পুটিবিলা উচ্চ বিদ্যালয়

বাংলাদেশী উচ্চ বিদ্যালয়

পুটিবিলা উচ্চ বিদ্যালয় চট্টগ্রাম জেলার লোহাগাড়া উপজেলায় অবস্থিত। লোহাগাড়া উপজেলা পরিষদ থেকে ৭ কিলোমিটার দূরে পুটিবিলা ইউনিয়নে বিদ্যালয়টি অবস্থিত।[১]

পুটিবিলা উচ্চ বিদ্যালয়
ঠিকানা
পুটিবিলা, লোহাগাড়া
চট্টগ্রাম , বাংলাদেশ
৪৩৯৬ (পোস্টকোড)
 বাংলাদেশ
স্থানাঙ্ক২১°৫৮′ উত্তর ৯২°৭.২′ পূর্ব / ২১.৯৬৭° উত্তর ৯২.১২০০° পূর্ব / 21.967; 92.1200স্থানাঙ্ক: ২১°৫৮′ উত্তর ৯২°৭.২′ পূর্ব / ২১.৯৬৭° উত্তর ৯২.১২০০° পূর্ব / 21.967; 92.1200
তথ্য
প্রতিষ্ঠাকাল১ জানুয়ারি ১৯৬৮ (1968-01-01)
প্রতিষ্ঠাতাআলহাজ্ব মোস্তাফিজুর রহমান
অবস্থাসক্রিয়
প্রধান শিক্ষকমোহাম্মদ নাছির উদ্দীন
অনুষদ৩ (বিজ্ঞান, মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা)
শিক্ষকমণ্ডলী১৮+
কর্মচারী৪+
লিঙ্গবালক-বালিকা
শিক্ষার্থী সংখ্যা১০৫০ জন
শ্রেণী৬-১০
ভাষার মাধ্যমবাংলা
ভাষাবাংলা
বিদ্যালয়ের কার্যসময়৫ ঘণ্টা
শ্রেণীকক্ষ১২+
ক্যাম্পাস
ক্যাম্পাসের আকার৩+ একর
আয়তন৩.৭২ একর
ক্যাম্পাসের ধরনএমপিওভুক্ত/আধাসরকারি
রঙ
  •      সাদা
  •      কালো
  •      গাঢ় নীল
বোর্ডমাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, চট্টগ্রাম
মোবাইল০১৮৭৫-৭০২৫২৬

অবস্থানসম্পাদনা

এটি চট্টগ্রাম জেলার লোহাগাড়া উপজেলার অন্তর্গত পুটিবিলা ইউনিয়ন[২] এ অবস্থিত।

বিদ্যালয়ের বিভিন্ন সংকেতলিপিসম্পাদনা

  • শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সনাক্তকরণ সংখ্যা (EIIN) : ১০৪৫৪৮
  • বিদ্যালয় সংকেতলিপি : ৩৩১২
  • মাসিক বেতন ক্রম (MPO) সংকেতলিপি : ০২১৮০২১৩০১[৩]

অবকাঠামোসম্পাদনা

বিদ্যালয়টিতে মোট ৩টি ভবন রয়েছে। ১টি নতুন ভবন এবং ২টি পুরাতন ভবন।

  • মোট কক্ষ - ১৬ টি[৪]
  • শ্রেণি কক্ষ : ১২ টি
  • প্রধান শিক্ষকের কক্ষ : ১টি
  • কম্পিউটার ল্যাব : ১টি
  • গ্রন্থাগার : ১টি
  • শিক্ষক মিলনায়তন : ১টি

ইতিহাসসম্পাদনা

১৯৬৮ সালে প্রতিষ্ঠিত এ প্রতিষ্ঠানটিতে সহ-শিক্ষা ব্যবস্থা রয়েছে।

শ্রেণি, বিভাগ ও শাখা সমূহসম্পাদনা

মূলত এই বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ থেকে ১০ শ্রেণি পর্যন্ত লেখাপড়া করার সুযোগ রয়েছে।

ভর্তিসম্পাদনা

এই বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ থেকে ৯ম শ্রেণীতে ভর্তি কার্যক্রম সম্পন্ন হয়ে থাকে। সাধারণত জানুয়ারীতেই এই ভর্তি কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়।

ইউনিফর্ম ড্রেসসম্পাদনা

  • ছেলে: সাদা      ও কালো     


  • মেয়ে: গাঢ় নীল      ও সাদা     

খেলাধুলা ও সহপাঠ্যকর্মসম্পাদনা

বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের শারীরিক শিক্ষাসহায়ক পাঠক্রম রয়েছে এবং প্রতি সপ্তাহে একটি পি.টি. ক্লাস বাধ্যতামূলকভাবে অনুষ্ঠিত হয়। বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের খেলাধুলার জন্য একটি মাঠ রয়েছে, যা মূল ভবনের সামনেই অবস্থিত। মাঠটি বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, আন্তঃশ্রেণী ক্রীড়া প্রতিযোগিতাসহ বিভিন্ন আন্তঃউপজেলা প্রতিযোগিতা আয়োজনে ব্যবহৃত হয়।

গবেষণাগারসম্পাদনা

বিদ্যালয়ে পদার্থবিজ্ঞান, রসায়নবিজ্ঞান, জীববিজ্ঞান, কম্পিউটার, কৃষি ইত্যাদি বিষয়ে শিক্ষার্থীদের গবেষণার জন্য রয়েছে গবেষণাগার। এসব গবেষণাগারে বহু মূল্যবান যন্ত্রপাতি রয়েছে। শিক্ষার্থীদের ব্যবহারিক বিষয়ে জ্ঞান লাভের জন্য এসব উপকরণ ব্যবহৃত হয়।

গ্রন্থাগারসম্পাদনা

বিদ্যালয়টিতে রয়েছে বিশাল একটি গ্রন্থাগার। এতে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের নামী-দামী কয়েক হাজার বই। শিক্ষার্থীরা এখানে সাচ্ছন্দ্যে বসে পড়তে পারে এবং তাদের পছন্দের বই নির্দিষ্ট সময়ের জন্য বাড়ি নিয়ে যেতে পারে। সম্পূর্ণ বেসরকারি উদ্যোগে গ্রন্থাগারটি পরিচালিত হচ্ছে।

মসজিদসম্পাদনা

বিদ্যালয় এর সাথে রয়েছে একটি মসজিদ [৫]। ছাত্র-শিক্ষকরা এখানে একসাথে নামায আদায় করতে পারে। এছাড়া পার্শ্ববর্তী এলাকার মুসল্লীরাদের জন্যেও এই মসজিদটি উন্মুক্ত থাকে।

ছাত্রদের আবাসনসম্পাদনা

স্কুলের ছাত্রদের জন্য ছাত্রাবাস নির্মাণাধীন।

বিভিন্ন সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডসম্পাদনা

বছরজুড়েই বিদ্যালয়ে নানা রকম সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড পালন করা হয়। শহীদ দিবস, স্বাধীনতা দিবস, বিজয় দিবস, জাতির জনকের জন্মদিন ও বিভিন্ন রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠান যথাযথ মর্যাদার সাথে পালিত হয়। বর্ষবরণ, বাসন্তী উৎসব ইত্যাদি নানা রকম অনুষ্ঠান ছাত্র-শিক্ষক সম্মিলিতভাবে পালন করে। এছাড়াও প্রতি বছরই আয়োজিত হয় শিক্ষা সফর।

সংঘসম্পাদনা

কৃতিত্বসম্পাদনা

  • জাতীয় পর্যায়ে ২০১৪ সালে বৃক্ষ রোপনে শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

আরো দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা