হিন্দু পুরাণ অনুসারে দক্ষ বা প্রজাপতি দক্ষ ছিলেন ব্রহ্মার পুত্র। আক্ষরিকভাবে দক্ষ শব্দের অর্থ পারদর্শী, কর্মসমর্থ বা সজ্জন৷[১]) পদ্মযোনি ব্রহ্মা তাঁর দশ মানসপুত্র|মানসপুত্রের সৃষ্টির পর নিজের ডান বৃৃদ্ধাঙ্গুষ্ঠ, বক্ষস্থল, হৃদয় এবং ভ্রূ থেকে যথাক্রমে সৃষ্টি করলেন দক্ষ, ধর্মঠাকুর, কামদেব এবং অগ্নিদেবকে সৃষ্টি করলেন৷[২] বিভিন্ন শিল্পকর্মে দক্ষরাজাকে বৃৃহদাকৃতি স্থূলকায়, ভুঁড়িযুক্ত, ছাগ বা মেষের আকৃতির এবং মাথায় দিব্য শিংযুক্ত বলে বর্ণনা করা হয়েছে৷

প্রজাপতি দক্ষ
রাজন্বর্গের দেবতা
Virabhadra Daksha.jpg
বীরভদ্র (বামে) ও মেষমুখী প্রজাপতি দক্ষ
দেবনাগরীदक्ष (দক্ষ)
সহোদরচতুর্কুমার এবং নারদ
সন্তানদিতি, অদিতি, সতী, রতি সহ একাধিক
সঙ্গীপ্রসূতি
পাঞ্চজনী
মাতাপিতাব্রহ্মা

কন্যাদিগের নামসম্পাদনা

 
নারদের ওপর দক্ষের রাগ এবং চিন্তাশক্তির বলে নারদের অন্য ছায়াপথে গমন

বিষ্ণুপুরাণ এবং পদ্মপুরাণ অনুসারে রাজা দক্ষ ও তার প্রথমা পত্নী প্রসূতির ২৪ কন্যা জন্মলাভ করে৷ তাদের নাম হলো:

  1. শ্রদ্ধা
  2. ভক্তি
  3. ধৃৃৃতি
  4. তুষ্টি
  5. পুষ্টি
  6. মেধা
  7. ক্রিয়া
  8. বুদ্ধি
  9. লজ্জা গৌরী
  10. বপু
  11. শান্তি
  12. সিদ্ধিকা
  13. কীর্ত্তি
  14. খ্যাতি
  15. সতী
  16. সম্ভূতি
  17. স্মৃতি
  18. প্রীতি
  19. ক্ষমা
  20. সন্নতি
  21. অনসূয়া
  22. ঊর্জ্জা
  23. স্বাহা
  24. স্বধা [৩]

এদের মধ্যে যে ১৩ জন বিবাহ করেন ধর্মঠাকুরকে, তারা হলেন:

  1. শ্রদ্ধা
  2. ভক্তা
  3. ধৃতি
  4. তুষ্টি
  5. পুষ্টি
  6. মেধা
  7. ক্রিয়া
  8. বুদ্ধি
  9. লজ্জা
  10. বপু
  11. শান্তি
  12. সিদ্ধি
  13. কীর্ত্তি

অন্য ১১জন বিবাহ করেন যথাক্রমে

  1. খ্যাতি বিবাহ করেন ঋষি ভৃগুর সহিত
  2. সতী বিবাহ করেন শিবকে
  3. সম্ভূতি বিবাহ করেন ঋষি মরীচির সহিত
  4. স্মৃৃতি বিবাহ করেন অঙ্গিরাকে
  5. প্রীতি বিবাহ করেন পুলস্ত্যকে
  6. ক্ষমা বিবাহ করেন পুলহকে
  7. সন্নতি বিবাহ করেন ক্রতুকে
  8. অনসূয়া বিবাহ করেন অত্রিকে
  9. ঊর্জ্জা বিবাহ করেন বশিষ্ঠকে
  10. স্বাহা বিবাহ করেন অগ্নিদেবকে
  11. স্বধা বিবাহ করেন পিতৃগণকে[৪]

মৎস্যপুরাণ অনুসারে রাজা দক্ষ ও তার প্রথমা পত্নী পাঞ্চজনী (বিরানী)-র ৬২ কন্যাসন্তান জন্মলাভ করে৷ তাদের মধ্যে:

