পরশুরাম উপজেলা

ফেনী জেলার একটি উপজেলা

পরশুরাম উপজেলা বাংলাদেশের ফেনী জেলার একটি প্রশাসনিক এলাকা।

পরশুরাম
উপজেলা
পরশুরাম বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
পরশুরাম
পরশুরাম
বাংলাদেশে পরশুরাম উপজেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৩°১২′৩৬.০০০″ উত্তর ৯১°২৫′৪৮.০০০″ পূর্ব / ২৩.২১০০০০০০° উত্তর ৯১.৪৩০০০০০০° পূর্ব / 23.21000000; 91.43000000স্থানাঙ্ক: ২৩°১২′৩৬.০০০″ উত্তর ৯১°২৫′৪৮.০০০″ পূর্ব / ২৩.২১০০০০০০° উত্তর ৯১.৪৩০০০০০০° পূর্ব / 23.21000000; 91.43000000 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগচট্টগ্রাম বিভাগ
জেলাফেনী জেলা
সংসদীয় আসন২৬৫ ফেনী-১
সরকার
 • সংসদ সদস্যশিরীন আখতার (জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল)
আয়তন
 • মোট৯৫.৭৫ বর্গকিমি (৩৬.৯৭ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)[১]
 • মোট১,০১,০৬২
 • জনঘনত্ব১,১০০/বর্গকিমি (২,৭০০/বর্গমাইল)
সাক্ষরতার হার
 • মোট৫৭.৩০%
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
পোস্ট কোড৩৯৪০ উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
প্রশাসনিক
বিভাগের কোড
২০ ৩০ ৫১
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন

অবস্থান ও আয়তনসম্পাদনা

পরশুরাম উপজেলার আয়তন ৯৫.৭৬ বর্গ কিলোমিটার। এটি আয়তনের দিক থেকে ফেনী জেলার সবচেয়ে ছোট উপজেলা।[২] এ উপজেলা ২৩৹ ১৩’ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৯১৹ ২৬’ পূর্ব দ্রাঘিমা রেখায় অবস্থিত। এ উপজেলার দক্ষিণে ফুলগাজী উপজেলা এবং পূর্ব, উত্তর ও পশ্চিম তিনদিকেই ভারতের ত্রিপুরা প্রদেশ। মুহুরী, কহুয়া ও সিলোনিয়া - এখানকার নদ-নদী।

ইতিহাসসম্পাদনা

উপজেলা সৃষ্টির সাথে সাথে এ পরশুরাম উপজেলা গঠিত হয়। তৎসময়ে ১০টি ইউনিয়ন নিয়ে যাত্রা শুরু করে। গত ২০০২ সালের ২৭ শে মার্চ পরশুরাম উপজেলা ভেঙ্গে ফুলগাজী উপজেলা গঠিত হওয়ায় বর্তমানে ১টি পৌরসভা ও ৩টি ইউনিয়ন নিয়ে পরশুরাম উপজেলা। বিগত ১৯৮৩ সাল থেকে এ উপজেলার কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। কথিত আছে , অত্র এলাকায় জনৈক পরশুরাম চৌধুরী নামীয় একজন জমিদারের নামে পরশুরাম উপজেলার নামকরণ করা হয়।[৩]

ভাষা ও সংস্কৃতিসম্পাদনা

পরশুরাম উপজেলার ভূ-প্রকৃতি ও ভৌগোলিক অবস্থান এই উপজেলার মানুষের ভাষা ও সংস্কৃতি গঠনে ভূমিকা রেখেছে। বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্ব অঞ্চলে অবস্থিত এই উপজেলা্র তিন দিকে ঘিরে রয়েছে ভারতের ত্রিপুরা রাজ্য। এখানে ভাষার মূল বৈশিষ্ট্য বাংলাদেশের অন্যান্য উপজেলার মতই, তবুও কিছুটা বৈচিত্র্য খুঁজে পাওয়া যায়। যেমন কথ্য ভাষায় মহাপ্রাণধ্বনি অনেকাংশে অনুপস্থিত, অর্থাৎ ভাষা সহজীকরণের প্রবণতা রয়েছে। পরশুরাম উপজেলার আঞ্চলিক ভাষার সাথে সন্নিহিত নোয়াখালীর ভাষার অনেকটা সাযুজ্য রয়েছে।

প্রশাসনিক এলাকাসম্পাদনা

পরশুরাম উপজেলায় বর্তমানে ১টি পৌরসভা ও ৩টি ইউনিয়ন রয়েছে। সম্পূর্ণ উপজেলার প্রশাসনিক কার্যক্রম পরশুরাম থানার আওতাধীন।

পৌরসভা
ইউনিয়নসমূহ

জনসংখ্যার উপাত্তসম্পাদনা

স্বাস্থ্যসম্পাদনা

  • সরকারী হাসপাতালঃ ০১ টি।
  • স্বাস্থ্য কেন্দ্র/ক্লিনিকঃ ১৪টি ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র-২টি, পল্লী চিকিৎসা কেন্দ্র-২টি।

শিক্ষাসম্পাদনা

অর্থনীতিসম্পাদনা

  • হাট বাজারঃ ১১ টি।
  • ব্যাংকঃ ০৬টি (সোনালী, কৃষি, অগ্রণী, জনতা ব্যাংক,ইসলামি ব্যাংক,সাউথ ইষ্ট ব্যাংক,এন সি সি ব্যাংক)[৩]

কৃতী ব্যক্তিত্বসম্পাদনা

  • শামছুন নাহার মাহমুদ - কবি ও সাহিত্যিক।
  • হাবিবুল্ল্যাহ বাহার চৌধুরী - যুক্তফ্রন্ট সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রী।
  • শমসের গাজী - বঙ্গবীর, খন্ডল পরগনার জমিদার এবং স্বাধীন রাজা।
  • সেনাপতি নাথ - ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের নেতা।

দর্শনীয় স্থানসম্পাদনা

  • শমসের গাজীর দিঘী - সাতকুচিয়া, বক্সমাহমুদ ইউনিয়ন;
  • জংলী শাহ-এর মাজার - উত্তর গুথুমা, পরশুরাম পৌরসভা;
  • আবদুল্লাহ শাহ-এর মাজার - উত্তর গুথুমা, পরশুরাম পৌরসভা;
  • বিলোনিয়া স্থল বন্দর - বাউরখুমা, পরশুরাম পৌরসভা;
  • মালিপাথর বধ্য ভূমি, পরশুরাম, ফেনী।
  • বিলোনিয়া রেলওয়ে জংসন-বিলোনিয়া,পরশুরাম, ফেনী।
  • মহেশপুস্করনী রাবার বাগান।

জনপ্রতিনিধিসম্পাদনা

সংসদীয় আসন জাতীয় নির্বাচনী এলাকা[৪] সংসদ সদস্য[৫][৬][৭][৮][৯] রাজনৈতিক দল
২৬৫ ফেনী-১ পরশুরাম উপজেলা, ফুলগাজী উপজেলা এবং ছাগলনাইয়া উপজেলা শিরীন আখতার জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল

বিবিধসম্পাদনা

  • পোষ্ট অফিসঃ ০২টি।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন (জুন ২০১৪)। "এক নজরে পরশুরাম"। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুন, ২০১৫  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  2. https://web.archive.org/web/20151208044832/http://www.bbs.gov.bd/WebTestApplication/userfiles/Image/National%20Reports/Union%20Statistics.pdf
  3. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ২৩ আগস্ট ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুন ২০১২ 
  4. "Election Commission Bangladesh - Home page"www.ecs.org.bd 
  5. "বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, জানুয়ারি ১, ২০১৯" (PDF)ecs.gov.bdবাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন। ১ জানুয়ারি ২০১৯। ২ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৯ 
  6. "সংসদ নির্বাচন ২০১৮ ফলাফল"বিবিসি বাংলা। ২৭ ডিসেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  7. "একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ফলাফল"প্রথম আলো। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  8. "জয় পেলেন যারা"দৈনিক আমাদের সময়। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  9. "আওয়ামী লীগের হ্যাটট্রিক জয়"সমকাল। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা