ফজলুর রহমান উসমানি

দারুল উলুম দেওবন্দের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য

ফজলুর রহমান দেওবন্দি (১৮২৯-১৯০৭ ,উর্দু:فضل الرحمن دیوبندی) ছিলেন দারুল উলুম দেওবন্দের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা, এর মজলিসে-শুরার প্রতিষ্ঠাতা সদস্য এবং ভারতের প্রখ্যাত সুুুুুন্নি হানাফি আলেম। তিনি ইসলামের ৩য় খলিফা ওসমানের বংশধর, তাই তিনি ফজলুর রহমান উসমানি নামেও পরিচিত।[১]

ফজলুর রহমান দেওবন্দি
فضل الرحمن دیوبندی
ফজলুর রহমান উসমানী.png
ব্যক্তিগত
জন্ম১৮২৯
মৃত্যু১৯০৭(1907-00-00) (বয়স ৭৫–৭৬)
ধর্মইসলাম
জাতীয়তাব্রিটিশ ভারত
সন্তানশাব্বির আহমেদ উসমানি
আজিজুর রহমান উসমানি
হাবিবুর রহমান উসমানি
উল্লেখযোগ্য কাজদারুল উলুম দেওবন্দ
যেখানের শিক্ষার্থীদিল্লি কলেজ
পেশামাদ্রাসার উপপরিদর্শক
মুসলিম নেতা
পেশামাদ্রাসার উপপরিদর্শক

জীবনকালসম্পাদনা

তাঁর জন্মভূমি এবং তাঁর পরিবারের প্রবীণদের কাছ থেকে প্রাথমিক পড়াশোনা করার পরে তিনি দিল্লী কলেজে উচ্চতর পড়াশোনার জন্য যান, যেখানে তিনি মামলুক আলী নানুতুবির সাথে যুক্তি, দর্শন এবং অন্যান্য বিজ্ঞান ও কলা নিয়ে পড়াশোনা করেন। পরে শাহ আবদুল গণি দেহলভীর কাছ থেকে হাদীসের বই পড়েন। তিনি ফারসি ও উর্দুর একজন বিশিষ্ট কবি ছিলেন। ১৮৮৩ সালে দেওবন্দে একটি মহামারী শুরু হয়েছিল। তিনি এই প্লেগটির সর্বনাশ ফার্সী ভাষায় লিখেছেন। এই কবিতার ঐতিহাসিক নাম "কিসা গাম-ই-দিবান (১৩০১ হিজরী)" যা দেওবন্দের প্রসঙ্গে একটি ঐতিহাসিক দলিল। ফজলুর রহমান দেওবন্দি ইতিহাসের উপাদান বের করতেও পারদর্শী ছিলেন, তাই তাঁর অনেক কবিতা ও ঐতিহাসিক অনুচ্ছেদ দারুল উলূমের ইতিহাসে লিপিবদ্ধ রয়েছে। তিনি শিক্ষা বিভাগে মাদ্রাসার উপ-পরিদর্শক পদও রেখেছিলেন। মোতায়েন বেরেলী, বিজনোর এবং শাহরানপুর জেলার। ১৮৫৭ সালে, বেরলিতে মাদ্রাসার একজন উপ-পরিদর্শক ছিলেন। এই সময়ে মুহাম্মদ আহসান নানুতুবী যখন বেরেলি ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হন, তখন তিনি তাঁর কিছু বিষয় তাঁর কাছে অর্পণ করেন। [২] ১৯০৭ সালে তিনি মারা যান। আতিক-উর-রেহমান উসমানী, দিল্লির নাজিম- ই- আলা তাঁর নাতি ছিলেন।

তেহরিক-এ-কিয়াম দারুল উলূমসম্পাদনা

১৮৫৭ সালে সিপাহি বিপ্লব সমগ্র ভারতকে, বিশেষত দিল্লিউত্তরপ্রদেশ রাজ্যকে কাঁপিয়ে দিয়েছিল, যেখান থেকে যুদ্ধ শুরু হয়েছিল এবং শেষ হয়েছিল। বিপ্লব ব্যর্থ হলে সবাই নিজ দেশে ফিরে যেতে শুরু করে। দেওবন্দে মুহাম্মদ কাসেম নানুতুবির শ্বশুর ছিলেন, তাই তিনি এখানে প্রায়শই আসতেন এবং থাকতেন। দেওবন্দের সৈয়দ মুহাম্মদ আবিদ (হাজী আবিদ হুসেন), ফজলুর রহমান উসমানীযুলফিকার আলী দেওবন্দীর সাথে নানুতুবির গভীর ও স্নেহময় সম্পর্ক ছিল। এই কয়েকজন মনিষী সেই সময় ইসলামি জ্ঞান পুনরুদ্ধার ও উম্মাহর দূরাবস্থার সমাধান খুঁজতে সচেষ্ট হন। তাঁরা দিল্লির পরিবর্তে দেওবন্দে ইসলামি শিক্ষা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেন এবং তাঁর সংস্কার করেন। পূর্বের রীতি ছিল আলেমদের রাজকোষ থেকে অর্থ সরবরাহ করা হত এবং তাঁদের নিয়োগ দেওয়া হত। কিন্তু ব্রিটিশ যুগে এটি সম্ভব ছিল না, তারা ভারত ও মুসলমানদের মধ্যে শত্রুতার জন্য প্রস্তুত ছিলেন। প্রয়োজনগুলি পূরণ করার জন্য কিন্তু সেই সময়ে রাষ্ট্রীয় সাহায্য নেওয়ার পক্ষে কোন যুুুক্তি ছিল না, কেন্দ্রটি প্রতিষ্ঠার দাবিটিও প্রবল ছিল। তাই এখন পূর্ববর্তী রীতিতে নির্ভর করার পরিবর্তে অন্য পদ্ধতি অবলম্বন করার প্রয়োজন রয়েছে, দারুল উলুম দেওবন্দের মূলনীতি অর্থাৎ অষ্টক মূলনীতি থেকে এটি স্পষ্ট যে এই গণ্যমান্য ব্যক্তিদের দৃষ্টিতে, পদ্ধতিটি ছিল জনসাধারণের অনুদান, যাতে সরকার বা সামন্ত প্রভুর কাছ থেকে আর্থিক সহায়তা অন্তর্ভুক্ত ছিল না, যাতে এই শিক্ষাটি সরকারী প্রভাব থেকে সম্পূর্ণ মুক্ত হয়। [৩]

ফজলুর রহমান দেওবন্দির তিনজন স্ত্রী ছিল। প্রথম স্ত্রী বাদে অন্য দুই স্ত্রীর ৯ ছেলে এবং ১ জন মেয়ে ছিল। কয়েকজনের নামঃ

  1. দারুল উলূম দেওবন্দের আজিজ-উর-রেহমান ওসমানী গ্র্যান্ড মুফতি
  2. দারুল উলূম দেওবন্দীর সুপারিনটেনডেন্ট হাবীব-উর-রেহমান ওসমানী দেওবন্দী
  3. শাব্বির আহমদ ওসমানী মুহাদ্দিথ এবং দারুল উলূম দেওবন্দের সুপারিনটেন্ডেন্ট [৪]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. "MAULANA FAZLUR RAHMAN USMANI"dud.edu.in। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৬-২৮ 
  2. مولانا احسن نانوتوی از حاجی فضل حق، صفحہ 53
  3. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০২০ 
  4. http://www.darululoom-deoband.com/urdu/