প্রথম মানসুর মুহাম্মাদ

প্রথম মানসুর মুহাম্মাদ ছিলেন হামার আইয়ুবী আমির, মুযাফফর তাকিউদ্দিন উমরের ছেলে এবং সালাহুদ্দিন এবং আদিলের ভাই নুরুদ্দিন শাহানশাহের নাতি।[১] তিনি ১১৯১-১২১৯ সাল পর্যন্ত হামা শাসন করেছিলেন।

প্রথম মানসুর মুহাম্মাদ
হামার আমির
রাজত্ব১১৯১–১২১৯
পূর্বসূরিপ্রথম মুযাফফর উমর
উত্তরসূরিনাসির কিলিজ আরসালান
জন্ম১১৭১
মৃত্যু১২২১ (বয়স ৪৯–৫০)
রাজবংশআইয়ুবীয়
ধর্মসুন্নি ইসলাম

রাজ্যাভিষেক

সম্পাদনা

১১৯১ সালে মানজিকার্ট অবরোধের সময় পিতা তাকিউদ্দিন উমরের মৃত্যুতে মানসুর অনুরোধ করেছিলেন যে, সালাহুদ্দিন তাকে তার পিতার সমস্ত অঞ্চলের দায়িত্ব দিবেন। তবে তার অনুরোধের সুর এমন ছিল যে এটি সালাহুদ্দিনকে ভীষণভাবে ক্ষুব্ধ করেছিল। তিনি তাকে সম্পূর্ণভাবে ক্ষমতাচ্যুত করার হুমকি দিয়েছিলেন। মানসুর সালাহুদ্দিনের ভাই আদিলকে তার জন্য সুপারিশ করতে বলেছিলেন, কিন্তু সালাহুদ্দিন তাকিউদ্দিন উমরের রাজত্ব থেকে জাজিরাকে আলাদা করে তার নিজের ছেলে আফযালকে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।[২] তবে তিনি হামা এবং আশেপাশের শহর ও পাশাপাশি সিরিয়া জুড়ে বিক্ষিপ্ত বিভিন্ন শহর - সালামিয়াহ, মারারাতুন নুমান, কালআত নাজম এবং মানবিজের নেতৃত্বের জন্য মানসুরকে নিশ্চিত করেছিলেন।[৩]

উত্তরাধিকার যুদ্ধ

সম্পাদনা

হামার সদ্য প্রতিষ্ঠিত শাসক হিসাবে, মানসুর সালাহুদ্দিনের আরেক পুত্র যাহির গাজী শাসিত আলেপ্পোর বৃহত্তর আইয়ুবীয় রাজ্যে একটি সহায়ক ভূমিকা বজায় রাখবেন বলে আশা করা হয়েছিল।[৪] তার সিংহাসন আরোহণের কয়েক মাসের মধ্যে সালাহুদ্দিন মারা যান এবং তার পুত্র আফযাল এবং আজিজ উসমানের মধ্যে ক্ষমতার লড়াই শুরু হয়। যাহির গাজীর সাথে মানসুর আফযালকে সমর্থনকারী সিরিয়ার আইয়ুবীয় আমিরদের জোটে যোগদান করেন।[৫]

পরবর্তী যুদ্ধে মানসুর যাহিরকে সমর্থন করার জন্য সৈন্য পাঠাতে সম্মত হন যার বিনিময়ে বারিনের দুর্গ ঘেরাও করার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল, যেটি যাহিরের অন্য একজন সামন্তের শাসনে ছিল।[৬] মানসুর ১১৯৯ সালের সেপ্টেম্বরে দুর্গটি নিয়েছিলেন কিন্তু পরে সেটির শাসক ইযযুদ্দিন ইবনুল মুকাদ্দামকে তার বিনিময়ে মানবিজ এবং কালআত নাজম দিয়ে ক্ষতিপূরণ দেন।[৭] মানসুর পরে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন যে, যাহির এবং আফযালকে সমর্থন করার মাধ্যমে নয়, বরং আদিলকে সমর্থন করে তার স্বার্থ উদ্ধার হবে। এটি আজ-জাহিরকে মা'রারাত আল-নু'মান আক্রমণ করতে প্ররোচিত করেছিল, যা তিনি গ্রহণ করেছিলেন এবং তারপরে হামাকে আক্রমণ করেছিলেন। 1201 সালের মে মাসে অবরোধ শুরু হয় এবং এক মাস পর মানসুর আয-জাহিরকে 30,000 দিনার প্রদানের প্রতিশ্রুতি দিয়ে এবং যখন এবং তিনি দামেস্ক জয় করতে সফল হন তবে তার আনুগত্যের শপথ করে শান্তি আলোচনা করতে সক্ষম হন। [৮]

