পিতা (চলচ্চিত্র)

২০১২-এর চলচ্চিত্র

পিতা ২০১২ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত বাংলাদেশী যুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র। ছবিটি রচনা ও পরিচালনা করেছেন মাসুদ আখন্দ এবং পরিবেশনা করেছে ইমপ্রেস টেলিফিল্ম। এতে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন মাসুদ আখন্দ, জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়, কল্যাণ কোরাইয়া, শায়না আমিন[১]

পিতা
পরিচালকমাসুদ আখন্দ
রচয়িতামাসুদ আখন্দ
শ্রেষ্ঠাংশে
সুরকারইমন সাহা
এরশাদ ওয়াহিদ (শীর্ষ সঙ্গীত)
চিত্রগ্রাহকসাইফুল শাহীন
সম্পাদকমাসুদ আখন্দ
পরিবেশকইমপ্রেস টেলিফিল্ম
মুক্তি
  • ২৮ ডিসেম্বর ২০১২ (2012-12-28)
স্থিতিকাল১২০ মিনিট
দেশবাংলাদেশ
ভাষাবাংলা
উর্দু

চলচ্চিত্রটি ২০১২ সালের ২৮ ডিসেম্বর বাংলাদেশে সীমিত পরিসরে পায়। ২০১৩ সালের ৫ মে যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসের বেভারলি হিলসের উইলশায়ার প্রেক্ষাগৃহে ছবিটির প্রদর্শনী হয়।[২] চলচ্চিত্রটি শ্রেষ্ঠ সুরকার বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার[৩] ও শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বিভাগে বাচসাস পুরস্কার লাভ করে[৪] এবং তিনটি বিভাগে মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার এর মনোনয়ন লাভ করে।[৫]

কাহিনী সংক্ষেপ

সম্পাদনা

পাকিস্তানি সামরিক বাহিনী যেকোন সময় গ্রামে আসতে পারে এমন খবরে গ্রামের হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রধান নিতাই সভা ডেকেছে। গ্রামের একমাত্র মুসলমান কামার জলিল তার আশ্রয়দাতা পিতা বিশুকে এই বলে বাড়ি থেকে বের হয়। আবার জমাদার সাহেবের বাড়িতেও সভা হচ্ছে। তিনি চান না পাকিস্তান আলাদা হোক। বিপিন কিছুটা উদ্বিগ্ন এবং সে চাচ্ছে দ্রুত দেশ ছেড়ে চলে যেতে। কিন্তু তার পুত্র শরৎ এতে রাজি নয়। সে দেশের হয়ে লড়তে চায়। এছাড়া তার স্ত্রী অন্তঃস্বত্তা। তাকে নিয়ে দূরে কোথাও যাওয়া যাবে না। শর্মিলী নিতাইয়ের মেয়ে। কিছুদিন আগে বিধবা হয়েছে। সে জলিলের মেয়েকে স্নেহ করে এবং জলিলের সংসারের প্রতি তার খুব মমতা।

একদিন এক বুনো শূকর গ্রামে ঢোকে পড়ে। সকলেই তাকে নিয়ে হৈ-হুল্লোড় করে। রাতে শরতের স্ত্রী পল্লবীর প্রসবের সম্ভাবনা দেখা দিলে সে ধাত্রী কমলা মাসিকে নিয়ে আসে। এসময় পাকিস্তানি সামরিক বাহিনীরাও গ্রামে হানা দেয়। শরৎ তার বাবা ও অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে নিয়ে পালায়। কিন্তু ধাত্রীর ব্যাগ আনতে গিয়ে সে ধরা পড়ে। তার বাবা তাকে বাঁচাতে ছুটে যায় এবং পাকিস্তান সেনাবাহিনী দুজনকেই হত্যা করে। তাদের মত আরো অনেকেই তাদের হাতে মারা যায়। জলিল তার ছেলেদের নিয়ে কোন ভাবে বেঁচে গেলেও মিলিটারি তার মেয়ে, শর্মিলীসহ আরো কয়েকটি মেয়েকে ধরে নিয়ে যায়। জলিল মেয়েকে বাঁচাতে প্রাণপণ চেষ্টা করে।

কুশীলব

সম্পাদনা
  • মাসুদ আখন্দ - জলিল, একজন বিপত্নীক কামার যে তার মেয়েকে বাঁচাতে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে দেশি অস্ত্র নিয়ে যুদ্ধ করে।
  • জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায় - বিপিন
  • কল্যাণ কোরাইয়া - শরৎ
  • শায়না আমিন - পল্লবী, শরতের সন্তান সম্ভবা স্ত্রী।[৬]
  • রফিকুল ইসলাম - বিশু, জলিলের আশ্রয়দাতা।
  • মারিয়া ফারাহ উপমা - শর্মিলী
  • মঈন দুররানী - ক্যাপ্টেন, পাকিস্তান সেনাবাহিনীর কমান্ডার।
  • শামীমা নাজনীন - কমলা পিসি
  • বন্যা মির্জা - কুসুম, জলিলের স্ত্রী।
  • আজিজুর রহমান আখন্দ - নিতাই, হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রধান ও শর্মিলীর বাবা।
  • আর্জুমান্দ আরা বেগম - শর্মিলীর মা
  • এহসানুর রহমান - ফকির
  • অরা তাবাসসুম - লীলা, জলিলের মেয়ে।

নির্মাণ

সম্পাদনা

চলচ্চিত্রের শুটিং শুরু হয় ২০১১ সালের ৬ জুন গাজীপুরের সরকারপাড়ায়। সেখানে প্রথম ধাপে ১৫ দিন ও দ্বিতীয় ধাপে ১০ দিন শুটিং হয়।[৭]

সঙ্গীত

সম্পাদনা

চলচ্চিত্রের গানের সুর ও সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন ইমন সাহা। শীর্ষ সঙ্গীতের সুর করেছেন এরশাদ ওয়াহিদ।[৮] গানের কথা লিখেছেন হুমায়ূন আহমেদ, মাসুদ আখন্দ, ও শায়ন ওয়াহিদ। এছাড়া রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও বিশু শিকদারের গান ব্যবহার করা হয়েছে। বিভিন্ন গানে কণ্ঠ দিয়েছেন পান্থ কানাই, চঞ্চল চৌধুরী, দিলশাদ নাহার কনা, মেহের আফরোজ শাওন, পলাশ ও সায়ান ওয়াহিদ। হুমায়ূন আহমেদের চলচ্চিত্রের বাইরে এই প্রথম নেপথ্য গানে কণ্ঠ দেন শাওন।

গানের তালিকা

সম্পাদনা
নং.শিরোনামরচয়িতাকণ্ঠশিল্পী(রা)দৈর্ঘ্য
১."তোর ভিতরে আমি থাকি"মাসুদ আখন্দমেহের আফরোজ শাওন 
২."আমি যাইনি কখনো আমার পিতার গ্রামে"হুমায়ূন আহমেদ  
৩."শোকাতুরে ঐ কাঁদিছে সকলে"রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরমেহের আফরোজ শাওন 

মুক্তি

সম্পাদনা

পিতা চলচ্চিত্রটির মুক্তি দিন ধার্য করা হয় ২০১২ সালের ১৪ ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে।[৯] পরে তা পরিবর্তন করে ২১ ডিসেম্বর ৫০ টি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি দিতে চাইলেও তা সম্ভব হয় নি।[১০] অবশেষে ২৮ ডিসেম্বর ছবিটি সীমিত পরিসরে মুক্তি দেওয়া হয়। পরে ২০১৩ সালের ৫ মে যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসের বেভারলি হিলসের উইলশায়ার প্রেক্ষাগৃহে ছবিটি প্রদর্শিত হয়।[১১]

পুরস্কার ও মনোনয়ন

সম্পাদনা
পুরস্কার আয়োজনের তারিখ বিভাগ মনোনীত ফলাফল
জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৪ শ্রেষ্ঠ সুরকার ইমন সাহা বিজয়ী
বাচসাস পুরস্কার ২০১৪ শ্রেষ্ঠ অভিনেতা মাসুদ আখন্দ বিজয়ী
মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার ২০১৩ শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র ইমপ্রেস টেলিফিল্ম লিমিটেড মনোনীত
শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র পরিচালক মাসুদ আখন্দ মনোনীত
শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র অভিনেতা মাসুদ আখন্দ মনোনীত

তথ্যসূত্র

সম্পাদনা
  1. "পিতা : মুক্তিযুদ্ধের ব্যতিক্রমী চলচ্চিত্র"সাপ্তাহিক। ১৬ ডিসেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ মে ২০১৭ 
  2. "আমেরিকার প্রেক্ষাগৃহে শায়না"যায়যায়দিন। ৩ মে ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১০ মে ২০১৭ 
  3. "'জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১২' ঘোষণা"দৈনিক ইত্তেফাক। ৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১০ মে ২০১৭ 
  4. "পাঁচ বছরের বাচসাস পুরস্কার ঘোষণা"দৈনিক ইত্তেফাক। ২৮ ডিসেম্বর ২০১৪। ১৪ এপ্রিল ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ মে ২০১৭ 
  5. "ফেসবুকে মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার"আজকের২৪। ৩১ মার্চ ২০১৩। Archived from the original on ২৯ মার্চ ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ১০ মে ২০১৭ 
  6. "'পিতা' আমার দ্বিতীয় চলচ্চিত্র"দৈনিক প্রথম আলো। ২৯ ডিসেম্বর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১০ মে ২০১৭ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  7. "Camera rolls for "Pita"দ্য ডেইলি স্টার। ২২ আগস্ট ২০১১। ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ মে ২০১৭ 
  8. "সায়ানের কণ্ঠে এবার চলচ্চিত্রের গান"বাংলানিউজ টোয়েন্টিফোর.কম। ১০ জুলাই ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১০ মে ২০১৭ 
  9. "'পিতা' ছবির প্রিমিয়ার অনুষ্ঠিত: ১৪ ডিসেম্বর শুভমুক্তি"দৈনিক কালের কণ্ঠ। ৯ ডিসেম্বর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১০ মে ২০১৭ 
  10. Shazu, Shah Alam (২১ ডিসেম্বর ২০১২)। "Pita: Story of war-time father releases today"দ্য ডেইলি স্টার। ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ মে ২০১৭ 
  11. "যুক্তরাষ্ট্রে 'পিতা'র প্রদর্শনী"দৈনিক সমকাল। ৩ মে ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১০ মে ২০১৭ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]

বহিঃসংযোগ

সম্পাদনা