইন সাগর
প্রশান্ত মহাসাগরের অবস্থান
স্থানাঙ্ক২০° উত্তর ১৩০° পূর্ব / ২০° উত্তর ১৩০° পূর্ব / 20; 130
যার অংশপ্রশান্ত মহাসাগর
অববাহিকার দেশসমূহ
দ্বীপপুঞ্জ
ট্রেঞ্চ

সমুদ্রটিতে একটি জটিল এবং বিচিত্রপূর্ণ সমুদ্রতলদেশীয় প্রাণ রয়েছে।[৪] ভূতাত্ত্বিক ত্রুটি এবং ফাটল অঞ্চলের একটি সিরিজ দ্বারা এটির তল একটি কাঠামোগত অববাহিকায় গঠিত হয়েছে। আইল্যান্ড আর্কেস, যা আসলে এই অঞ্চলে ভূত্বকীয় পাতের কার্যকলাপের কারণে মহাসাগরীয় উপরিভাগের উপরে প্রবাহিত শৈলশিরাগুলিকে প্রসারিত করে, যা উত্তর, পূর্ব ও দক্ষিণে ফিলিপাইন সাগরকে আবদ্ধ করে রেখেছে। ফিলিপাইন দ্বীপপুঞ্জের, রুকু দ্বীপপুঞ্জ, মেরিয়ানা হচ্ছে এর উদাহরণ। ফিলিপাইনের সাগরের আরেকটি অনন্য বৈশিষ্ট্য হচ্ছে গভীর সমুদ্র খাতের উপস্থিতি, এগুলোর মধ্যে ফিলিপাইন ট্রেঞ্চ এবং মারিয়ানা ট্রেঞ্চ, হচ্ছে এই গ্রহের গভীরতম বিন্দু।

ভৌগলিক অবস্থানসম্পাদনা

 
ফিলিপাইন সাগরের উপর দিয়ে যাওয়ার সময়ে আএসএস থেকে তোলা ছবি।

অবস্থানসম্পাদনা

 
ফিলিপাইন সাগরের অবস্থান

ফিলিপাইন সাগরের পশ্চিমে রয়েছে ফিলিপাইন এবং তাইওয়ান, উত্তরে জাপান , পূর্বে মারিয়ানাস এবং দক্ষিণে পালাউ অবস্থিত। সংলগ্ন সমুদ্রগুলোর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে সিলেবিস সাগর যেটি মিন্দানাও এবং দক্ষিণে ছোট দ্বীপসমূহ দ্বারা বিভক্ত, দক্ষিণ চীন সাগর ফিলিপাইন দ্বারা বিভক্ত, এবং পূর্ব চীন সাগর রুকু দ্বীপপুঞ্জ দ্বারা বিভক্ত।

ব্যাপ্তিসম্পাদনা

আন্তর্জাতিক হাইড্রোগ্রাফিক সংস্থা ফিলিপাইন সাগরকে সংজ্ঞায়িত করেছে "ফিলিপাইন দ্বীপপুঞ্জের পূর্ব উপকূলের উত্তর প্রশান্ত মহাসাগর এলাকা" হিসেবে, নিম্নরূপে বেষ্টিত করেছে:[৫]

পশ্চিম দিকে পূর্ব ভারতীয় দ্বীপপুঞ্জ, দক্ষিণ চীন সাগর এবং পূর্ব চীন সাগরের পূর্ব সীমা পর্যন্ত।

উত্তর দিকে কুইশু-এর দক্ষিণ-পূর্ব উপকূল, অন্তর্দেশীয় সাগরের দক্ষিণ ও পূর্ব সীমানা এবং হনসু দ্বীপের দক্ষিণ উপকূল পর্যন্ত।

পূর্ব দিকে বোনিন, ভলকানো এবং লাদ্রোন (মারিয়ানা) দ্বীপপুঞ্জে জাপানের নিকটে সংযুক্ত শৈলশিরা পর্যন্ত, এই সমস্তগুলো ফিলিপাইন সাগরের অন্তর্ভুক্ত।

দক্ষিণ দিকে গুয়াম, ইয়াপ, পিলিউ (পালাউ) এবং হালমাহেরা দ্বীপপুঞ্জের সঙ্গে সংযুক্ত একটি রেখা পর্যন্ত।

 
 
 
Philippines
 
Taiwan
 
Japan
 
Palau
 
Federated States of Micronesia
 
Northern Mariana Islands
Countries and territories (red dot) within the sea (blue dot)

ভূতত্ত্বসম্পাদনা

 
সৈকত, পাথুরে উপকূল এবং ফিলিপাইন সাগরের পিংটুং কাউন্টি, তাইওয়ানের দৃশ্য

ফিলিপাইন সাগর প্লেট ফিলিপাইন সাগরের তল গঠন করেছে। ফিলিপাইন মোবাইল বেল্টের নিচে এটির সাবডাকসান ফিলিপাইন দ্বীপপুঞ্জ এবং পূর্ব তাইওয়ানের অধিকাংশ বহন করে। দুটি প্লেটের মধ্যে রয়েছে ফিলিপাইন ট্রেঞ্চ

সামুদ্রিক জীববৈচিত্র্যসম্পাদনা

ফিলিপাইন সাগরে রয়েছে ৬,৭৯,৮০০ বর্গকিলোমিটার (২,৬২,৫০০ মা) আয়তনের বৃহৎ সামুদ্রিক অঞ্চল , এবং ২.২ মিলিয়ন কিমি এর একটি একচেটিয়া অর্থনৈতিক অঞ্চল। ইন্দো-মালয়-ফিলিপাইন দ্বীপপুঞ্জের দেশগুলির তুলনায় ফিলিপাইনের প্রতি ইউনিট এলাকায় সর্বাধিক সংখ্যক সামুদ্রিক প্রজাতি রয়েছে, এবং এটিকে সামুদ্রিক জীববৈচিত্র্রের উপকেন্দ্র হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে।[৬] কোরাল ট্রায়াঙ্গলে অন্তর্ভুক্ত হওয়ার পাশাপাশি ফিলিপাইন সাগরে ৩,২২২ টি মাছের প্রজাতি, ৪৮৬ টি প্রবাল প্রজাতি, ৮০০ টি সামুদ্রিক উদ্ভিদ প্রজাতি, এবং ৮২০ বেন্থিক শেত্তলার প্রজাতি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে, যেখানে ভার্দে আইল্যান্ড পাসেজকে "সামুদ্রিক মাছের জৈব বৈচিত্র্য কেন্দ্রের কেন্দ্র" হিসাবে অভিহিত করা হয়।[৭] তার এই অঞ্চলের মধ্যে, তেত্রিশটি স্থানীয় প্রজাতির মাছ হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে, যার মধ্যে রেছে নীল দাগের এঞ্জেল ফিশ (চিটোডন্টোপ্লাস কেরুউলোপুন্টাটাস) এবং সামুদ্রিক মাগুর মাছ (এরিয়াস ম্যানিলেন্সিস)।[৮] ফিলিপাইন সামুদ্রিক অঞ্চল বিপন্ন সামুদ্রিক প্রজাতির জন্য একটি প্রজনন এবং প্রতিপালনের স্থল হয়ে উঠেছে, যেমন তিমি হাঙ্গর (রিনকোডন টাইপুস), ডগং (ডগং গুগন), এবং বৃহৎ মুখের হাঙ্গর (মেগচাষমা পেলাগিওস)।[৭]

কোরাল ট্রায়াঙ্গলসম্পাদনা

কোরাল ট্রায়াঙ্গল, অথবা ইন্দো-মালয় ত্রিভুজ, সামুদ্রিক জীব বৈচিত্র্যের বিশ্ব কেন্দ্র হিসাবে বিবেচিত হয়, এটির মোট সামুদ্রিক এলাকা প্রায় ২ মিলিয়ন বর্গ কিলোমিটার।[৯] এটি মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইন, পূর্ব তিমুর, পাপুয়া নিউ গিনি এবং সলোমন দ্বীপপুঞ্জ এর ক্রান্তীয় জলকে পরিবেষ্টন করে রয়েছে।[১০] ফিলিপাইন কোরাল ট্রায়াঙ্গলের শীর্ষে অবস্থিত, যা কোরাল ট্রায়াঙ্গলের ৩,০০,০০০ বর্গকিলোমিটার (১,২০,০০০ মা) এলাকা দখল করে রেখেছে,[১১] কোরাল ট্রায়াঙ্গলে ১০,৭৫০ বর্গকিলোমিটার (৪,১৫০ মা) থেকে ৩৩,৫০০ বর্গকিলোমিটার (১২,৯০০ মা) এলাকায় দেশটির প্রবাল প্রাচীর এলাকা অবস্থিত, যেখানে ৫০০ টিরও বেশি প্রজাতির স্লেক্র্যাকটিনিয়ান বা পাথুরে প্রবাল রয়েছে, এবং ১২টি স্থানীয় প্রবাল প্রজাতিও এছাড়া এখানে চিহ্নিত করা হয়েছে।[৯]

পৃথিবীর প্রবাল প্রজাতির ৭৫% কোরাল ট্রায়াঙ্গেলটিতে রয়েছে যা প্রায় ৬০০ বিভিন্ন প্রজাতির হতে পারে বলে অনুমিত হয়, সাথে রয়েছে ২০০০ টিরও বেশি বিভিন্ন ধরনের প্রবালপ্রাচীরের মাছ। এটি সামুদ্রিক কচ্ছপের বিশ্বের সাতটি প্রজাতির ছয়টির বাসস্থান, এগুলো হচ্ছে শিকরেঠুঁটি সাগর কাছিম, মুগুরমাথা সাগর কাছিম, বড় চামট সাগর কাছিম, সবুজ সাগর কাছিম, জলপাইরঙা সাগর কাছিম, এবং সামুদ্রিক কচ্ছপ[১২] এখন পর্যন্ত, কোরাল ট্রায়াঙ্গলে পাওয়া বৈচিত্র্যের কোন একক ব্যাখ্যা নেই, কারণ বেশিরভাগ গবেষক প্লেট টেকটনিকসের মত ভূতাত্ত্বিক ঘটনাগুলির বৈচিত্র্যকে দায়ী করেছেন।[১৩]

এটি ১২০ মিলিয়ন মানুষের জীবিকা সরবরাহ ও সহায়তা করতে সাহায্য করে এবং এটি ফিলিপাইনের উপকূলীয় সম্প্রদায়গুলিকে এবং বিশ্বব্যাপী আরো লক্ষ লক্ষকে খাদ্য সরবরাহ করতে সক্ষম।[১২] কোরাল ট্রায়াঙ্গলে তিমি হাঙ্গর মাছের প্রজাতির পর্যটন এই সম্প্রদায়গুলির জন্য আয়ের স্থায়ী উৎস হিসাবে কাজ করে।[১২] ফিলিপাইন ছাড়াও, কোরাল ত্রিভুজের মধ্যে পাওয়া সামুদ্রিক উত্সের বিশ্ব জুড়ে উচ্চ অর্থনৈতিক মান আছে। কোরাল ট্রায়াঙ্গেলের আশেপাশের দেশগুলি খাদ্য নিরাপত্তা, জীবিকা, জীব বৈচিত্র্য এবং অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য সংরক্ষণ ও স্থায়িত্বের দিক থেকে বিকাশের জন্য প্রযুক্তিগত সহায়তা এবং দক্ষতার সাথে তাদের স্থানীয়দের সরবরাহ করতে সহায়তা করে।[১০]

