নাসিরউদ্দিন মাহমুদ

নাসিরউদ্দিন মাহমুদ[১] (শাসনকাল: ১২৪৬–১২৬৬)[২] ছিলেন দিল্লির মামলুক সালতানাতের ৮ম সুলতান। তিনি নাসিরউদ্দিন মাহমুদের পুত্র ও সুলতান ইলতুতমিশের পৌত্র ছিলেন। ইলতুতমিশ তাকে তার বাবার নাম প্রদান করেছিলেন। আলাউদ্দিন মাসুদ ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পর তিনি মসনদে বসেন।[৩]

নাসিরউদ্দিন মাহমুদ
দিল্লির সুলতান
Coin of Naziruddin Mahmud.jpg
নাসিরউদ্দিন মাহমুদের মুদ্রা
রাজত্ব১০ জুন ১২৪৬ – ১৮ ফেব্রুয়ারি ১২৬৪
রাজ্যাভিষেক১০ জুন ১২৪৬, দিল্লি
পূর্বসূরিআলাউদ্দিন মাসুদ
উত্তরসূরিগিয়াসউদ্দিন বলবন
জন্ম১৪ই মে ১২২৪
মৃত্যু১৮ ফেব্রুয়ারি ১২৬৪
দাম্পত্য সঙ্গীইয়ানা ফতেহ খাতুন
প্রাসাদমামলুক
পিতানাসিরউদ্দিন মাহমুদ
মাতাফাতেমা বেগম

মাহমুদ ধার্মিক হিসেবে পরিচিত ছিলেন। নামাজ এবং কুরআন লিপিবদ্ধকরণে তিনি অনেক সময় ব্যয় করতেন। তার শ্বশুর গিয়াসউদ্দিন বলবন মূলত শাসনকাজ তদারক করতেন।[৪]

১২৬৬ সালে মাহমুদ নিঃসন্তান অবস্থায় মৃত্যুবরণ করার পর বলবন মসনদে বসেন।

প্রারম্ভিক জীবনসম্পাদনা

নাসিরুদ্দিন মাহমুদ ইলতুতমিশ পুত্র ছিলেন। ফিরিশতা ভুলবশত তাকে ইলতুতমিশ-এর কনিষ্ঠ পুত্র বলে উল্লেখ করেন। কিন্তু ইলতুতমিশ-এর কনিষ্ঠ পুত্র ছিলেন কুতুবউদ্দিন, যিনি শাহ তুর্কান দ্বারা অন্ধ ও নিহত হন। মাহমুদের মা মালিকা-ই-জাহান জালাল-উদ-দুনিয়া ওয়া উদ-দীন উপাধি ধারণ করেন, কিন্তু তার প্রকৃত নাম জানা যায়নি। সে সম্ভবত ইলতুতমিশ এর একজন সঙ্গী ছিল। তিনি দিল্লির কাসর-বাগ (গার্ডেন ক্যাসেল) ৬২৬ হিজরী (১২২৯ খ্রিস্টাব্দে) জন্মগ্রহণ করেন, ইলতুতমিশ-এর জ্যেষ্ঠ পুত্র এবং উত্তরাধিকারী নাসিরুদ্দিন মাহমুদ শাহের অকাল মৃত্যুর পর, যিনি ইলতুতমিশ এর শাসনামলে বাংলা ও ওধ শাসন করেন। ইলতুতমিশ, তার প্রিয় পুত্রের আকস্মিক মৃত্যুতে অত্যন্ত ক্ষুব্ধ হন। শিশু মাহমুদ, তার মায়ের সাথে নিকটবর্তী শহর লুনির প্রাসাদে পাঠানো হয়। তিনি লালন-পালন করেন এবং সেখানে তার শিক্ষা গ্রহণ করেন। ১০ মে, ১২৪২ তারিখে সুলতান মুইজ উদ্দিন বাহরামকে ক্ষমতাচ্যুত করা হয় এবং আমির ও মালিকরা তাঁর কাছ থেকে দিল্লি দখল করে নেন। মাহমুদ তার ভাই জালাল-উদ-দীন মাসুদ শাহ ও ভাগ্নে আলা উদ্দিন মাসুদকে ফিরোজি প্রাসাদে নিয়ে আসেন, আমিরদের দ্বারা সাদা প্রাসাদের কারাগার থেকে রাজকীয় বাসভবন এবং আলা উদ্দিন মাসুদকে সুলতান হিসেবে মনোনীত করা হয়। ১২৪৩ সালের সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত উভয় ভাই কারাগারে বন্দী ছিলেন, যখন মাসুদ তাদের মুক্তির আদেশ দেন এবং মাহমুদকে ভারাইজ শহর এবং এর নির্ভরশীলতা প্রদান করেন। মাহমুদ দিল্লি ছেড়ে মায়ের সাথে তার ফিফের কাছে গেলেন। তিনি ঐ অঞ্চল এবং সংলগ্ন পর্বতমালায় বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করেন।[৫]

ব্যক্তিজীবনসম্পাদনা

নাসিরউদ্দিন মাহমুদ সহজসরল জীবন যাপন করতেন। নিজের হাতে কুরআন বিক্রি করে তিনি ব্যক্তিগত খরচের ব্যস্থা করতেন। তার কোনো চাকর ছিল না এবং তার স্ত্রী পরিবারের জন্য খাবার রান্না করতেন।[৬]

আরও দেখুনসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. W Nassau Lees। The Tabaqat I Nasiri Of Aboo Omar Minhaj Al Din Othman। London: Asiatic Society.। পৃষ্ঠা ৬৬৯–৬৭০। 
  2. Hanifi, Manzoor Ahmad (১৯৬৪)। A Short History of Muslim Rule in Indo-Pakistan (ইংরেজি ভাষায়)। Ideal Library। পৃষ্ঠা ৪৩। 
  3. Sinha, Narendra Krishna; Banerjee, Anil Chandra (১৯৬৩)। History of India (ইংরেজি ভাষায়)। A. Mukherjee। 
  4. Sen, Sailendra (২০১৩)। A Textbook of Medieval Indian History। Primus Books। পৃষ্ঠা 74–76। আইএসবিএন 978-9-38060-734-4 
  5. Minhaj-i-Siraj Jurjani, Abu-'Umar-i-'Usman (১৮৭৩)। The Tabakat-i-Nasiri. Translated by Major H.G. Raverty। London: Asiatic Society of Bengal। পৃষ্ঠা 633–676। 
  6. Vandhargal Vendrargal। Chennai: Vikatan Prasuram। ২০১২। পৃষ্ঠা 27। আইএসবিএন 81-89780-59-X 

বহিঃসংযোগসম্পাদনা

পূর্বসূরী
আলাউদ্দিন মাসুদ
দিল্লির সুলতান
১২৪৬–১২৬৬
উত্তরসূরী
গিয়াসউদ্দিন বলবন