পূর্ব পাকিস্তান হেলিকপ্টার সেবা

১৯৬০-এর দশকে পূর্ব পাকিস্তানে পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্স (পিআইএ) দ্বারা পরিচালিত নি

পূর্ব পাকিস্তান হেলিকপ্টার সেবা বলতে ১৯৬০-এর দশকে পূর্ব পাকিস্তানে পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্স (পিআইএ) দ্বারা পরিচালিত নির্ধারিত হেলিকপ্টার পরিষেবাকে বোঝায়। এটি ছিল বিশ্বের প্রথম দিকের বিমান পরিষেবাগুলোর মধ্যে ও ইতিহাসের সবচেয়ে বিস্তৃত হেলিকপ্টার নেটওয়ার্কগুলোর মধ্যে একটি।[১][২]

হেলিকপ্টার সেবার একটি পোস্টার

ইতিহাস

সম্পাদনা
 
হেলিকপ্টার রুটের মানচিত্র

১৯৫০-এর দশকে পূর্ব পাকিস্তানের প্রত্যন্ত অঞ্চলে মার্কিন তেল ও গ্যাস অনুসন্ধানের সময় বেসামরিক বিমান চলাচলের জন্য হেলিকপ্টারে প্রতি পাকিস্তানের আগ্রহ শুরু হয়।[১] ১৯৬৩ সালে জাতীয় বিমান সংস্থা পিআইএ (যেটি কলকাতা-ভিত্তিক ওরিয়েন্ট এয়ারওয়েজ থেকে উদ্ভূত হয়েছিল) ঢাকা ও আঞ্চলিক শহরগুলোর মধ্যে নির্ধারিত হেলিকপ্টার ফ্লাইট চালু করেছিল। পূর্ব পাকিস্তানের ব-দ্বীপ অঞ্চলে স্বল্প দূরত্বের অপারেশনের জন্য পিআইএ সিকোরস্কি এস-৬১ এনএস ব্যবহার করে নির্ধারিত হেলিকপ্টার রুটের একটি নেটওয়ার্ক স্থাপন করে। এর প্রথম বাণিজ্যিক ফ্লাইট ২৫ নভেম্বর ১৯৬৩ সালে হয়েছিল। পূর্ব পাকিস্তানি পাট শিল্পের কেন্দ্র ঢাকা ও খুলনা; এবং ঢাকা ও ফরিদপুরের মধ্যে প্রথম রুট ছিল।[৩]

পিআইএ এস-৬১এনএস চারজন ক্রু সদস্য ও ১,৮০০ পাউন্ড কার্গো সহ মোট ২৪ জন যাত্রী বহন করার জন্য ব্যবস্থা করা হয়েছিল। প্রথম পাঁচজন পাইলটকে ব্রিটিশ ইউরোপিয়ান এয়ারওয়েজ (বিইএ)-এর সাথে ইংল্যান্ডের কিডলিংটনের একটি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছিল, যেখানে তারা ব্রান্টলি বি-২ হালকা হেলিকপ্টারটি চালাতে শিখেছিল। এরপর তারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কানেকটিকাটে সিকোরস্কির কারখানায় এস-৬১এনতে রূপান্তরিত হয়। তারা এস-৬১এনের বিতরণের আগে হিলার ইউএইচ-১২ই৪ রুটে উড্ডয়নের জন্য পাকিস্তানে ফিরে আসে।[৩]

খুলনায় হেলিকপ্টার রুট আকাশপথে ২১ ঘন্টার ওভারল্যান্ড ভ্রমণকে ৩৭ মিনিটে কমিয়ে দেয়।[৩] নেটওয়ার্কের আওতাভুক্ত ২০টি শহর ও নগর ছিলো,[১] যথা বগুড়া, সিরাজগঞ্জ, চট্টগ্রাম, মংলা, কুষ্টিয়া, বরিশাল, চাঁদপুর, সন্দ্বীপহাতিয়া উপজেলা। একটি টিকিটের গড় মূল্য ছিল ২৫ টাকা। এটি সেই সময়ে বিশ্বের বৃহত্তম বাণিজ্যিক হেলিকপ্টার নেটওয়ার্ক ছিল।[১]

পাকিস্তান আন্তর্জাতিক এয়ারলাইন্স ফ্লাইট ১৭ সেবার একমাত্র বিমান দুর্ঘটনায় জড়িত ছিল।[৪]

পিআইএ ১৯৬০-এর দশকের শেষের দিকে অভ্যন্তরীণ কার্যকলাপের জন্য ফিক্সড উইং এয়ারক্রাফ্টে কাজ করা শুরু করে। আধুনিক বাংলাদেশে অনেক এয়ারলাইন্স অভ্যন্তরীণ কার্যক্রমের জন্য টার্বোপ্রপ প্লেন ব্যবহার করে।

বিমানবহর

সম্পাদনা
পূর্ব পাকিস্তানে পিআইএ হেলিকপ্টার বহর
আকাশযান বহর ক্রম যাত্রী রুট টীকা
এম মোট
সিকোরস্কি এস-৬১ ২৪ দেশীয়
মোট

দুর্ঘটনা

সম্পাদনা

২ ফেব্রুয়ারী ১৯৬৬ তারিখে, একটি সিকরস্কি এস-৬১ হেলিকপ্টার দ্বারা পরিচালিত ফ্লাইট ১৭, প্রধান গিয়ারবক্স ব্যর্থ হওয়ার পরে পূর্ব পাকিস্তানে একটি নির্ধারিত অভ্যন্তরীণ ফ্লাইটে বিধ্বস্ত হয়, এতে ২৪ জন যাত্রী ও ক্রু-এর মধ্যে ২৩ জন নিহত হয়।[৪]

চিত্রশালা

সম্পাদনা

আরো দেখুন

সম্পাদনা

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. । ১৩ ডিসেম্বর ১৯৬৩ http://content.time.com/time/magazine/article/0,9171,875483,00.html  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)
  2. "1965 – 50 years ago today: PIA has become efficient"Dawn। ১৪ মার্চ ২০১৫। 
  3. "Aircraft of Old Days"History of PIA - Pakistan International Airlines 
  4. UK CAA Document CAA 429 World Airline Accident Summary