জলবায়ু পরিবর্তন ক্রমাগত কোরাল ট্রায়াঙ্গলে পাওয়া উপকূলীয় বাস্তুতন্ত্রকেও প্রভাবিত করছে, এটি ক্রমবর্ধমান সমুদ্রের স্তর এবং মহাসাগরীয় অম্লীকরণে অবদান রাখছে, যা মাছ ও কচ্ছপের মত সামুদ্রিক প্রাণীদের জন্য বিপদ ডেকে আনছে। ফলস্বরূপ, স্থানীয় জীবিকা যেমন মাছ ধরা এবং পর্যটনে এটি নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে। পানির তাপমাত্রা বাড়তে থাকলে প্রবালগুলি এই অবস্থায় মানিয়ে নিতে সক্ষম হয় না এবং বেঁচে থাকতে সক্ষম হয় না, কারণ প্রবালগুলি আরও কার্বন ডাই অক্সাইড শোষণ করে, এটির পিএইচ ব্যালান্সকে আম্লিক করে তোলে।[১২]

জীববিদ্যাসম্পাদনা

ফিলিপাইন সাগরে একটি বহিরাগত সামুদ্রিক বাস্তুতন্ত্র অবস্থান করে। প্রায় পাঁচশত প্রজাতির শক্ত ও নরম প্রজাতির প্রবাল উপকূলীয় জলের মধ্যে পাওয়া যায় এবং বিশ্বব্যাপী পরিচিত শেলফিশ প্রজাতির ২০ শতাংশ প্রজাতি ফিলিপাইনের জলে পাওয়া যায়। সামুদ্রিক কচ্ছপ, হাঙ্গর, মোরে ঈল, অক্টোপাস এবং সামুদ্রিক সাপ অসংখ্য প্রজাতির মাছ যেমন: টুনা সাধারণত এখানে দেখতে পাওয়া যায়। উপরন্তু, ফিলিপাইন সাগর জাপানী ঈল, টুনা এবং বিভিন্ন তিমি প্রজাতিগুলির জন্য ডিম ছাড়ার স্থল হিসাবে কাজ করে।[৪]

পূর্ব এশিয়ার উপর দিয়ে আইএসএসের অতিক্রম
ফিলিপািন সাগরের দীপপুঞ্জ

জীববৈচিত্র্যসম্পাদনা

মানব প্রভাবসম্পাদনা

ফিলিপাইন সাগর উভয় সামুদ্রিক জীব বৈচিত্র্যের পাশাপাশি একটি জীব বৈচিত্র্য হটস্পট কেন্দ্র। অস্থিতিশীল চর্চার কারণে কমপক্ষে ৪১৮ টি প্রজাতি হুমকিতে রয়েছে। এশিয়া ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক অনুযায়ী, বিভিন্ন অর্থনৈতিক পদ্ধতির সঞ্চালনের কারণে এলাকাটিতে সামুদ্রিক জীবন ৯০% হ্রাস পেয়েছে। ফিলিপাইন সাগর শহরগুলির নর্দমার পাইপলাইনগুলির টার্মিনাল পয়েন্ট। সম্পত্তি উন্নয়ন ও কাঠের উত্পাদন উভয়ের জন্য ম্যানগ্রোভ বনও অপসারণ করা হচ্ছে। পারদের বর্জ্য এবং খনির প্রবাহ ফিলিপাইন সাগরে পতিত হয়। এ সমস্তগুলি হচ্ছে প্রবাল প্রাচীরের বিলুপ্তির তালিকায় ফিলিপাইনের প্রথম দিকে থাকার কারণ।[১৪]

জলবায়ু পরিবর্তনসম্পাদনা

তাপমাত্রা পরিবর্তন বৃদ্ধির ফলে সামুদ্রিক বাস্তুতন্ত্রগুলোর মধ্যে স্থানান্তর ঘটে। প্রবালের আদর্শ তাপমাত্রা ২৪-২৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যদি জলের তাপমাত্রা এই সীমার উপরে বা নিচে চলে যায় তবে প্রবালের বৃদ্ধি হ্রাস পায় অথবা এমনকি মারাও যায়। মাছ এবং অন্যান্য সামুদ্রিক জীব খাদ্য এবং বাসস্থানের জন্য প্রবালের উপর নির্ভর করে, মাছ ধরার উপর নির্ভর করে যে সম্প্রদায়গুলো তারাও ব্যাপকভাবে প্রভাবিত হয়।[১৫] ফিলিপাইন সাগর প্যাসিফিক রিং অফ ফায়ারের মধ্যে রয়েছে, পূর্ব থেকে আসা টাইফুন দ্বারা সৃষ্ট ক্ষতি আরও সামুদ্রিক আবাস ধ্বংস করতে পারে।[১৬]

ইতিহাসসম্পাদনা

 
জুন ২০, ১৯৪৪-এ জাপানীজ তৃতীয় রনতরী বিভাগ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনীর আক্রমনের মুখে। ক্যামেরাটির নিকটস্থ, ডানদিকে চলাচলকারী ভারী ক্রুজারটি হয় মায়া' অথবা চাকাই']। এর পেছনেরটি জাপানের ছোট রনতরী চিয়োদা

১৫২১ সালে প্রথম ইউরোপীয় হিসেবে ফার্ডিনান্ড ম্যাগেলান ফিলিপাইন সাগর পাড়ি দেন, ফিলিপাইন অনুসন্ধানের পূর্বে তিনি এবং তার লোকেরা যখন মারিয়ানা দ্বীপপুঞ্জে ছিলেন তিনি এটির নাম দেন মার ফিলিপিনাস। পরে এটি ১৫২২ থেকে ১৫৬৫ পর্যন্ত অন্যান্য স্প্যানিশ অভিযাত্রীদের দ্বারা আবিষ্কৃত হয় এবং এটি বিখ্যাত গ্যালিয়ন বাণিজ্য রুটের স্থান ছিল।

জুন ১৯ এবং ২০, ১৯৪৪-এর মধ্যকার ফিলিপাইন সাগর যুদ্ধ (জাপান ও আমেরিকার মধ্যকার সংঘটিত দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের একটি খুব বড় এবং নিষ্পত্তিমূলক নৌ যুদ্ধ) মারিয়ানা দ্বীপপুঞ্জের কাছাকাছি, পূর্ব ফিলিপাইন সাগরে সংঘটিত হয়। জাপানের বিমানবাহী রণতরী তাইহো, সোকাকু, জুনিও, হায়ো এবং 'রিউহো আমেরিকান রণতরী বিমান এবং অন্যান্য নৌ জাহাজ থেকে হামলা বোমা ও টর্পেডো হামলায় ডুবে যায়। জাপানী বিমান এবং পাইলটদের ব্যাপক ক্ষতির কারণে ফিলিপাইন সাগরের যুদ্ধের আকাশ থেকে আক্রমনে এই অংশটি "গ্রেট মারিয়ানস টার্কি শ্যুট" নামে পরিচিত ছিল। এই যুদ্ধটি দক্ষিণপশ্চিমের পালাউ এবং শেষ পর্যন্ত ফিলিপাইন সাইপান, গুয়াম এবং টিনিন মারিনিয়াস, পালাউ জোটের জয় হয়েছিল।

২০১১ সালে স্প্র্যাটি দ্বীপপুঞ্জের বিতর্ক এর উত্থানের পর, ফিলিপাইনের বিভিন্ন সরকারি সংস্থাগুলি দক্ষিণ চীন সাগর উল্লেখ করার জন্য নতুন শব্দ "পশ্চিম ফিলিপাইন সাগর" ব্যবহার শুরু করেছিল। তবে, একটি ফিলিপাইন বায়ুমণ্ডলীয়, জিওফিজিকাল এবং জ্যোতির্বিজ্ঞান সেবা প্রশাসনের মুখপাত্র বলেছেন যে ফিলিপাইনের পূর্ব দিকে সমুদ্রকে ফিলিপাইন সাগর বলা চলবে।[১৭]

ফিলিপাইন সাগর যুদ্ধসম্পাদনা

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং জাপানের নৌবাহিনীর মধ্যে একটি ঐতিহাসিক যুদ্ধ ফিলিপাইন সাগরের আশেপাশে সংঘটিত হয়েছিল। এটি ফিলিপাইন সাগর যুদ্ধ নামে পরিচিত এবং ১৯৪৪ সালের ১৯ জুন থেকে ২০ জুন পর্যন্ত মারিয়ানা দ্বীপপুঞ্জ এর কাছাকাছি ঘটেছিল।[১৮] এটি ইতিহাসের বৃহত্তম রণতরী-রণতরীর যুদ্ধ ছিল এতে অংশগ্রহণ করেছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র পঞ্চম ফ্লিট এবং ইম্পেরিয়াল জাপানি নৌবাহিনীর প্রথম মোবাইল ফ্লিট

নৌবাহিনীর পাশাপাশি, ফিলিপাইন সাগরের যুদ্ধে আকাশের কার্যকলাপও উপস্থিত ছিল, কারণ উভয় দেশের শত শত বিমান একে অপরকে আক্রমণ করেছিল। আমেরিকানরা নির্বিচারে জিতেছিল, জাপানী বিমান এবং পাইলটদের ব্যাপক ক্ষতির কারণে ফিলিপাইন সাগরের এই আকাশ যুদ্ধটি "গ্রেট মারিয়ানস টার্কি শ্যুট" নামে পরিচিত ছিল।[১৯]

জাপানের ইম্পেরিয়াল নৌবাহিনীর মারাত্মক ক্ষতি ও যুদ্ধে ক্ষতিগ্রস্ত বিমান বাহিনীর পুনরুদ্ধারের জন্য সংগ্রাম করতে হয়েছিল। আমেরিকানদের ফিলিপাইন পুনরুদ্ধার এবং জাপান থেকে মারিয়ানা দ্বীপপুঞ্জ দখল করার ক্ষেত্রে ফিলিপাইন সাগরের যুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিজয় ব্যাপকভাবে দায়ী। [২০]

অর্থনীতিসম্পাদনা

মৎস্য উৎপাদসম্পাদনা

ফিলিপিনোরা খাদ্য ও জীবিকার উৎসের জন্য ফিলিপাইন সাগরের উপর নির্ভর করে। কোরাল ট্রায়াঙ্গেল অঞ্চলে, ফিলিপিনোরা সামুদ্রিক শৈবাল, মিল্কফিশ, চিংড়ি, ঝিনুক এবং রিফ ফিশ জলজ পণ্য হিসাবে উৎপাদন করে। মৎস্যজীবীরা অন্যান্য প্রজাতির মধ্যে ছোট ছোট প্লেগিক্স, অ্যাঙ্কোভি, সার্ডিন, ম্যাকরল এবং টুনার মতো মাছগুলিও ধরে।[১২]

সাম্প্রতিক বৈজ্ঞানিক গবেষণায় দেখা গেছে যে সমুদ্রের অভ্যন্তরে অবস্থিত বেনহাম রাইজ (ফিলিপাইন রাইজ হিসাবেও পরিচিত) এটির সামুদ্রিক ইকোসিস্টেমের মধ্যে বৈচিত্র্যময় যা টুনা, মার্লিন এবং ম্যাকরল প্রবাসী বাণিজ্যিক মাছগুলোকে আকর্ষণ করে।[২১] বেনহাম রাইসকে অরোরা, কুইজন এবং বৈকল থেকে জেলেদের জন্য সমৃদ্ধ মাছ ধরার জায়গা হিসাবেও বিবেচনা করা হয়।[২২] মৎস্য ও জলজ সম্পদ ব্যুরো মনে করে জেলেদের টেকসই মাছ ধরা শেখান উচিত যাতে প্রবাল গঠনের ধ্বংস প্রতিরোধ করা যায় যা প্রবাসী মাছের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে। তারা অভিবাসী মাছের জন্য উচ্চ দাম বিবেচনা করেছে, যেমন: বেনহাম রাইসে পাওয়া একটি নীল টুনা বাজারে ₱২,০০০ বিক্রি করা যেতে পারে।[২১]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "Philippine Sea"Encarta। ২০ আগস্ট ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ নভেম্বর ২০১৮ 
  2. North Pacific Ocean
  3. "Philippine Sea"। Encyclopædia Britannica Online। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৮-১২ 
  4. "Philippine Sea"। Lighthouse Foundation। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৮-১২ 
  5. "Limits of Oceans and Seas, 3rd edition" (PDF)। International Hydrographic Organization। ১৯৫৩। ৮ অক্টোবর ২০১১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ ফেব্রুয়ারি ২০১০ 
  6. "Environmental Biology of Fishes" (ইংরেজি ভাষায়)। Springer Nature Switzerland। আইএসএসএন 0378-1909। সংগ্রহের তারিখ ৪ নভেম্বর ২০১৮ 
  7. Goldman, Lee (১০ আগস্ট ২০১০)। "A Biodiversity Hotspot in the Philippines"World Wildlife Fund। সংগ্রহের তারিখ ৪ নভেম্বর ২০১৮ 
  8. Boquet, Yves (২০১৭)। The Philippine archipelago। Springer। পৃষ্ঠা 321। আইএসবিএন 9783319519265। সংগ্রহের তারিখ ৪ নভেম্বর ২০১৮ 
  9. State of the Coral Triangle : Philippines. (PDF)। Mandaluyong City, Philippines: Asian Development Bank। ২০১৪। আইএসবিএন 978-92-9254-518-5। সংগ্রহের তারিখ ৪ নভেম্বর ২০১৮ 
  10. "NOAA PIFSC CRED in the Coral Triangle: Building capacity for application of an Ecosystem Approach to Fisheries Management"National Oceanic and Atmospheric Administration (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৪ নভেম্বর ২০১৮ 
  11. "Economics of Fisheries and Aquaculture in the Coral Triangle" (PDF)। Mandaluyong City, Philippines: Asian Development Bank। ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ৪ নভেম্বর ২০১৮ 
  12. "Coral Triangle; Facts"World Wildlife Fund। সংগ্রহের তারিখ ৪ নভেম্বর ২০১৮ 
  13. The coral triangle and climate change : ecosystems, people and societies at risk : summary (PDF)। Sydney NSW Australia: WWF Australia। মে ২০০৯। আইএসবিএন 978-1-921031-35-9। সংগ্রহের তারিখ ৪ নভেম্বর ২০১৮ 
  14. Purdy, Elizabeth Rholetter। "Philippine Sea"http://rizal.lib.admu.edu.ph। Salem Press Encyclopedia of Science। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুলাই ২০১৮  |ওয়েবসাইট= এ বহিঃসংযোগ দেয়া (সাহায্য)[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  15. "Philippine Seas" (PDF)। Greenpeace। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুলাই ২০১৮ 
  16. "How Is Climate Change Affecting the Philippines?"Climate Reality Project। climaterealityproject.org। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুলাই ২০১৮ 
  17. Quismundo, Tarra (২০১১-০৬-১৩)। "South China Sea renamed in the Philippines"Philippine Daily Inquirer। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০১-২৬ 
  18. "Crowder, M. (2006). Dreadnoughts' FIERY FINALE. World War II, 21(5), 48."। 
  19. Lambert, J. W. (2011). OLD-FASHIONED TURKEY SHOOT. Aviation History, 22(2), 22-29. 
  20. Kennedy, D. M. (1999). Victory at sea. Atlantic, 283(3), 51-76. 
  21. Dimacali, TJ (৮ মে ২০১৭)। "'Fish more important than gold' –BFAR on Benham Rise"GMA News। সংগ্রহের তারিখ ৪ নভেম্বর ২০১৮ 
  22. Cinco, Maricar (১৯ মার্চ ২০১৭)। "Exploring Benham Rise's unknown treasures"Inquirer.net। Philippine Daily Inquirer। সংগ্রহের তারিখ ৪ নভেম্বর ২০১৮ 

স্থানাঙ্ক: ২০° উত্তর ১৩০° পূর্ব / ২০° উত্তর ১৩০° পূর্ব / 20; 130