  1. দশজন কন্যা বিবাহ করেন ধর্ম দেবতাকে
  2. তেরোজন কন্যা বিবাহ করেন কশ্যপ মুনিকে
  3. সাতাশজন কন্যা বিবাহ করেন চন্দ্রদেবকে
  4. চারজন কন্যা বিবাহ করেন অরিষ্টনেমীকে
  5. একজন কন্যা রতি বিবাহ করেন কামদেবকে
  6. একজন কন্যা বিবাহ করেন শিবকে
  7. দুজন কন্যা বিবাহ করেন মহর্ষি ভৃৃৃৃগুপুত্র শুক্রকে
  8. দুজন কন্যা মহর্ষি অঙ্গিরাকে বিবাহ করেন
  9. দুজন কন্যা জয়া ও বিজয়া মহর্ষি কৃশস্বকে বিবাহ করেন[৫][৬]

পদ্মপুরাণ অনুসারে প্রজাপতি দক্ষ এরপরেও যখন কন্যাসন্তানের ঘাটতি অনুভব করেন তখন তিনি আরো ৬০ জন কন্যা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেন৷ তাদের মধ্যে সতীদেবী শিবকে বিবাহ করেন৷ [৭]

যে দশজন কন্যা ধর্মদেবতাকে বিবাহ করেন তারা হলেন:

  1. মরুৎবতী
  2. বসু
  3. জমী
  4. লাম্বা
  5. ভানু
  6. ঊর্জ্জা
  7. সংকল্পা
  8. মুহূর্তা
  9. সন্ধ্যা
  10. বিশ্বা [৫][৮]

যে তেরোজন কন্যা ধর্মদেবতাকে বিবাহ করেন তারা হলেন:

  1. অদিতি,
  2. দিতি,
  3. দনু
  4. অরিষ্টা
  5. সুরসা
  6. সুরভী
  7. বিনতা
  8. তাম্রা
  9. ক্রোধবশা
  10. ইরা
  11. কদ্রু
  12. বিশ্বা
  13. মুনী [৯][১০]

যে সাতাশজন কন্যা ধর্মদেবতাকে বিবাহ করেন তারা হলেন:

  1. অশ্বিনী,
  2. ভরণী,
  3. কৃত্তিকা,
  4. রোহিণী,
  5. মৃগশিরা,
  6. আর্দ্রা,
  7. পুনর্বসু,
  8. পুষ্যা,
  9. অশ্লেষা,
  10. মঘা,
  11. পূর্বফাল্গুনী,
  12. উত্তরফাল্গুনী,
  13. হস্তা,
  14. চিত্রা,
  15. স্বাতী,
  16. বিশাখা,
  17. অনুরাধা
  18. জ্যেষ্ঠা,
  19. মূলা,
  20. পূর্বাষাঢ়া,
  21. উত্তরাষাঢ়া,
  22. শ্রবণা,
  23. ধনিষ্ঠা,
  24. শতভিষা,
  25. পূর্ব ভাদ্রপদ,
  26. উত্তর ভাদ্রপদ,
  27. রেবতী. (চন্দ্রদেবের অন্যান্য সকল পত্নীদের মধ্যে রেবতী সর্বাধিক প্রিয়া ছিলেন)

এই সাতাশজন চন্দ্রপত্নীরা হলেন ২৭টি নক্ষত্র৷

শিব ও সতীর উপাখ্যানসম্পাদনা

দক্ষরাজার সর্বকনিষ্ট কন্যা দাক্ষায়নী সতীদেবী শিবকে বিবাহ করার ইচ্ছা প্রকাশ করলে দক্ষ তাকে এই ইচ্ছা অপূর্ণ থাকার কথা বলে৷ কিন্তু সতী এই বারন অগ্রাহ্য করে শিবের আরাধনা করেন ও তাঁকে লাভ করেন৷

দক্ষ যজ্ঞসম্পাদনা

 
সত্রযাগে দক্ষকে অপমান করার জন্য তিঁনি রুদ্রকে সমালোচনা করেন৷
 
দক্ষযজ্ঞে শিব ও সতী

হিন্দুধর্মে সংসার সৃষ্টিকালে ও একাধিক সম্প্রদায় ভাগের সময়ে দক্ষযজ্ঞ একটি গুরুত্বপূর্ণ সন্ধিক্ষণ৷ এটি স্তলপুরাণে শক্তিপীঠ তৈরীর কাহিনী৷ দক্ষিণপূর্ব এশিয়া জুড়ে ৫১টি (মতান্তরে ১০৮টি) শক্তিপীঠ রয়েছে৷ গল্পানুসারে দেবী সতী দেবী পার্বতী এবং তাঁর দুই পুত্র কার্তিকগণেশের ঘটনা বর্ণিত রয়েছে৷

 
স্ত্রী সতীর পরিত্যক্ত দেহ নিয়ে শিব

একদা রাজা দক্ষ একটি যজ্ঞের আয়োজন করেন কিন্তু পরিকল্পনা করে তিনি শিব ও সতীকে আমন্ত্রন জানান না৷ নিজের পিত্রালয়ে অপমানিত হয়ে সতীদেবী শিবের বারণ অমান্য করে যজ্ঞস্থলে উপস্থিত হন৷ দক্ষরাজা তাঁকে তিরোষ্কৃত করেন এবং অতিথিদের সম্মুখেই তাঁকে অপমানিত করেন৷ স্বামী শিবের অপমান সহ্য করতে না পেরে তিঁনি যজ্ঞের আগুনে আত্মবিসর্জন করেন৷ খবর শুনে শিব এবং তার সঙ্গীগণ দক্ষিণগামী হয়ে যজ্ঞশালা ও যজ্ঞবেদী তছনছ করেন৷ তারা যজ্ঞগুরু ভৃগুর দাড়ি ছিঁড়ে নিজেদের জয় সূচিত করেন৷

শিব যজ্ঞস্থলে উত্তীর্ণ হয়ে ক্রোধে ত্রিশূল দিয়ে দক্ষের মাথা ছিন্ন করেন৷ পরে ঘটনাপ্রবাহে তিঁনি তাঁকে সমস্ত ঘটনার জন্য ক্ষমা করে দেন৷ ছিন্ন মাথার স্থলে তিঁনি একটি ছাগমুণ্ড স্থাপন করেন এবং অতিথিবৃৃন্দের উপস্থিতিতে বাকী যজ্ঞ সম্পূর্ণ করার অনুমতি দেন৷

দেহত্যাগের পর পরিত্যক্ত অর্ধদগ্ধ সতীর দেহ শূলে নিয়ে শিব যত্রতত্র তাণ্ডব শুরু করেন৷ এমতাবস্থায় শিবসখা বিষ্ণু তাঁকে শান্ত করার চেষ্টা করেন কিন্তু তাতেও কোনো সমাধান না হলে তিঁনি অন্য পরিকল্পনা করেন৷ শিবের অজান্তে বিষ্ণু সুদর্শন চক্র দ্বারা সতীদেহ ছিন্ন করেন৷ ছিন্ন সতীদেহখণ্ড শিবের যাত্রাপথের বিভিন্ন স্থলে পড়ে শিলায়িত হয়ে যায়৷ যেই স্থানে সতীর দেহখণ্ড পতিত হয়, সেই স্থান পরবর্তীকালে সতীপীঠ নামে খ্যাত হয়৷ পরবর্তীকালে দেবী সতী গিরিরাজ হিমালয়ের গৃহে পার্বতী রূপে জন্মগ্রহণ করেন ও পুনরায় মহাদেবকে বিবাহ করেন। দেবী সতী ও দেবী পার্বতী আদ্যাশক্তি মহামায়া দুর্গার শিবের স্ত্রী রূপে প্রথম ও দ্বিতীয় অবতার। [১১][১২]

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Monier-Williams Sanskrit-English Dictionary
  2. The Matsya Puranam P-I (B.D. Basu) English Translation Ch #3, Page 10
  3. Vishnu Purana, Vol-I, H.H. Willson. Book-I,Ch-#7, Page 109
  4. Vishnu Purana, Vol-I, H.H. Willson. Book-I,Ch-#7, Page 109-11
  5. The Matsya Puranam P-I (B.D. Basu) English Translation Ch #5, Page 17
  6. Matsya Purana (Sanskrit) Ch #5, Sloka 10-12
  7. Wilkins, W.J. (২০০৩)। Hindu Mythology। New Delhi: D.K. Printworld (P) Limited। পৃষ্ঠা 373। আইএসবিএন 81-246-0234-4 
  8. Matsya Purana (Sanskrit) Ch #5, Sloka 15-16
  9. The Matsya Puranam P-I (B.D. Basu) English Translation Ch #5, Page 18
  10. Matsya Purana (Sanskrit) Ch #6, Sloka 1-2
  11. the Horse-sacrifice of the Prajapati Daksha The Mahabharata translated by Kisari Mohan Ganguli (1883–1896), Book 12: Santi Parva: Mokshadharma Parva: Section CCLXXXIV. p. 317. “I am known by the name of Virabhadra’’ and I have sprung from the wrath of Rudra. This lady (who is my companion), and who is called Bhadrakali, hath sprung from the wrath of the goddess.”
  12. http://www.hindu.com/2006/06/17/stories/2006061708850500.htm