প্রতুল ভট্টাচার্য

বিপ্লবী

প্রতুল ভট্টাচার্য বা প্রতুলচন্দ্র ভট্টাচার্য (ইংরেজি: Pratul Vattacharya) (১৬ জানুয়ারি, ১৯০০ - ২৯ আগস্ট, ১৯৭৮) ছিলেন ভারতীয় উপমহাদেশের ব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলনের একজন অন্যতম ব্যক্তিত্ব এবং অগ্নিযুগের বিপ্লবী। ছাত্রাবস্থাতেই বিপ্লবী নেতা হেমেন্দ্রকিশোর আচার্য চৌধুরীর প্রভাবে যুগান্তর দলের সঙ্গে যুক্ত হন। ময়মনসিংহে শিক্ষা শেষ করে কলকাতায় আইন কলেজে পড়ার সময় বেঙ্গল ক্রিমিনাল ল অ্যাামেন্ডমেন্ট অ্যাক্টে আটক বন্দি হিসেবে জেলে থাকেন। ১৯২৮ সালে মুক্ত হন। ঐ বছরই কলকাতা কংগ্রেসে সুভাষচন্দ্র বসুর নেতৃত্বে পরিচালিত স্বেচ্ছাসেবক বাহিনীর সহ দলনেতার ভূমিকা গ্রহণ করেন। ঐ আধা-সামরিক বাহিনী গঠন করার উদ্দেশ্য ছিলো ভবিষ্যতে বিপ্লবী কর্মকাণ্ডের প্রস্তুতি। ১৯৩০ সালে তিন আইনে ধরা পড়ে ভারতের বিভিন্ন কারাগারে থাকেন। ১৯৩৮ সনে মুক্তি পাবার পর থেকে আমৃত্যু বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির সদস্য ছিলেন। পূর্ব বাংলার মুক্তি আন্দোলনের সময় বহুভাবে এই আন্দোলনকে সাহায্য করেছেন।[১][২] তিনি ব্রিটিশ রাজের জেলে মোট ১০ বছর বন্দি ছিলেন।[৩]

প্রতুল ভট্টাচার্য
জন্ম
আন্দোলনব্রিটিশ বিরোধী স্বাধীনতা আন্দোলন

জন্মসম্পাদনা

প্রতুল ভট্টাচার্যের জন্ম নেত্রকোণা জেলার কেন্দুয়া উপজেলায়। তার পিতার নাম গোবিন্দচন্দ্র ভট্টাচার্য।[১]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. সুবোধ সেনগুপ্ত ও অঞ্জলি বসু সম্পাদিত, সংসদ বাঙালি চরিতাভিধান, প্রথম খণ্ড, সাহিত্য সংসদ, কলকাতা, নভেম্বর ২০১৩, পৃষ্ঠা ৪০৬, আইএসবিএন ৯৭৮-৮১-৭৯৫৫-১৩৫-৬
  2. দরজি আবদুল ওয়াহাব, ময়মনসিংহের চরিতাভিধান, ময়মনসিংহ জেলা দ্বিশতবার্ষিকী উদযাপন কর্তৃপক্ষ, ময়মনসিংহ, বাংলাদেশ, এপ্রিল ১৯৮৯, পৃষ্ঠা ৩১৯-৩২০।
  3. ত্রৈলোক্যনাথ চক্রবর্তী, জেলে ত্রিশ বছর, পাক-ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রাম, ধ্রুপদ সাহিত্যাঙ্গন, ঢাকা, ঢাকা বইমেলা ২০০৪, পৃষ্ঠা ২১৩।