প্রধান মেনু খুলুন

পর্নোগ্রাফি

অভিনয়ের মাধ্যমে বিভিন্ন যৌন আচরণ ও যৌনসঙ্গমের খোলামেলা উপস্থাপন

[[চিত্র:XX X P icon.png|thumb|মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এবং বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চলে অশ্লীল উপাদানের নামকরণে "XXX" প্রতীক ব্যবহৃত হয়।]]

পর্নোগ্রাফি (সংক্ষেপে "পর্ন" বা "পর্নো") যৌন আবেগ সৃষ্টির উদ্দেশ্যে যৌনসংক্রান্ত বিষয়বস্তুর প্রতিকৃতি অঙ্কন বা পুঙ্খানুপুঙ্খ বর্ণনা। পর্নোগ্রাফি শব্দটি গ্রিক শব্দ "পরনোগ্রাফিয়া" থেকে নেওয়া হয়েছে। পর্নোগ্রাফি বিভিন্ন মাধ্যমের সাহায্যে উপস্থাপন করা হতে পারে, এর মধ্যে অর্ন্তভূক্ত রয়েছে, বই, সাময়িকী, পোষ্টকার্ড, আলোকচিত্র, ভাস্কর্য, অঙ্কন, পেইন্টিং, অ্যানিমেশন, সাউন্ড রেকর্ডিং, চলচ্চিত্র, ভিডিও এবং ভিডিও গেম[১]

বিগত কয়েক দশকে পর্নোগ্রাফি উৎপাদন তথা ভোগ্যপণ্য হিসেবে ভোগকে কেন্দ্র করে একটি বিরাট শিল্প গড়ে উঠেছে। মূলত ভিসিআর, ডিভিডিইন্টারনেটের ব্যাপক ব্যবহার এবং যৌন বিষয়বস্তুর প্রদর্শনে সমাজের অধিকতর উদার

উপশাখাসম্পাদনা

আরো দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. H. Mongomery Hyde (1964) A History of Pornography: 1–26.

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

ভাষ্য
  • "আমেরিকান পর্নো"Frontline। পিবিএস। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ২৭, ২০১৪  Interactive web site companion to a Frontline documentary exploring the pornography industry within the United States.
প্রযুক্তি
অর্থনীতি
সরকার
ইতিহাস
সমাজবিদ্যা