প্রধান মেনু খুলুন

পেড্রো কলিন্স

ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ক্রিকেটার

পেড্রো টাইরন কলিন্স (ইংরেজি: Pedro Collins; জন্ম: ১২ আগস্ট, ১৯৭৬) বার্বাডোসের সেন্ট পিটারের বস্কোবেল এলাকা জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা সাবেক ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন। দলে তিনি মূলতঃ বামহাতি ফাস্ট মিডিয়াম বোলারের দায়িত্ব পালন করতেন। এছাড়াও নীচেরসারিতে ডানহাতে পারদর্শীতা দেখিয়েছেন পেড্রো কলিন্স

পেড্রো কলিন্স
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামপেড্রো টাইরোন কলিন্স
জন্ম (1976-08-12) ১২ আগস্ট ১৯৭৬ (বয়স ৪৩)
বস্কোবেল, সেন্ট পিটার, বার্বাডোস
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনবামহাতি ফাস্ট মিডিয়াম
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই
ম্যাচ সংখ্যা ২৯ ৩০
রানের সংখ্যা ২৩১ ৩০
ব্যাটিং গড় ৫.৮৭ ৪.২৮
১০০/৫০ -/- -/-
সর্বোচ্চ রান ২৪ ১০*
বল করেছে ৬২৬৫ ১৫৭৭
উইকেট ১০৬ ৩৯
বোলিং গড় ৩৪.১৩ ৩১.০৭
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট - -
সেরা বোলিং ৬/৫৩ ৫/৪৩
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৫/- ৮/-
উৎস: ক্রিকইনফো, ৫ জুলাই ২০১৭

খেলোয়াড়ী জীবনসম্পাদনা

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ফিদেল অ্যাডওয়ার্ডস সম্পর্কে তার সৎ ভাই। তার ন্যায় খুব কমসংখ্যক বামহাতি সিম বোলারই ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দলের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রতিনিধিত্ব করার সুযোগ পেয়েছেন। তার বোলিং সঠিক দিক ও নিশানা বরাবর ছিল যা তাকে ক্যারিবীয় ক্রিকেটে দূর্দান্ত প্রতাপে রাজত্ব করতে সহায়তা করেছিল। ৩৪.১৩ গড়ে ১০৬ উইকেট নিয়ে সন্তোষজনক টেস্ট রেকর্ড গড়া স্বত্ত্বেও ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলের নিয়মিত সদস্য হতে পারেননি তিনি। তাস্বত্ত্বেও ২০০৭ সালের আইসিসি বিশ্ব টুয়েন্টি২০ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের সুযোগ পান।

২০০২ সালের আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে অংশ নেন।[১] এরপর ২০০৩ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপেও দলের অন্যতম সদস্য মনোনীত হন। ঐ প্রতিযোগিতায় তার দল গ্রুপ পর্ব থেকেই ছিটকে পড়ে।

কাউন্টি ক্রিকেটসম্পাদনা

২০০৭ সালে সারে দলের পক্ষে কোলপ্যাক খেলোয়াড় হিসেবে দুই বছরের জন্য চুক্তিবদ্ধ হন। এরফলে তার ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলে ভবিষ্যতে খেলার সম্ভাবনা কমে যায়। তবে, শেষ পর্যন্ত তিনি এ চুক্তি থেকে দূরে সরে আসেন। ৩০ মার্চ, ২০১০ তারিখে মিডলসেক্স কর্তৃপক্ষ ২০১০ মৌসুমে খেলার জন্য তার চুক্তিবদ্ধতার কথা ঘোষণা করে।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

আরও দেখুনসম্পাদনা

বহিঃসংযোগসম্পাদনা