প্রবেশদ্বার:জ্যোতির্বিজ্ঞান

জ্যোতির্বিজ্ঞান প্রবেশদ্বারে আপনাকে স্বাগতম

ভূমিকা

জ্যোতির্বিজ্ঞান (ইংরেজি Astronomy প্রতিশব্দটি গ্রিক: ἀστρονομία শব্দটি থেকে উদ্ভূত) হল প্রাকৃতিক বিজ্ঞানের একটি শাখা। এই শাখায় গ্রহ, প্রাকৃতিক উপগ্রহ, তারা, ছায়াপথধূমকেতু ইত্যাদি মহাজাগতিক বস্তু এবং অতিনবতারা বিস্ফোরণ, গামা রশ্মি বিচ্ছুরণমহাজাগতিক অণুতরঙ্গ পটভূমি বিকিরণ প্রভৃতি ঘটনাবলি এবং সেগুলির বিবর্তনের ধারাটিকে গণিত, পদার্থবিজ্ঞান , রসায়নভূগোল এর মাধ্যমে পর্যবেক্ষণ ও ব্যাখ্যা করা হয়। সাধারণভাবে বললে, পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলের বাইরে ঘটা সকল ঘটনাই জ্যোতির্বিজ্ঞানের এক্তিয়ারভুক্ত বিষয়। ভৌত বিশ্বতত্ত্ব নামে আরেকটি পৃথক শাখাও জ্যোতির্বিজ্ঞানের সঙ্গেই সম্পর্কিত। এই শাখায় সামগ্রিকভাবে মহাবিশ্ব নিয়ে বৈজ্ঞানিক পর্যালোচনা করা হয়।

জ্যোতির্বিজ্ঞান হল প্রাকৃতিক বিজ্ঞানের প্রাচীনতম শাখাগুলির অন্যতম। লিপিবদ্ধ ইতিহাসে দেখা যায় প্রাচীন ব্যাবিলনীয়, গ্রিক, ভারতীয়, মিশরীয়, নুবিয়ান, ইরানি, চিনা, মায়া ও বেশ কয়েকটি আমেরিকান আদিবাসী জাতিগোষ্ঠী নিয়মবদ্ধ প্রণালীতে রাতের আকাশ পর্যবেক্ষণ করত। ঐতিহাসিক দৃষ্টিকোণ থেকে জ্যোতির্মিতি, সেলেস্টিয়াল নেভিগেশন, পর্যবেক্ষণমূলক জ্যোতির্বিজ্ঞান এবং পঞ্জিকা প্রণয়নের মতো নানা রকম বিষয় ছিল জ্যোতির্বিজ্ঞানের অন্তর্গত। তবে আজকাল পেশাদার জ্যোতির্বিজ্ঞানকে প্রায়শই জ্যোতিঃপদার্থবিজ্ঞানের সমার্থক মনে করা হয়।

পেশাদার জ্যোতির্বিজ্ঞান দু’টি উপশাখায় বিভক্ত: পর্যবেক্ষণমূলকতাত্ত্বিক। জ্যোতির্বৈজ্ঞানিক বস্তুগুলিকে পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে তথ্য সংগ্রহ করা এবং সেই সব তথ্য পদার্থবিজ্ঞানের মূল সূত্র অনুযায়ী ব্যাখ্যা করা পর্যবেক্ষণমূলক জ্যোতির্বিজ্ঞানের কাজ। অন্যদিকে তাত্ত্বিক জ্যোতির্বিজ্ঞানে এই সব বস্তু ও মহাজাগতিক ঘটনাগুলি বর্ণনার জন্য কম্পিউটার বা অন্যান্য বিশ্লেষণধর্মী মডেল তৈরির কাজ করা হয়। জ্যোতির্বিজ্ঞানের এই দু’টি ক্ষেত্র পরস্পরের সম্পূরক। তাত্ত্বিক জ্যোতির্বিজ্ঞান পর্যবেক্ষণের ফলাফলগুলির ব্যাখ্যা অনুসন্ধান করে। অন্যদিকে পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে তাত্ত্বিক ফলাফলগুলির সত্যতা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যায়।

বিজ্ঞানের অল্প কয়েকটি শাখায় এখনও অপেশাদারেরা প্রত্যক্ষ ভূমিকা গ্রহণ করে থাকেন। জ্যোতির্বিজ্ঞান এই শাখাগুলির অন্যতম। মূলত অস্থায়ী ঘটনাগুলি পর্যবেক্ষণ ও আবিষ্কারের ক্ষেত্রে অপেশাদার জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের ভূমিকা উল্লেখযোগ্য। নতুন ধূমকেতু আবিষ্কারের ক্ষেত্রেও তাঁদের অবদান যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। (সম্পূর্ণ নিবন্ধ...)

নির্বাচিত নিবন্ধ

বুধ (ইংরেজি: Mercury; আ-ধ্ব-ব: [ˈmɜ(ɹ).kjə.ɹi]) মার্কারি) সৌরজগতের প্রথম এবং ক্ষুদ্রতম গ্রহ। এটি সূর্যের সর্বাপেক্ষা নিকটতম গ্রহ। এর কোনো উপগ্রহ নাই। এটি সূর্যকে প্রতি ৮৮ দিনে একবার প্রদক্ষিণ করে। এর উজ্জ্বলতার আপাত মান -২.৬ থেকে +৫.৭ পর্যন্ত হয়ে থাকে। কিন্তু একে পৃথিবী থেকে সহজে দেখা যায় না, কারণ সূর্যের সাথে এর বৃহত্তম কৌণিক পার্থক্য হচ্ছে মাত্র ২৮.৩ ডিগ্রী। কেবল সকাল ও সন্ধ্যার ক্ষীণ আলোয় এটি দৃশ্যমান হয়। বুধ গ্রহ সম্বন্ধে সংগৃহীত তথ্যের পরিমাণ তুলনামূলক কম। বুধ অভিমুখী নভোযান মেরিনার ১০ ১৯৭৪ - ১৯৭৫ সালে অনুসন্ধানী অভিযান চালিয়েছিল এবং মেসেঞ্জার ২০০৪ - ২০১৫ সালে ৪০০০ বার অনুসন্ধানী অভিযান চালিয়েছিল।

ভৌত বৈশিষ্ট্যের দিক দিয়ে বুধ অনেকটা চাঁদের মতো কারণ চাঁদের মতো এই গ্রহেও রয়েছে প্রচুর খাদ। গ্রহটির কোনো স্থিতিশীল বায়ুমণ্ডল নেই, নেই কোনো প্রাকৃতিক উপগ্রহ। এর একটি সুবৃহৎ লৌহ কেন্দ্র রয়েছে। এই কেন্দ্র কর্তৃক উৎপাদিত চৌম্বক ক্ষেত্র পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্রের তুলনায় ০.১% অধিক শক্তিশালী। বুধের পৃষ্ঠতলের তাপমাত্রা ৯০ থেকে ৭০০ কেলভিনের মধ্যে থাকে। সবচেয়ে উত্তপ্ত স্থান হচ্ছে অর্ধসৌর বিন্দু এবং শীতলতম স্থান হল এর মেরুর নিকটে অবস্থিত খাদসমূহের নিম্ন বিন্দু। (সম্পূর্ণ নিবন্ধ...)

নির্বাচিত চিত্র - আরেকটি দেখান

Flaming Star Nebula
Flaming Star Nebula
চিত্রের কৃতিত্ত্ব: ব্যবহারকারী:Hewholooks

আইসি ৪০৫, এছাড়াও শার্পলেস ২২৯, ক্যাল্ডওয়েল ৩১ এবং দ্য ফ্লেমিং স্টার নেবুলা নামে পরিচিত, হলো একটি নির্গমন/প্রতিফলন নীহারিকা এবং অরিগা নক্ষত্রমণ্ডলের একটি ক্যাল্ডওয়েল অবজেক্ট। এটি নীলাভ তারা এই অরিগে ঘিরে রয়েছে। এটি +৬.০ মাত্রায় জ্বলজ্বল করে। নীহারিকাটি প্রায় ৫ আলোকবর্ষ জুড়ে অবস্থিত। এটি ফ্লেমিং স্টার নেবুলার একটি সাদা আলোর ছবি যা প্রতিফলন নীহারিকাটির "ধোঁয়া" দেখাচ্ছে।

মহাকাশযান মেরিনা'র তোলা বুধ গ্রহের ছবি।
মহাকাশযান মেরিনা'র তোলা বুধ গ্রহের ছবি।

উপবিষয়শ্রেনী

Category puzzle
Category puzzle
উপবিষয়শ্রেনীসমূহ দেখতে [►] চাপুন

স্বীকৃত ভুক্তি

জ্যোতির্বিজ্ঞান বিষয়ক উইকিপিডিয়া স্বীকৃত ভুক্তির তালিকা

ভাল নিবন্ধ

আজাকি নিবন্ধ

জ্যোতির্বিজ্ঞানীয় ঘটনা

সকল সময় ইউটিসি সময়কে নির্দেশ করে যদি নির্দিষ্টভাবে উল্লেখ না থাকে।

১ জুন, ০২:৫৪ চাঁদের জন্য নেপচুনের অদৃশ্যমানতা
২ জুন, ০৭:২৩ অনুসুরবিন্দুতে চাঁদ
৪ জুন, ১৫:১২ উচ্চতর গ্রহসংযোগ-এ শুক্র গ্রহ
৬ জুন, ১২:৩৮ অমাবস্যা
১৪ জুন, ১৩:৩৬ অনুসুরবিন্দুতে চাঁদ
১৪ জুন, ১৬:১৫ উচ্চতর গ্রহসংযোগ-এ বুধ গ্রহ
২০ জুন, ২০:৫১ পৃথিবীতে উত্তর অয়নান্ত
২২ জুন, ০১:০৮ পূর্ণিমা
২৭ জুন, ১১:৪৫ অনুসুরবিন্দুতে চাঁদ
২৭ জুন, ১৫:০০ চাঁদের জন্য শনি গ্রহের অদৃশ্যমানতা
২৮ জুন, ০৮:৫৮ চাঁদের জন্য নেপচুনের অদৃশ্যমানতা

আপনি যা করতে পারেন

  1. নিবন্ধ সম্প্রসারণ
  2. নিবন্ধের যান্ত্রিকতা দৃরীকরণ
  3. নতুন নিবন্ধ সৃষ্টি

সম্পর্কিত উইকিমিডিয়া


উইকিসংবাদে জ্যোতির্বিজ্ঞান
উন্মুক্ত সংবাদ উৎস


উইকিউক্তিতে জ্যোতির্বিজ্ঞান
উক্তি-উদ্ধৃতির সংকলন


উইকিবইয়ে জ্যোতির্বিজ্ঞান
উন্মুক্ত পাঠ্যপুস্তক ও ম্যানুয়াল


উইকিঅভিধানে জ্যোতির্বিজ্ঞান
অভিধান ও সমার্থশব্দকোষ


উইকিউপাত্তে জ্যোতির্বিজ্ঞান
উন্মুক্ত জ্ঞানভান্ডার


উইকিভ্রমণে জ্যোতির্বিজ্ঞান
উন্মুক্ত ভ্রমণ নির্দেশিকা