যাইহোক, ১২০১ সালের অক্টোবরে (মুহাররম ৫৯৮) আফযাল আধিপত্যের জন্য তার সংগ্রাম ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। তিনি তার অনুসারীদের একত্রিত করেন এবং তাদের হয় তার ভাই যাহির বা তার চাচা আদিলকে অনুসরণ করতে বলেন। তারপরে তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে আদিলের কাছে জমা দেন এবং তার পূর্বের সম্পত্তিতে চলে যান। মানসুরের মত প্রাক্তন মিত্রদের জন্য সৌভাগ্য ছিল যে, আদিলও একটি সাধারণ পুনর্মিলন চেয়েছিলেন এবং মানসুরকে হামার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল।[৯]

সামরিক অভিযান

সম্পাদনা

১২০৩ সালের মে মাসে (রমজান ৫৯৯) মানসুর ত্রিপোলির ক্রুসেডার কাউন্টি এবং ক্রাক দেস শেভালিয়ার্সের হস্পিটালার দুর্গে আক্রমণের জন্য হিমসের মুজাহিদ এবং বালাবেকের বাহরাম শাহের সহায়তা পান, যেখান থেকে হামা অঞ্চলে প্রায়শই অভিযান চালানো হত।[১০] ১৬ মে ১২০৩ (৩ রমজান ৫৯৯) সম্মিলিত আইয়ুবীয় বাহিনী এবং ক্রুসেডারদের মধ্যে একটি যুদ্ধ সংঘটিত হয়। মানসুর বিজয়ী হয়েছিলেন এবং অনেক নাইটসকে বন্দী হিসাবে হামাতে ফেরত পাঠান।[১১] তিন সপ্তাহেরও কম সময় পরে ৩ জুন (২১ রমজান) একটি হস্পিটালার বাহিনী বারিনকে আক্রমণ করার চেষ্টা করে। কিন্তু মানসুর তাদেরও পরাজিত করেন এবং প্রচুর সংখ্যক নিহত হয়।[১২]

যাইহোক, ১২০৪ বা ১২০৫ (৬০১) সালে একটি ক্রুসেডার অভিযান মানসুরকে কঠিনভাবে পরাজিত করে এবং হামার অনেক লোককে ক্রুসেডাররা হত্যা বা বন্দী করে।[১৩] মানসুর দামেস্কের মুয়াযযামের কাছে সাহায্য চেয়েছিলেন। কিন্তু যখন এই তার সাহায্যের সৈন্যদল পৌঁছায়, তখন আর কোনও সংঘর্ষ ঘটেনি। আর মানসুর হস্পিটালারদের সাথে একটি যুদ্ধবিরতিতে সমঝোতা করতে সক্ষম হন।[১৪]

১২০৯-১০ সালে মানসুর জর্জিয়ার রাণী তামারের বাহিনীকে প্রতিহত করতে আদিলের একটি বড় অভিযানে যোগ দেন, রাণীর এই অভিযান পূর্ব আনাতোলিয়ায় মুসলিম আমিরাতের জন্য হুমকিস্বরূপ ছিল। আইয়ুবীয়দের বাহিনী এতটাই বড় ছিল যে জর্জিয়ানরা আখলাত থেকে হুমকি দেওয়া বাহিনী প্রত্যাহার করেন। তাই আদিল তার সেনাবাহিনীকে খাবুরের জেনগি শহরগুলোর দিকে ঘুরিয়ে দেন যেটি দখলে নিয়েছিলেন। এরপর নুসাইবিন দখলের জন্য তিনি মানসুর এবং আশরাফকে দায়িত্ব দেন। আর আদিল সিনজার দখলে নেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন, কিন্তু ব্যর্থ হন। পরে আদিল নুসাইবিনকে নিজের দখলে রাখেন, তাই মানসুর এই অভিযান থেকে কিছুই লাভ করতে পারেননি।[১৫]

এপ্রিল ১২১৪ এবং মে ১২১৫ (৬১১) এর মধ্যে কিছু সময়ে হস্পিটালাররা ক্রাক দেস শেভালিয়ার্সে আবারও একটি বিশাল সৈন্য সংগ্রহ শুরু করে, হিমস এবং হামা উভয়কেই হুমকি দেয়। মানসুর আলেপ্পোতে যাহির গাজীকে চিঠি লিখে সকল অভিযান ঠেকাতে সক্ষম হয়েছিলেন। যাহির ক্রুসেডারদের তার মিত্রদের আক্রমণ না করার জন্য সতর্ক করেছিলেন। ক্রুসেডাররা কর নিবেদন করেছে এবং প্রত্যাশিত আক্রমণ কখনোই বাস্তবায়িত হয়নি।[১৬]

মৃত্যু এবং উত্তরাধিকার

সম্পাদনা

১২১৯ সালে (৬১৬) মানসুর হামার নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিদের একত্রিত করেন এবং সুলতান কামিলকে সাহায্য করার জন্য মুযাফফরকে মিশরে পাঠানোর আগে, তার জ্যেষ্ঠ পুত্র দ্বিতীয় মুযাফফর মাহমুদের কাছে তার উত্তরাধিকারী হিসাবে আনুগত্যের শপথ নেন। কিছু সময় পরে তিনি তার দ্বিতীয় পুত্র নাসির কিলিজ আর্সলানকে ফিলিস্তিনের অভিযানে মুয়াযযামের সাথে যোগ দিতে প্রেরণ করেন। যাইহোক, তিনি মারা যাওয়ার সাথে সাথে কিছু নেতৃস্থানীয় আমির নাসিরকে তার ভাইয়ের জায়গায় সিংহাসন দখল করার জন্য হামায় ফেরত আমন্ত্রণ জানানোর সিদ্ধান্ত নেন, এই আশায় যে তারা তার নামমাত্র শাসনের অধীনে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ প্রয়োগ করতে সক্ষম হবেন। মানসুর মারা যান এবং নাসির যথাযথভাবে নিজেকে হামাতে শাসক হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করেন।

মিশরে যখন মুযাফফর তার পিতার মৃত্যুর খবর জানতে পারেন, তখন তিনি সুলতান কামিলের কাছে গিয়ে তার সিংহাসন দাবি করার অনুমতি নেন। সিরিয়ায় পৌঁছে তিনি তার ভাইকে সিংহাসনে দৃঢ়ভাবে প্রতিষ্ঠিত দেখতে পান। হামার বিশিষ্ট ব্যক্তিদের কেউই নাসিরকে অপসারণে তাকে সমর্থন করতে রাজি ছিলেন না এবং সিরিয়ার অন্য আইয়ুবীয় আমিরদের কেউই তাকে সাহায্য করতে আগ্রহী ছিলেন না। তাই তিনি মিশরে ফিরে যান, যেখানে তাকে কামিল একটি জায়গিরদার দিয়েছিলেন।

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. Lane-Poole, S, The Mohammedan Dynasties, Constable & Co, London 1894 p. 77
  2. Humphreys, R. S. From Saladin to the Mongols, The Ayyubids of Damascus, SUNY Press 1977, p.65
  3. Humphreys, R. S. From Saladin to the Mongols, The Ayyubids of Damascus, SUNY Press 1977, p.83
  4. Humphreys, R. S. From Saladin to the Mongols, The Ayyubids of Damascus, SUNY Press 1977, p.82
  5. Humphreys, R. S. From Saladin to the Mongols, The Ayyubids of Damascus, SUNY Press 1977, p.95,98
  6. Humphreys, R. S. From Saladin to the Mongols, The Ayyubids of Damascus, SUNY Press 1977, p.113
  7. Humphreys, R. S. From Saladin to the Mongols, The Ayyubids of Damascus, SUNY Press 1977, p.114
  8. Humphreys, R. S. From Saladin to the Mongols, The Ayyubids of Damascus, SUNY Press 1977, p.119
  9. Humphreys, R. S. From Saladin to the Mongols, The Ayyubids of Damascus, SUNY Press 1977, p.122
  10. Humphreys, R. S. From Saladin to the Mongols, The Ayyubids of Damascus, SUNY Press 1977, p.133
  11. The Crusades and the Military Orders; Hunyadi Z. and Laszlovszky J.eds., Expanding the Frontiers of Medieval Latin Christianity, CEU Medievalia, 2001 p.63
  12. The Crusades and the Military Orders; Hunyadi Z. and Laszlovszky J.eds., Expanding the Frontiers of Medieval Latin Christianity, CEU Medievalia, 2001 p.64
  13. Nicolle, D., The Fourth Crusade, 1202-04, The Betrayal of Byzantium, Osprey Publishing, p.20
  14. Humphreys, R. S. From Saladin to the Mongols, The Ayyubids of Damascus, SUNY Press 1977, p.134-5
  15. Humphreys, R. S. From Saladin to the Mongols, The Ayyubids of Damascus, SUNY Press 1977, p.130
  16. The Crusades and the Military Orders; Hunyadi Z. and Laszlovszky J.eds., Expanding the Frontiers of Medieval Latin Christianity, CEU Medievalia, 2001 p.65