পাখির ডিম স্ত্রী পাখি দ্বারা উৎপাদিত হয়। প্রতিটি ডিম থেকে একটি বাচ্চা তৈরি হয়। অবশ্য কিছু পাখি আছে যারা ডিম নিষিক্ত করতে পারে না। এমনকি এরা যখন ডিম পাড়ে তখন নির্জন কোন গাছে অথবা পরিত্যাক্ত জায়গা খোঁজে।

Oystercatcher Eggs Norway.jpg

রংসম্পাদনা

 
পেঙ্গুইন জাতীয় পাখির ডিম

মেরুদন্ডীদের প্রাণীদের ডিমের রং সাধারনত সাদা হয় কারণ ডিমের খোলসে ক্যালসিয়াম কার্বোনেটের কোষ থাকে , কিন্তু কিছু পাখি রঙ্গিন ডিম উৎপাদন করে। রঙ্গক পদার্থ এবং দস্তা থাকায় এটি সবুজ বা নীল রং দিতে পারে, এবং রঙ হিসাবে হিসাবে লাল এবং বাদামী রং উৎপাদন করে।

 
উটপাখির ডিম (আফ্রিকা)

সাধারণত কিছু স্থল-পাখি ছাড়াও, অনেকের সাদা ডিম আছে যেমন: কারাড্রিফর্মিস এবং নিশাচর পাখিদের। আবার কিছু পরাশ্রয়ী পাখি যেমন: কোকিল প্রায়ই ঘনিষ্ঠভাবে চড়াই-জাতীয় পাখিদের ডিমের ধরনের সাথে মেলে। চড়াই জাতীয় পাখিদের প্রজাতির রহস্যপূর্ণ রঙের কোন প্রয়োজন নেই, এমনকি সমন্বয়পূর্ণ রঙ্গিন ডিম এদের আছে। চড়াই জাতীয় পাখিদের ডিমে আলোকচিত্র চিহ্ন একটি কঠিন অবস্থা পিচ্ছিলকারক পদার্থ হিসাবে থাকে যা ভঙ্গুরতা কমাতে সাহায্য করে।[১] স্থানীয় মাটিতে যদি অপর্যাপ্ত ক্যালসিয়াম পাওয়া যায় , ডিমের খোলস বিশেষ করে এটি মাঝামাঝি পাতলা হতে পারে । প্রটোপ্রফাইরিন ফুটকি এই। ক্ষতিপূরণ করে, এবং মাটির মধ্যে ক্যালসিয়ামের পরিমাণ বৃদ্ধি করে। [২] যে সকল পাখি ঝোপের কাছাকাছি বা মাটিতে বাসা গড়ে তুলে, সে সকল পাখির দাগযুক্ত ডিম পাড়ার সম্ভাবনা বেশি। গাছে নির্মাণ করা বাসার পাখিরা সাধারণত, তিলকিত, চকচলে, নীল বা সবুজাভ ডিম পাড়ে। ডিমের রং জেনেটিক্যালি প্রভাবিত । শুধুমাত্র মায়ের মাধ্যমে এটা উত্তরাধিকারসূত্রে প্রাপ্ত হতে পারে। জিন স্বাভাবিক জন্য দায়ী লিঙ্গ নির্ধারণে হয় ওয়াট ক্রোমোসোম (মহিলা পাখি WZ লিখে হয়, পুরুষদের ZZ হয়)।

বৈচিত্রসম্পাদনা

পাখির ডিম বৈচিত্র্যময় উদাহরণ স্বরূপ:

  • হারগিলার ডিম রুক্ষ এবং খড়িময় হয়।
  • তিতির পাখির ডিম চকচকে

প্রকৃতির।

  • হাঁসের ডিম তৈলাক্ত এবং জল রোধী হয়।
  • এমুজাতীয় বড় পাখিদের ডিম প্রচন্ডভাবে বড় ও শক্ত হয়।
  • একটি পাখি খোসার মধ্যে ভ্রূণ অবস্থায ক্ষুদ্র ছিদ্র দিয়ে শ্বাস নিতে পারে।
  • গার্হস্থ্য মুরগি এর ডিম প্রায় ৭৫০০টি ছিদ্র আছে।

আকৃতিসম্পাদনা

আকারসম্পাদনা

 
ডিম: উটপাখি, ইমু, কিউই এবং মুরগি

ডিমের আকার প্রাপ্তবয়স্ক পাখিদের বিভিন্ন রকম। যেমন: উটপাখির ডিম ১.৫ কেজি আবার হামিংবার্ড এর ডিম ০.৫ গ্রাম। কিউইদের ডিম সামঞ্জস্যহীনভাবে স্ত্রী পাখিদের শরীরের থেকেও ওজনের ২০% বড় ডিম হয়। [৩]

গ্যালারীসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Solomon, S.E. (১৯৮৭). Egg shell pigmentation. In Egg Quality : Current Problems and Recent Advances (eds R.G. Wells & C.G. Belyarin). Butterworths, London, pp. ১৪৭–১৫৭
  2. Gosler, Andrew G.; James P. Higham; S. James Reynolds (২০০৫)। "Why are birds' eggs speckled?"। Ecology Letters (১০): ১১০৫–১১১৩। ডিওআই:10.1111/j.1461-0248.2005.00816.x 
  3. Darren Naish (২০০৯-০২-২০)। "200 years of kiwi research" 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা